সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সৎ দক্ষ দেশপ্রেমিক নাগরিক তৈরির অঙ্গীকার নিয়ে এগিয়ে যাবে ছাত্রশিবির----শিবির সভাপতি

৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে রাজধানীসহ সারাদেশে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, শিক্ষা উপকরণ বিতরণ, আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিলসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির। 

ঢাকা মহানগর উত্তরের ক্রীড়া টুর্নামেন্ট ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিবির সভাপতি মো: সিরাজুল ইসলাম বলেন, সদ্য স্বাধীন হওয়া এ বাংলাদেশে যখন দুর্নীতি ও দুঃশাসনের যাঁতাকলে পিষ্ট। সেকুলার ও নৈতিকতা বিবর্জিত শিক্ষাব্যবস্থা যখন জাতিকে নিয়ে যাচ্ছিল এক অনিশ্চয়তার দিকে, যুব প্রজন্ম যখন অপসংস্কৃতির কালো থাবায় ধ্বংসের মুখে, এমন প্রেক্ষাপটে বিশৃঙ্খল ও দিশেহারা ছাত্রসমাজকে পথ দেখাতে আলোর মশাল নিয়ে সৎ, দক্ষ ও দেশপ্রেমিক নেতৃত্বের বিকাশ এবং ইসলামী সমাজ বিনির্মাণের লক্ষ্যে ১৯৭৭ এর ৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ থেকে যাত্রা করে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির। ছাত্রশিবির তার লক্ষ্য উদ্দেশ্যে অটল অবিচল থেকে এগিয়ে চলেছে। তবে এ যাত্রার প্রতিটি পরতে পরতে ছাত্রশিবিরকে ত্যাগ- কুরবানীর নজরানা পেশ করতে হয়েছে। প্রতিনিয়ত অপ শক্তি কর্তৃক খুন, গুম, নির্যাতন, গ্রেপ্তার, জেলসহ সিমাহীন জুলুম সহ্য করতে হচ্ছে। নেতাকর্মীরা ঈমানী দৃঢ়তা, সাহস ও ধৈর্য দিয়ে সকল প্রতিকূলতা মোবাবেলা করে আসছে। কিন্তু ইসলামী মূল্যবোধের ভিত্তিতে সমৃদ্ধ জাতি গঠনের লক্ষ্য থেকে একচুল পরিমাণ পিছু হটেনি সংগঠন। সর্বোচ্চ ত্যাগের বিনিময়ে কুরআনকে বুকে ধারণ ও বাতিলের মোকাবেলা করে আল্লাহর মেহেরবানীতে ইসলামী ছাত্রশিবির আজ জাতির আশা-আকাক্সক্ষার প্রতীকে পরিণত হয়েছে। শত প্রতিকূলতার পরেও এই কাফেলা আজ লাখো ছাত্রদের পদভারে মুখোরিত। ইসলামী ছাত্রশিবির তরুণদের মাঝে ঘুণেধরা সমাজ পরিবর্তনের একটি স্বপ্ন তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে। ছাত্রশিবিরের অগ্রযাত্রায় শুধু ছাত্রসমাজ নয় বরং দেশের সকল শ্রেণী পেশার মানুষের অকৃত্রিম ভালোবাসা ও সহযোগিতা অপরিসীম ভূমিকা পালন করেছে। ছাত্রশিবির জাতির প্রত্যাশা পূরণে ছিল, দৃঢ় প্রতিজ্ঞ আছে এবং থাকবে ইনশা-আল্লাহ।

তিনি বলেন, ছাত্রশিবির-একটি নাম, একটি ইতিহাস, আল্লাহর পথের এক দুঃসাহসী কাফেলার নাম। মহান আল্লাহ তায়ালার প্রতি অবিচল বিশ^াস, ঈমানী চেতনা, ছাত্রজনতার ভালোবাসাকে ধারণ করে এ কাফেলা ইহকালিন ও পরকালিন সফলতার লক্ষ্যে এগিয়ে চলেছে। আমাদের যাত্রা যেকোন মূল্যে মঞ্জিলে মকসুদে পৌঁছানো পূর্ব পর্যন্ত  সমাপ্ত হবে না ইনশাআল্লাহ। প্রতিষ্ঠার ৪৩ বছরে এসে আমরা সেই প্রত্যয় ব্যক্ত করছি। সেইসাথে ছাত্রশিবিরের এই গঠনমূলক পথচলায় ছাত্রজনতার সহযোগিতা কামনা করছি।

চাঁদপুর জেলা শাখার : শিক্ষা উপকরণ বিতরণ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করে শিবিরের সেক্রেটারি জেনারেল সালাহউদ্দিন আইউবী বলেন, ছাত্রদের সমস্যা সমাধানে ও শিক্ষা প্রসারে ইসলামী ছাত্রশিবির যে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করছে তা সর্বাবস্থায় অব্যাহত রাখবে। যারা ছাত্রশিবিরকে নিঃশেষ করতে চেয়েছে তারাই ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। মজলুম ছাত্রশিবিরের পাশে দাঁড়িয়েছে লাখো ছাত্র। আরোও উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় প্রকাশনা সম্পাদক হাবিবুর রহমান, জেলা সভাপতিসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

ঢাকা মহানগর উত্তর : কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক রাশেদুল ইসলামের নেতৃত্বে রাজধানীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালি করে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগর উত্তর শাখা। সকাল সাড়ে ৮টায় র‌্যালিশুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এসময় মহানগর সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সেক্রেটারি মাহমুদ মুরাদসহ হাজার হাজার নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। 

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ : ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে রাজধানীর জুরাইনে বর্ণাঢ্য র‌্যালি করেছে ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ শাখা। সকাল ৮টায় কেন্দ্রীয় সাহিত্য ও দাওয়াহ সম্পাদক রাজিবুর রহমান পলাশের নেতৃত্বে র‌্যালি রাজধানীর গেন্ডারিয়া রেলস্টেশন থেকে শুরুহয়ে জুরাইন চৌরাস্তায় গিয়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এতে মহানগর সভাপতি রাসেল মাহমুদ, সেক্রেটারি নোমান শিকদারসহ শাখার বিপুল-সংখ্যক নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করে। 

ঢাকা মহানগর পশ্চিম : ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে রাজধানীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালি আয়োজন করে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগর পশ্চিম শাখা। সকাল ৮টায় কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মঞ্জুরুল ইসলামের নেতৃত্বে মিরপুর-১ নম্বর থেকে শুরুহয়ে আনসার ক্যাম্পের সামনে গিয়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এসময় মহানগরী সভাপতি এনামুল হক, সেক্রেটারি মারুফুল হাসানসহ মহানগরীর বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

গাজীপুর মহানগর: প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করে ছাত্রশিবির গাজীপুর মহানগর শাখা। সকাল ৯টায় কেন্দ্রীয় এইচআরডি সম্পাদক গোলাম রাব্বানির নেতৃত্বে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে র‌্যালি ও সমাবেশ করে নেতাকর্মীরা। এসময় শাখা সভাপতি ফখরুল ইসলাম, সেক্রেটারি জহির উদ্দিনসহ বিভিন্ন পর্যায়ের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। 

খুলনা মহানগর: নগরীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালির মাধ্যমে ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করে ছাত্রশিবির খুলনা মহানগর। নগরীতে র‌্যালিটি শুরুহয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে সমাবেশে মিলিত হয়। এতে নেতৃত্ব দেন মহানগর সভাপতি শাহরিয়ার ফয়সাল। এসময় সাবেক কেন্দ্রীয় মাদরাসা সম্পাদক হাফেজ ইমরান খালিদ, মহানগর সেক্রেটারি মোশারফ আনসারিসহ বিপুল-সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

রংপুর মহানগর: প্রতিষ্ঠা বার্ষিকতে ছাত্রশিবির রংপুর মহানগর শাখা, সকাল ৯টায় শাখা সভাপতি আশিকুর রহমানের নেতৃত্বে নগরীতে র‌্যালি ও সমাবেশ করে নেতাকর্মীরা। এসময় শাখা সেক্রেটারিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

রাজশাহী মহানগর: ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে উপলক্ষে ইসলামী ছাত্রশিবির রাজশাহী মহানগরের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৮টায় র‌্যালিটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে সিটি বাইপাস মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালি পরবর্তী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মহানগর সভাপতি সালাহউদ্দিন আহমেদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন মহানগর সেক্রেটারি হাফেজ নুরুল আওয়ালসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। 

সিলেট মহানগর: নগরীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করে ছাত্রশিবির সিলেট মহানগর শাখা। সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত এ র‌্যালিতে মহানগর সভাপতি, সেক্রেটারিসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী অংশ গ্রহণ করেন।

চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর: ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর নগরীতে বর্ণ্যাঢ্য র‌্যালি বের করে। র‌্যালিটি নগরীতে শুরুহয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এতে নেতৃত্ব দেন শাখা সভাপতি। মহানগর সেক্রেটারিসহ  শাখার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ: নগরীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালির মাধ্যমে ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করে ছাত্রশিবির চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ শাখা। সকাল ৮টায় শাখা সভাপতির নেতৃত্বে নগরীতে র‌্যালি ও সমাবেশ করে নেতাকর্মীরা। এতে শাখা সেক্রেটারিসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী অংশ গ্রহণ করে।

লক্ষীপুর শহর: নগরীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করে ছাত্রশিবির লক্ষীপুর শহর শাখা। সকাল ১০টায় শহর সভাপতির নেতৃত্বে র‌্যালিটি লক্ষীপুর-ঢাকা মহাসড়কে শুরুহয়ে মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এসময় শহর সেক্রেটারিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

 মৌলভীবাজার শহর: ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে মৌলভীবাজারে বর্ণাঢ্য র‌্যালি করেছে মৌলভীবাজার শহর শাখা। সকাল সাড়ে ৯টায় শহরের কুসুমবাগ এলাকা থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালিটি বের হয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পশ্চিম বাজার পয়েন্টে সমাবেশ মিলিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মৌলভীবাজার শহর সভাপতি মিছবাহুল হাসান। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা শিবিরের সভাপতি আব্দুল বাছিত, শহরর ও জেলা শিবিরের সেক্রেটারি, শহর, জেলা ও থানা শাখার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

নরসিংদী শহর: শহরে বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করে ছাত্রশিবির নরসিংদী শহর শাখা। র‌্যালিটি নরসিংদী বাজিরমোড় থেকে শুরুকরে আরশিনগর হয়ে শিক্ষাচত্বর এসে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। শহর সভাপতিআব্দুল্লাহ আল মামুনের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি পরিচালনায় র‌্যালিতে আরও উপস্থিত ছিলেন শাখা দপ্তর সম্পাদকসহ নেতৃবৃন্দ।

 ফেনী শহর: প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ফেনী শহরের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠান। ফেনী শহর সভাপতি আনোয়ার হোসাইনের সভাপতিত্বে এবং শহর সেক্রেটারি মু.ইমরান হোসাইনের পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক ও বিতর্ক সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম।

কক্সবাজার জেলা:  ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে কক্সবাজার মহাসড়কে বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করে ছাত্রশিবির কক্সবাজার জেলা শাখা। সকাল ১০টায় শাখা সভাপতির আব্দুর রহিমের নেতৃত্বে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কে র‌্যালি করে নেতাকর্মীরা। এসময় বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

হবিগঞ্জ জেলা: ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করে ছাত্রশিবির হবিগঞ্জ জেলা শাখা। সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় স্পোর্টস সম্পাদ আবু সালেহ আকরাম। এসময় জেলার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও সারাদেশের গুরুত্বপূর্ণ শহর ও জেলায় র‌্যালি ও কর্মসূচি পালিত হয়।

এই কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে:

১. সারাদেশে শাখা ও থানা পর্যায়ে আলোচনা সভা এবং বর্ণাঢ্য র‌্যালি

২. মেধাবী ও দরিদ্র ছাত্রদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ

৩. মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের সংবর্ধনা ও শিক্ষাবৃত্তি প্রদান

৪. অদম্য মেধাবীদের সহযোগিতা প্রদান

৫. অনাথ ও দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ

৬. কৃতী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান

৭. ক্যাম্পাস পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান

৮. সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও দেয়ালিকা প্রকাশ

৯. রচনা, কুইজ, বিতর্ক, বক্তৃতা ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা

১০. ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্প, ব্লাড গ্রুপিং ও স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি

১১. শহীদ ও আহত-পঙ্গুত্ব বরণকারী পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ

১২. বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় বার্তা প্রেরক

সিলেটে : বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার নগরীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালী করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির সিলেট মহানগর শাখা।

সিলেট মহানগর শিবির সেক্রেটারি সাইফুল ইসলামের পরিচালনায় সভাপতির বক্তব্যে কেন্দ্রীয় কার্যকরী পরিষদ সদস্য ও সিলেট মহানগর সভাপতি মামুন হোসাইন বলেন, ছাত্রশিবির এদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী,  মেধাবী ছাত্রসমাজের প্রিয় ঠিকানা। অসংখ্য অগনিত পথহারা ও দিশেহারা ছাত্রসমাজের আশ্রয়স্থল। সন্ত্রাসনির্ভর ছাত্ররাজনীতির মাধ্যমে ছাত্রসমাজকে যখন পরিকল্পিত বিপথগামী করা হচ্ছিল, যখন শিক্ষাব্যবস্থা ছিল ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে ইসলামী মূল্যবোধকে উৎখাত করতে খোদাদ্রোহী শক্তি বিস্তার করছিল বিষাক্ত থাবা ঠিক তখনি ১৯৭৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে কার্যক্রম শুরু করেছিল ছাত্রশিবির। প্রতিষ্ঠার পর থেকে আজ অবধি ছাত্রশিবির মেধা ও নৈতিকতার সমন্বয় সাধন করে একটি আদর্শ সমাজ গঠনে কার্যকরী ভুমিকা পালন করে যাচ্ছে। ছাত্রসমাজের কল্যাণের লক্ষ্যে ভবিষ্যতেও ছাত্রশিবির তার সকল গঠনমূলক কাজ অব্যাহত রাখবে।

 মৌলভীবাজার শহর শিবির ঃ এদিকে ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মৌলভীবাজারে মেধাবী ছাত্রদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির মৌলভীবাজার শহর শাখা। 

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে শহীদ আলমাছ মিলনায়তনে এই শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক ও বিতর্ক সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম। উপস্থিত ছিলেন শহর শিবিরের সেক্রেটারী আবু তাহেরসহ অন্যান্যরা। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিবিরের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক ও বিতর্ক সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম বলেন, “ছাত্রশিবির একটি আদর্শিক ও গতিশীল সংগঠন। সরকারের শত নির্যাতন এই সংগঠনের ধারাবাহিক কাজে কোন বাঁধার সৃষ্টি করতে পারেনি। নানামুখী গঠনমূলক কার্যক্রমই ছাত্রশিবিরকে দেশের মানুষের হৃদয়ে পৌঁছাতে সাহায্য করেছে। দেশের হাজারো তরুণ প্রতিনিয়ত ছাত্রশিবিরের ছায়াতলে আশ্রয় নিয়ে সোনার বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখছে”। 

তিনি বলেন, “বাংলাদেশের মানুষের কাছে ছাত্রশিবির ও অন্যান্য ছাত্র সংগঠনের পার্থক্য সুস্পষ্ট। বর্তমানে ক্ষমতার আশ্রয়ে থাকা অন্য ছাত্র সংগঠনগুলো কী করছে, আর নানা প্রতিকুলতা পেরিয়ে ছাত্রশিবির কী করছে তা দেশবাসী ভালো করেই জানে। ছাত্রশিবির যখন মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্যতার নাম, তখন অন্যান্য ছাত্র সংগঠনগুলো তাদের কার্যক্রমের মাধ্যমে মানুষের কাছে আতংকের বিষয় বস্তুতে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশকে গড়তে হলে ছাত্রশিবিরের আদর্শিক রাজনীতি ছাত্রসমাজের মাঝে আরো ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেয়ার কোন বিকল্প নাই”। বিজ্ঞপ্তি ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ