শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

মালয়েশিয়ার পাশে দাঁড়াল পাকিস্তান 

৬ ফেব্রুয়ারি, রয়টার্স : সম্প্রতি জম্মু ও  কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। এ নিয়ে ভারতের তীব্র সমালোচনা করেছিল মালয়েশিয়া। মালয়েশিয়ার এই অবস্থানে কড়া পদক্ষেপ নেয় ভারত। মালয়েশিয়া থেকে পাম তেলের আমদানি বন্ধ করে দিয়েছে নয়াদিল্লি। এ সিদ্ধান্ত দেশটির অর্থনীতিতে আঘাত হেনেছে। এই পরিস্থিতিতে মালয়েশিয়া থেকে যত বেশি সম্ভব পাম তেল আমদানি করা হবে বলে জানিয়েছে পাকিস্তান।  

জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রদ করা নিয়ে আন্তর্জাতিক মঞ্চে তুমুল হইচই জুড়েছিল পাকিস্তান।  তবে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ব্রিটেন, ফ্রান্স কেউই তাতে তেমন কর্ণপাত করেনি। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে কাশ্মীর প্রসঙ্গ তোলার একাধিক চেষ্টা করে শেষমেশ হাল ছেড়ে দেয় পাকিস্তানের পরম বন্ধু চীনও। এই পরিস্থিতিতে ইসলামাবাদের পক্ষে দাঁড়িয়ে মন্তব্য পেশ করেছিলেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ।  

যেহেতু গত কয়েক মাস ধরে কট্টর ভারত-বিরোধী অবস্থান নিয়েছেন ও কাশ্মীরসহ নানা ইস্যুতে খোলাখুলিভাবে পাকিস্তানকে সমর্থন করছেন তিনি । তাই বদলা নিতে ভারত মালয়েশিয়া থেকে পাম তেল কেনা বন্ধ করে ইন্দোনেশিয়া থেকে পাম তেল আমদানি বাড়িয়ে দিয়েছে। গত বছর পর্যন্ত ভারত ইন্দোনেশিয়া থেকে তিন লাখ টন পাম তেল কিনেছে। এবার তা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ টন। মালয়েশিয়া বিশ্বে যত লক্ষ টন পাম তেল বিক্রি করে তার এক- তৃতীয়াংশ কিনত ভারত।  

বিদেশি মুদ্রা আয়ের এই প্রধান পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেশ বিপাকে পড়েছে দেশটি।  সম্প্রতি মালয়েশিয়া জানিয়েছিল, ভারত পাম তেল রপ্তানি বন্ধ করে দিলে তার বদলা নিতে তারা পারবে না। কারণ, ‘বিশাল’ ভারতের বিরুদ্ধে পাল্টা ব্যবস্থা নিতে তারা অক্ষম। বাণিজ্যিক লড়াইয়ে ‘ক্ষুদ্র’ মালয়েশিয়া ভারতের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে পারবে না বলেই জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। এই পরিস্থিতিতে, মালয়েশিয়ায় পৌঁছে প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের সঙ্গে দেখা করেন ইমরান।  

সেখানে ইমরান বলেন, কাশ্মীর নিয়ে মালয়েশিয়ার অবস্থান মেনে নিতে পারেনি ভারত। তাই পাম তেল আমদানি বন্ধ করার হুমকি দিয়েছে। এটা আমাদের নজরে এসেছে। মালয়েশিয়া থেকে পাম তেল কিনতে আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করব।

মহাথিরের সঙ্গে কাশ্মীর নিয়ে আলোচনা করেছেন ইমরান। তবে মালয়েশিয়ার শিল্পমন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে মঙ্গলবার সে দেশের পাম অয়েল কাউন্সিল বিবৃতি দিয়ে বলেছে, পাম তেল আমদানি সাময়িকভাবে নিয়ন্ত্রণ করেছে ভারত।

ভারতের বিরুদ্ধে সুর নরম করছেন মাহাথির

মালয়েশিয়ার পাম অয়েল বর্জনের পর ভারতের বিরুদ্ধে সমালোচনা কমিয়ে দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। গতকাল বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থাকে পছন্দের উত্তরসূরি আনোয়ার ইব্রাহীম এমন দাবিই করেছেন।

কাজেই এই সুর নরমের বিষয়টি মাথায় রাখতে নয়াদিল্লির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মালয়েশিয়ার সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী।

বিশ্বে ভোজ্যতেলের সবচেয়ে বড় ক্রেতা ভারত গত মাসে মালয়েশিয়ার পরিশোধিত তেল আমদানিতে লাগাম ধরেছে। মালয়েশিয়ার তেল ক্রয় বন্ধে ব্যবসায়ীদের অনানুষ্ঠানিকভাবে বারণ করাও হয়েছে।

মুসলিমবিদ্বেষী নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে মাহাথিরের সমালোচনার জবাবে ভারত এমন উদ্যোগ নিয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে। এছাড়া কাশ্মীরে ভারতের দখলদারিত্বের বিরুদ্ধেও সরব ছিলেন এই নবতিপর প্রধানমন্ত্রী।

সাক্ষাৎকারে আনোয়ার বলেন, যখন আপনি উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন, তখন বিশ্বের দেশগুলো কোনো জোরালো আপত্তি জানায়নি। কিন্তু

অবশ্যই এই প্রসঙ্গে তুন মাহাথির পুরোপুরি জোরালো ছিলেন। একজন প্রধানমন্ত্রীর জন্য এটা গৌরবের বলে তিনি দাবি করেন।

‘কিন্তু তখন থেকে গত কয়েক সপ্তাহে, নিজের অবস্থান থেকে সংযমের সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন এবং প্রয়োজনীয় সমন্বয়ের চেষ্টা করেছেন। আমি নিশ্চিত, ভারতীয় নেতৃবৃন্দ বিষয়টি মাথায় নেবেন যে প্রধানমন্ত্রী মাহাথির তার কথাগুলোর পুনরাবৃত্তি থেকে বিরত রয়েছেন।’

নয়াদিল্লির সঙ্গে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে মাহাথিরের সঙ্গে আলোচনার হয়েছে বলে জানান তিনি। আনোয়ার বলেন, পরস্পরের নীতির প্রতি সম্মত না হয়েও ভারত ও চীনের মতো দেশগুলোর সঙ্গে অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক বজায় রাখা সম্ভব।

মালয়েশিয়ার এই জনপ্রিয় রাজনীতিবিদ বলেন, মাহাথিরের চেয়ে সম্পূর্ণ ভিন্নভাবে কাশ্মীর ইস্যুতে আমি ভারতের সমালোচনা করতাম।

তেল বিষয়ক সংস্থা রিফিনিটিভের মতে, বছরখানেক আগে জানুয়ারিতে ভারত যেখানে মালয়েশীয় পাম অয়েল কিনেছিলেন ৪০ হাজার ৪০০ টন, এ বছর সেই একই সময়ে সেটা চল্লিশ শতাংশ কমে গেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ