সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

মাতৃভাষা বাংলাভাষা খোদার সেরা দান

স্টাফ রিপোর্টার : বার বার ফিরে আসা ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিবাহী মাস ফেব্রুয়ারির সপ্তম দিন আজ শুক্রবার। এ মাস আমাদেরকে শেখায় ভাষাপ্রেম, দেশপ্রেম, স্বজাত্যবোধ। আরও কতো কী! অমর একুশের বদৌলতেই বাংলা ভাষাকে আমরা আপন করে পেয়েছি- এ কথা অস্বীকার করার কোনো জো নেই। যাই হোক, বাংলা ভাষার প্রতিষ্ঠা কেবল ‘বায়ান্ন’ কিংবা ‘একুশের’ ওপর ভিত্তি করে নয়। জাতীয় চেতনার সৌধ বিনির্মাণের নেপথ্যে রয়েছে দীর্ঘ পরিক্রমা। অযুত-নিযুত মানুষের আন্দোলনে স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ।

ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, ১৯৪৭ সাল থেকেই মূলত এই জনপদে সমষ্টিগত বাংলা ভাষা আন্দোলন শুরু হয়। সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিক উপায়ে পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠীর উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে চাপিয়ে দেয়ার বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছিল এ অঞ্চলের প্রায় চার কোটি বাংলা ভাষাভাষী। ঊনিশশ’ সাতচল্লিশের জুন থেকে ডিসেম্বর মাস ছিল রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে টালমাটাল। ঐ বছরই ১৪ আগস্ট পাকিস্তান বিভক্তির পর পরই কেন্দ্রীয় সরকারের স্বেচ্ছাচারিতা বর্তমান বাংলাদেশের মানুষের কাছে অসহনীয় মনে হয়। এর আগে ১৭ মে দাক্ষিণাত্যের হায়দরাবাদে অনুষ্ঠিত উর্দু ভাষা সম্মেলনে ঘোষণা করা হয়- ‘উর্দুই হবে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা।’ এর মাত্র মাস দুয়েক পরেই আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর ড. জিয়াউদ্দিন আহম্মেদ বলেন, ‘উর্দুকেই পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হিসেবে গ্রহণ করা উচিত।’ এ ধরনের বক্তব্যের প্রতিবাদে সারা দেশে ঝড় ওঠে। রাষ্ট্রভাষা নিয়ে তখনি কবি-সাহিত্যিক, শিল্পী ও বুদ্ধিজীবীদের এমনকি সাধারণ মানুষের মধ্যে একটা সচেতনতা সৃষ্টি হয়েছিল।

সাতচল্লিশের নবেম্বর মাসের প্রথমে বাংলাকে বাদ দিয়ে ডাক বিভাগের খাম, পোস্টকার্ড, ডাক টিকেট, রেল টিকেট, মানি-অর্ডার ফরম ইত্যাদি উর্দুর পাশাপাশি ইংরেজিতে ছাপা হয়। এর প্রতিবাদে সরকারি কর্মচারীদের একটি অংশ এবং ছাত্ররা মিছিল নিয়ে রাস্তায় নামে। সভার মাধ্যমে প্রতিবাদ জানায়। আর বাংলাকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার জোরালো দাবি ওঠে। মিছিলের শ্লোগান ছিল- ‘বাংলাকে সব কিছুতে স্থান দিতে হবে’, ‘বাংলা ভাষা ও বাঙালির সাথে বেঈমানী চলবে না’, ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই, উর্দুর সাথে বিরোধ নাই’, ‘উর্দু-বাংলা ভাই ভাই’ ইত্যাদি। ১২ নবেম্বর ঢাকার বুদ্ধিজীবীগণ বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবি পেশ করেন পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দিনের কাছে। ১৭ নবেম্বর করাচিতে অনুষ্ঠিত পাকিস্তান শিক্ষা সম্মেলনে পূর্ব বাংলার ভাষা প্রশ্নে বিতর্ক ও অসন্তোষ দেখা দেয়। এ থেকেই মানুষ ফুঁসতে থাকে তীব্র ক্ষোভে।

এদিকে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনে সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে তথ্য ঘেঁটে কথাশিল্পী হাসান আজিজুল হক মন্তব্য করেছেন, ক্রোধ ও বিক্ষোভ প্রকাশেও মধ্য শ্রেণীর শিক্ষিত মানুষদের সাথে দেশের সর্বস্তরের মানুষ এসে যোগ দিচ্ছেন এবং আন্দোলন ক্রমেই একটি গণআন্দোলনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। অসংখ্য শোভাযাত্রা, প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হতে থাকে গ্রামে-গঞ্জে, শহরে-শহরে, মহকুমায়-মহকুমায়, জেলায়-জেলায়। এরপর প্রায় ৬০টির মতো স্থানে প্রতিবাদ ও হরতালের কথা উল্লেখ করেছেন তিনি।

ভাষা আন্দোলনের জীবন্ত কিংবদন্তী ডা. আহমদ রফিক তার ‘ভাষা আন্দোলন : ইতিহাস ও উত্তর প্রভাব’ শীর্ষক গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন, “ভাষা আন্দোলন শুধু ঢাকা শহরে সীমাবদ্ধ ছিল না বরং প্রদেশব্যাপী এ আন্দোলনের বিস্তার ঘটেছিল। এ আন্দোলনের মূল্যায়ন করতে গেলে দেখা যায় যে, পূর্ববঙ্গের একাধিক জেলা শহরে এমনকি মহকুমা শহরেও আন্দোলনের তীব্রতা ঢাকার ২২ ফেব্রুয়ারির আন্দোলনকে মনে করিয়ে দেয়। আর যশোর তো এদিক থেকে এক পা এগিয়ে। কারণ যত দূর জানা যায়, ১৯৪৮ সালের আন্দোলনে অন্য কোথাও ছাত্র-জনতার ওপর পুলিশের গুলীবর্ষণের ঘটনার কোনো সাক্ষ্যপ্রমাণ নেই। তাই ভাষা আন্দোলনে প্রথম গুলীবর্ষণ যশোরে ঘটেছে বলে ধরে নেয়া চলে।” বর্ণিত গ্রন্থে ‘মফস্বলে ভাষা আন্দোলন’ অধ্যায়ে নারায়ণগঞ্জ, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, বগুড়া, পাবনা, যশোর, সিলেট, খুলনা, কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, রংপুর, ফরিদপুর, নোয়াখালী, ফেনী, দিনাজপুর ও বরিশালে ভাষা আন্দোলনের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

এদিকে, বায়ান্নর ২১ শে ফেব্রুয়ারি ঢাকায় ছাত্র হত্যার পর বিদ্রোহবহ্নি দাবানলের ন্যায় সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। এর ধাক্কা লাগে নারায়ণগঞ্জেও। পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচী মোতাবেক নারায়ণগঞ্জ রহমতুল্লাহ ইনস্টিটিউশনে বিভিন্ন বক্তা পুলিশের গুলীতে ঢাকার ছাত্রহত্যার বিস্তৃত বিবরণ পেশ করেন। সভা শেষে বিরাট মিছিল পুলিশের গুলীর প্রতিবাদে সমগ্র শহর প্রদক্ষিণ করে। ২২ শে ফেব্রুয়ারী সাধারণ হরতাল পালনের আহবান জানান হয়। ২৩ ফেব্রুয়ারি সমগ্র নারায়ণগঞ্জ শহর ও শিল্প এলাকায় হরতাল শেষে ইষ্ট পাকিস্তান ফেডারেশন অব লেবারের সভাপতি ফয়েজ আহমদের সভাপতিত্বে তোলারাম কলেজ প্রাঙ্গণে এক বিরাট জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। করাচির ইংরেজী দৈনিক সম্পাদক জেড, এইচ, সুলেরী এই সভায় বক্তৃতা করেন। তিনি বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষার মর্যাদাদানের অকুণ্ঠ সমর্থন জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ