শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সাবেক এমপি জননেতা মাওলানা আবদুস সুবহানের ইন্তিকাল

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সাবেক নায়েবে আমীর ও ৫ বারের নির্বাচিত সাবেক জাতীয় সংসদ সদস্য বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন, সমাজসেবক, প্রবীণ জননেতা মাওলানা মুহাম্মাদ আবদুস সুবহান (৯২) বছর বয়সে গতকাল শুক্রবার ১৪ ফেব্রুয়ারি দুপুর দেড়টায় ব্রেইন স্ট্রোক করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রিজন সেলে অন্তরীণ অবস্থায় ইন্তিকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি ৫ পুত্র ও ৬ কন্যাসহ বহু নাতি-নাতনী, গুণগ্রাহী ও আত্মীয়-স্বজন রেখে গিয়েছেন। কারা কর্তৃপক্ষ কর্তৃক লাশ হস্তান্তরের পর সালাতে জানাজা ও দাফনের সময় জানা যাবে।
তার মৃত্যুতে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর ডা. শফিকুর রহমান এক শোকবাণীতে বলেন, বাংলাদেশের গণমানুষের প্রিয় নেতা, ৫ বারের নির্বাচিত সাবেক এমপি, বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন, সমাজসেবক, বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমীর মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুস সুবহানের ইন্তেকালে আমি গভীরভাবে শোকাহত।
ষড়যন্ত্রমূলক রাজনৈতিক মামলায়, দলীয় লোকদের দ্বারা মিথ্যা স্বাক্ষ্য দেওয়ায়ে তাকে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। গত ৮ বছর যাবত তিনি কারাগারে বন্দী জীবন যাপন করছেন। ৯২ বছর বয়স্ক প্রবীণ আলেমে দ্বীন মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুস সুবহান বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক উন্নয়নে অনন্য অবদান রেখেছেন। পাবনার উন্নয়নে তিনি যে ভূমিকা পালন করে গিয়েছেন তা পাবনাবাসী গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে, ইনশাআল্লাহ।
তিনি শিক্ষার উন্নয়ন ও প্রসারে অসংখ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। তার স্বপ্ন ছিল আধুনিক ও দ্বীনি শিক্ষার সমন্বয়ে গড়ে উঠা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ভবিষ্যত প্রজন্মকে দেশ ও জাতির নেতৃত্বের উপযোগী হিসেবে গড়ে তোলা। এ স্বপ্ন বুকে ধারণ করেই তিনি কারাগারে বন্দী জীবন যাপন করেছেন। তার জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত তিনি ব্যয় করেছেন এলাকবাসী ও দেশের উন্নয়নে। জীবনের শেষ মুহূর্তে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কারা কর্তৃপক্ষ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করেন। হাসপাতালে তার যথাযথ পরিচর্যা ও চিকিৎসা না হওয়ায় পরিবারের পক্ষ থেকে বার বার আবেদন জানানো হয় তাকে পারিবারের তত্ত্বাবধানে সুচিকিৎসার সুযোগ দেয়ার জন্য। কিন্তু তা বিবেচনায় নেয়া হয়নি। আমরা মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুস সুবহানের যথাযথ সুচিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আহবান জানিয়েছিলাম। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক যে, সারাজীবন যিনি দেশ ও জাতির কল্যাণে ভূমিকা পালন করলেন জীবনের শেষ মুহূর্তে তার সুচিকিৎসার কোন ভালো ব্যবস্থা করা হলো না। তার সাথে যে অন্যায় আচরণ করা হয়েছে, তা নিতান্তই দুঃখজনক।
তিনি সরকারের অবহেলার শিকার হয়ে চিকিৎসা বঞ্চিত অবস্থায় মহান আল্লাহর ডাকে সাড়া দিয়ে চলে গেলেন।
আমি মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের নিকট বিনয়ের সাথে দোয়া করি মহান আল্লাহ যেন তার সকল নেক আমল কবুল করে তাকে জান্নাতে উচ্চ মর্যাদা দান করেন।
আমি তার পরিবার-পরিজন ও আত্মীয়-স্বজনদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছি ও মহান আল্লাহর নিকট দোয়া করছি তিনি যেন তাদেরকে এ শোক সহ্য করার তাওফিক দান করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
আমাদের পাবনা সংবাদদাতা কামরুল ইসলাম জানান, সাবেক এই বর্ষীয়ান নেতার মৃত্যুর খবর শুনে পাবনা জেলা জামায়াতের আমীর অধ্যাপক আবু তালেব মণ্ডল বলেন, আজ   আমরা অভিভাবক হারালাম, যা কখনো পূরণ হবেনা। আব্দুস সুবহানের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন পাবনা জেলা জামায়াতের সাবেক আমীর অধ্যাপক মাওলানা আব্দুর রহিম, সেক্রেটারি প্রিন্সিপাল ইকবাল হোসাইন পাবনা পৌর জামায়াতের আমীর অধ্যাপক আব্দুল গাফফার খান, পাবনা সদর জামায়াতের আমির আব্দুর রউফ, শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন পাবনা জেলা সভাপতি অধ্যাপক রেজাউল করিম।
মাওলানা আবদুস সুবহানের মৃত্যুর খবর শুনে গতকাল পাবনা জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ তাৎক্ষণিক শোক জানান।
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস , পাবনা জেলা বিএনপি'র আহ্বায়ক  হাবিবুর রহমান হাবিব, সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুস সামাদ মন্টু ,জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার হাবিবুর রহমান তোতা জেলা বিএনপি'র সদস্যসচিব সিদ্দিকুর রহমান , সাবেক দপ্তর সম্পাদক জহুরুল ইসলাম।
উল্লেখ্য আজ শনিবার দুপুর ২ টায় মাওলানা আব্দুস সুবহানের নিজ হাতে গড়া প্রতিষ্ঠান, পাবনা দারুল আমান ট্রাস্ট ময়দানে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ