বৃহস্পতিবার ০১ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

বাংলাদেশে চীনা নাগরিক  চীনে বাংলাদেশী নাগরিক কেউ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হননি

 

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশে কোনো চীনা নাগরিক এবং চীনে কোনো বাংলাদেশী নাগরিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হননি বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং। সেই সাথে তিনি গুজব ছড়ানো থেকে সবাইকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, সাধারণ মানুষকে সতর্ক হতে দিন, তবে আতঙ্ক সৃষ্টি করবেন না। একইভাবে বাংলাদেশে থাকা কোনো চীনাও এই ভাইরাসে সংক্রমিত হননি। সেজন্য এই ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রদূত।

গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকাস্থ চীনা দূতাবাসে কয়েকজন সাংবাদিকের সাথে আলাপকালে রাষ্ট্রদূত এইসব কথা বলেন। এ সময় অন্যান্যের মাঝে মিশনের উপপ্রধান হৌলং ইয়ান উপস্থিত ছিলেন। 

লি জিমিং বলেন, চীনা দূতাবাসের কেউ এবং বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রকল্পগুলোতে কাজ করা কোনো চীনা নাগরিক করোনাভাইরাসের শিকার হননি। একই সময়ে পুরো চীনে থাকা কোনো বাংলাদেশি নাগরিক আক্রান্ত হননি। এ পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ার মতো দেশগুলো বেশি প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে উল্লেখ করে এতে অসন্তোষ প্রকাশ করেন রাষ্ট্রদূত।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেব অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত চীনসহ ২৫ দেশে নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। মোট রোগীর ৯৯ শতাংশের বেশি চীনে ভাইরাসটির শিকার হয়েছেন। এদিকে, করোনাভাইরাসে এক দিনের ব্যবধানে মৃতের সংখ্যা ৭৩ জন বেড়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত এ ভাইরাসে অন্তত ৫৬৩ জন মারা গেছেন। সর্বশেষ তথ্যানুসারে, নতুন ৩ হাজার ৬৯৪ জনসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ হাজার ১৮ জন। চীনের বাইরে কমপক্ষে ২৪০ জন আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে, যার মধ্যে দুজনের প্রাণহানির ঘটনা রয়েছে।

গত মঙ্গলবার হংকংয়ে ৩৯ বছর বয়সী এক ব্যক্তি প্রাণ হারান। তিনি কিছুদিন আগেই করোনাভাইরাসের উৎসস্থল চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে ফিরেছেন। এর আগে, গত সপ্তাহে ফিলিপাইনে মারা যান উহানফেরত আরও একজন।

এদিকে বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের (এপি) এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ডিসেম্বরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পরে ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থাকা বিভিন্ন দেশের লোকজনকে তারা সরিয়ে নিচ্ছে।

বিশ্বের অনেক দেশই ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে চীন থেকে আগতদের অন-অ্যারাইভাল ভিসা, এমনকি কিছু দেশ সব ধরনের ভিসা দেয়াও বন্ধ করে দিয়েছে। বেশিরভাগ এয়ারলাইন্স চীনগামী ফ্লাইট বন্ধ করে দিয়েছে। করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব থেকে একপ্রকার বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে চীন।

এই পরিস্থিতিতে মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমণের এ ভাইরাস ঠেকাতে বৃহস্পতিবারই বেইজিংয়ে বাংলাদেশ দূতাবাস এক নির্দেশনায় জানায়, পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশে কর্মরত চীনের কোম্পানিগুলো যেন স্বদেশ থেকে কর্মী নিয়োগে বিরত থাকে। পাশাপাশি বাংলাদেশে অবস্থানরত চীনের নাগরিকরা যেন আপাতত স্বদেশে ভ্রমণ না করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ