বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

১০ জঙ্গির অভিযোগ গঠনের আদেশ ২ মার্চ

স্টাফ রিপোর্টার: রাজধানীর কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্তানায় অভিযানে হতাহতের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ১০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনেরর আদেশের জন্য ২ মার্চ দিন ধার্য করেছেন আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান এ দিন ধার্য করেন। এদিন আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানি হয়। আদালত অভিযোগ গঠনের আদেশের জন্য ২ মার্চ দিন ধার্য করেন।

এদিন আসামী আসলাম হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আবু জাররা ওরফে র‌্যাশ (২০), রাকিবুল হাসান রিগ্যান (২১), মামুনুর রশিদ রিপন ওরফে মামুনের (৩০) পক্ষে আইনজীবী দেলোয়ার হোসেন শুনানি করেন। এছাড়া আসামী আব্দুর রউফ প্রধানের পক্ষে আইনজীবী আলহাজ্ব জসিম উদ্দিন মামলা থেকে অব্যাহতির আবেদন করেন। অপর আসামী মুফতি মাওলানা আবুল কাশেম ওরফে বড় হুজুর ও সালাহ উদ্দিন কামরানের পক্ষে আইনজীবী জাকির হোসেন অব্যাহতির আবেদন করেন।

তবে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী গোলাম সারোয়ার খান জাকির সব আসামীর অব্যাহতির আবেদন নামঞ্জুর করে অভিযোগ গঠনের দাবি জানান। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক অভিযোগ গঠন বিষয়ে আদেশের জন্য তারিখ দেন। সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর গোলাম সারোয়ার খান জাকির এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলায় অভিযুক্ত আসামীরা হলেন, আসলাম হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আবু জাররা ওরফে র‌্যাশ(২০), রাকিবুল হাসান রিগ্যান (২১), শরিফুল ইসলাম ওরফে খালেদ ওরফে সোলায়মান (২৫), মামুনুর রশিদ রিপন ওরফে মামুন (৩০), হাদিসুর রহমান সাগর (৪০), আব্দুস সবুর খান হাসান ওরফে সোহেল মাহফুজ ওরফে নাসরুল্লা হক ওরফে মুসাফির ওরফে জয় ওরফে কুলম্যান (৩৩), আজাদুল কবিরাজ ওরফে হার্টবিট (২৮), সালাহ উদ্দিন কামরান (৩০), আব্দুর রউফ প্রধান এবং মুফতি মাওলানা আবুল কাশেম ওরফে বড় হুজুর। এদের মধ্যে প্রথম ছয় জন হলি আর্টিজান হামলায় দ-প্রাপ্ত। আসামীদের মধ্যে পলাতক রয়েছেন আজাদুল কবিরাজ ওরফে হার্টবিট (২৮)। আর আব্দুর রউফ প্রধান এবং মুফতি মাওলানা আবুল কাশেম ওরফে বড় হুজুর জামিনে আছেন। বর্তমানে হলি আর্টিজানের দ-প্রাপ্ত ছয় আসামীসহ ৭ আসামী কারাগারে রয়েছেন। 

গতকাল সকালে বিশেষ নিরাপত্তায় আলোচিত এ মামলার আসামীদের আদালতে হাজির করা হয়। এরপর শুনানি শেষে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়। এরআগে, গত বছরের ৫ ডিসেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পরিদর্শক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ২৬ জুলাই রাজধানীর কল্যাণপুরের ৫ নম্বর সড়কের ‘জাহাজ বিল্ডিং’ বাড়িতে রাতে পুলিশ বিশেষ অভিযান চালায়। অভিযানে ৯ জঙ্গি মারা যায়। হাসান নামে একজনকে গুলীবিদ্ধ অবস্থায় আটক করে পুলিশ, অপর একজন পালিয়ে যায়। তারা সবাই জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) সদস্য বলে জানিয়েছিল পুলিশ। ওই ঘটনায় ২৭ জুলাই রাতে মিরপুর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক মো. শাহজাহান আলম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।  

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ