রবিবার ২৩ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

নতুন রোগ ‘নোবেল করোনাভাইরাস’ ­

চীনসহ তাইওয়ান, ফিলিপাইন, থাইল্যান্ড, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও আমেরিকায় নতুন রোগ ‘নোবেল করোনাভাইরাস’ আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। গত বুধবার পর্যন্ত এ রোগে মারা গেছে চীনে ১৭ জন। আক্রান্ত আরও ৪৭৩ জন। এর ঝুঁকিতে রয়েছে আমাদের দেশ। জ্বর, সর্দি, কাশি, গলাব্যথা এর প্রধান উপসর্গ। সম্প্রতি চীনের হোবে প্রদেশের হুওয়ান শহরসহ আরও কয়েকটি প্রদেশে শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত এ রোগটি চিহ্নিত হয়েছে। সার্সের পর এটি ভয়াবহ রোগ বলা হচ্ছে।
বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা গত ১০ জানুয়ারি চীনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের জন্য নতুন এ রোগের প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে কী কী ব্যবস্থাগ্রহণ করা প্রয়োজন সে সম্পর্কে অন্তর্র্বর্তীকালীন গাইডলাইন প্রণয়ন করেছে। গাইডলাইনে কীভাবে অসুস্থ ব্যক্তিদের পর্যবেক্ষণ করতে হবে, নমুনা পরীক্ষা করা, রোগীর চিকিৎসা, স্বাস্থ্যকেন্দ্রসমূহে সংক্রমণ প্রতিরোধ, চিকিৎসাসামগ্রীর পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিতকরণ ও নতুন এ ভাইরাসটি সম্পর্কে জনসচেতনতার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। বাংলাদেশেও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ চীন থেকে সরাসরি ফ্লাইটে আসা যাত্রীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করে দিয়েছে।
বাণিজ্যসহ বিভিন্ন কারণে চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের নিয়মিত ফ্লাইটে যাত্রী যাতায়াত করেন। তাই নতুন ধরনের ভাইরাসজনিত রোগটি বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়বার আশঙ্কা থাকায় বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুসারে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়।
সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণাপ্রতিষ্ঠান আইইডিসিআর-এর সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. মাহমুদুর রহমান সম্প্রতি চীনের হুওয়ান শহরে দেখা দেয়া নতুন ধরনের রোগ ‘নোবেল করোনাভাইরাস’ এর সংক্রমণরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণের পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, চীন ও হংকংসহ বিভিন্ন দেশ থেকে ফ্লাইটে ঢাকা এয়ারপোর্টে  নিয়মিত যাত্রী আসা-যাওয়া করেন। তাই এ রোগে সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে। তিনি চীন ও হংকংসহ বিভিন্ন দেশ থেকে ফ্লাইটে আসা যাত্রীদের বিশেষ ধরনের স্বাস্থ্যকার্ড সরবরাহ করবার মাধ্যমে স্ক্রিনিং করা, শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত সমস্যাসহ নতুন এ রোগের উপসর্গ রয়েছে কি না, তা যাত্রীদের কাছ থেকে জানবার উদ্যোগ নিতে বলেন। সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল এবং ক্লিনিকের চিকিৎসকদের নতুন এ রোগটি সম্পর্কে অবহিত করতে হবে। পাশাপাশি জনগণের মাঝেও এ রোগ সম্পর্কে সচেতনতা তৈরি করতে হবে। স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, সংক্রমণ ব্যাধি নিয়ন্ত্রণ সিডিসি শাখার উদ্যোগে এ রোগটি সম্পর্কে গণমাধ্যমকে অবহিত করতে গত ২০ জানুয়ারি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরি ওরিয়েন্টেশনের আয়োজন করা হয়।
নতুন রোগ ‘নোবেল করোনাভাইরাস’ এক প্রকার নিউমোনিয়া। এর সংক্রমণের ধরনপ্রকৃতি এবং চিকিৎসা পদ্ধতি কিছুটা জটিল। এজন্য চিকিৎসাবিজ্ঞানী এবং রোগনিয়ন্ত্রণ বিশেষজ্ঞরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তবে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি ও সতর্ক থাকলে ততোটা শঙ্কিত হবার কোনও কারণ নেই। আশার কথা, বাংলাদেশে গত বুধবার পর্যন্ত নোবেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনও রোগী পাওয়া যায়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ