বৃহস্পতিবার ২৬ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

প্রথমবারের মতো ১ মার্চ ‘বিমা দিবস’  উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

 

স্টাফ রিপোর্টার: ‘বিমা দিবসে শপথ করি, উন্নত দেশ গড়ি’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে আগামী ১ মার্চ দেশে প্রথমবারের মতো পালিত হচ্ছে জাতীয় বিমা দিবস। ওইদিন সকাল দশটায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানিকভাবে বিমা দিবসের উদ্বোধন করবেন। বিমা দিবসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন অর্ধমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এবারের বিমা দিবসে প্রথমবারের মতো পাঁচজন বিশিষ্ট বিমা ব্যক্তিকে এই খাতের অবদান রাখার জন্য বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) কার্যালয়ে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সংস্থার চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারী বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এ সময় আইডিআরএ‘র সদস্য গোকুল চাঁদ দাস, মো. বোরহান উদ্দিন।

আইডিআরএ চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬০ সালের ১ মার্চ তৎকালীন পাকিস্তানের আলফা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিতে যোগদান করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর বিমা খাতে যোগদানের দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে গত ১৫ জানুয়ারি আইডিআরএ‘র অনুরোধে ১ মার্চকে জাতীয় বীমা দিবস হিসাবে ঘোষণা করেছে সরকার। আগামী ১ মার্চ দেশে প্রথমবারের মতো পালিত হতে যাওয়া বিমা দিবসের অনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিমা শিল্পের উন্নয়ন ও বিমা সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য র‌্যালি, বিমা মেলা, আলোচনা সভাসহ নানা ধরনের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, অর্থনীতিতে বিমার অবদান তুলে ধরতে বিমা দিবসে দেশের প্রতিটি জেলা উপজেলায় র‌্যালি, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। এছাড়াও ২৯ ফেব্রুয়ারি সকাল ৯টায় রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে একটি র‌্যালি অনুষ্ঠিত হবে।

এবারের বিমা দিবসে প্রথমবারের মতো পাঁচজন বিশিষ্ট বিমা ব্যক্তিকে এই খাতের অবদান রাখার জন্য বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হবে। এদের মধ্যে রয়েছেন- সাধারণ বিমা করপোরেশনের সাবেক চেয়ারম্যান খোদা বক্স, গোলাম মাওলা, বিজিআইসি প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এম এ সামাদ, জীবন বিমা করপোরেশনের সাবেক চেয়ারম্যান শামসুল আলম এবং ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাফায়েত আহমেদ।

সূত্র জানায়, বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে সরকার ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ১৭ মার্চ পর্যন্ত বছরব্যাপী ‘মুজিব বর্ষ’ ঘোষণা করেছে। এছাড়াও চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটেও বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী পালনের কথা বলা হয়েছে। যাতে করে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী যথাযথভাবে পালন করা যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ