বুধবার ১৯ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

খুলনার অধিকাংশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিকেল অফিসার থাকলেও কনসালটেন্ট সঙ্কট

খুলনা অফিস : প্রতি মাসেই সিভিল সার্জনের দপ্তর থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে প্রতিবেদন পাঠিয়ে জনবলের চিত্র তুলে ধরা হয়। যার কপি দেয়া হয় খুলনার স্বাস্থ্য পরিচালক এবং মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর। কিন্তু সঙ্কট থেকেই যায়। বিশেষ করে খুলনা জেলার নয়টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিকেল অফিসার পর্যায়ের চিকিৎসকের অভাব না থাকলেও চরম সঙ্কট অবস্থা বিরাজ করছে কনসালটেন্ট পর্যায়ের চিকিৎসকদের।
দাকোপ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও প:প: কর্মকর্তা ডা. মো. মোজাম্মেল হক নিজামী জানান, হাসপাতালটি ৫০ শয্যার হলেও বর্তমানে রোগী থাকে ৮০জনের বেশি। গ্রীষ্ম মওসুমে রোগীর সংখ্যা একশ’ ছাড়িয়ে যায়। হাসপাতালটিতে ৩৯তম বিশেষ বিসিএস’র ডাক্তার পদায়ন করা হয়েছে আটজন। আগে থেকে সেখানে পদায়ন আছেন আটজন চিকিৎসক। এছাড়া আটটি ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পদায়নকৃত আটজন এবং পূর্বেও ইউনিয়ন পর্যায়ের নয়জন চিকিৎসকও ডিউটি করেন হাসপাতালে। জরুরি, আন্ত: ও বহি:বিভাগে নিয়মিত রোগী দেখছেন মেডিকেল অফিসার পর্যায়ের এসব চিকিৎসকরা। কিন্তু ৫০ শয্যার হাসপাতালের জন্য যেখানে ১০জন কনসালটেন্ট থাকার কথা সেখানে রয়েছেন মাত্র একজন গাইনী কনসালটেন্ট। বাকী কনসালটেন্ট, জুনিয়র কনসালটেন্ট ও জেনারেল সার্জারীর কাজ চালানো হয় মেডিকেল অফিসার পর্যায়ের চিকিৎসক দিয়ে। দাকোপের পাশাপাশি জেলার অন্য সব উপজেলা হাসপাতালের চিত্রও প্রায় একই।
ফুলতলা উপজেলা হাসপাতালে আটজন চিকিৎসক সঙ্কট থাকলেও নেই কোন নার্সের সঙ্কট। এ হাসপাতালে সর্বমোট ৩৫জন জনবল সঙ্কট রয়েছে বলেও উল্লেখ করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডা. শেখ মোহাম্মদ কামাল হোসেন।
তেরখাদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প:প: কর্মকর্তা, জুনিয়র কনসালটেন্ট, সার্জারী, জুনিয়র কনসালটেন্ট, মেডিসিন, জুনিয়র কনসালটেন্ট, এ্যানেসথেসিয়াসহ নয়জন জুনিয়র কনসালটেন্টের পদ শূন্য রয়েছে। গাইনী কনসালটেন্ট থাকলেও তিনি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সংযুক্তি রয়েছেন।
পাইকগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সার্জারী, গাইনী, মেডিসিন এবং এ্যানেসথেসিয়া বিভাগের জুনিয়র কনসালটেন্ট রয়েছেন পদের বিপরীতে কর্মরত। এমনকি পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন প্যাথলজিষ্ট ও এনেসথেটিষ্টও। ওই হাসপাতালটিতে বর্তমানে আটজন চিকিৎসকের পদ শুণ্য রয়েছে বলেও জানান উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডা. নীতিশ চন্দ্র গোলদার।
কয়রা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তাসহ ১০টি কনসালটেন্টের পদ শুণ্য রয়েছে। এছাড়া সহকারী সার্জন ও মেডিকেল অফিসারের পদও শুণ্য রয়েছে বলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তার কার্যালয়ের এক প্রতিবেদনে দেখা যায়।
বটিয়াঘাটায় অন্য কোন ডাক্তারের পদ শূন্য না থাকলেও ছয়টি কনসালটেন্ট পদ শুণ্য রয়েছে বলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডা. অপর্ণা বিশ্বাস জানান।
গাইনী, সার্জারী, মেডিসিনসহ নয়টি কনসালটেন্টের পদ শূন্য থাকার পাশাপাশি আবাসিক মেডিকেল অফিসারের পদটিও শূন্য রয়েছে বটিয়াঘাটায়। এমনকি ইউনিয়ন পর্যায়ের সহকারী সার্জন পদটিও রয়েছে শুণ্য।
৫০ শয্যার হাসপাতাল হিসাবে ১০টি কনসালটেন্ট পদ থাকলেও একজনও বর্তমানে কর্মরত নেই রূপসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এ অবস্থায় স্বাস্থসেবা ব্যাহত হচ্ছে বলে উল্লেখ করেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডা. এসএম তারেক উর রহমান।
দিঘলিয়ার একটি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের একজন চিকিৎসক ২০১৫ সাল থেকে অননুমোদিত অনুপস্থিত থাকলেও সে ব্যাপারেও প্রতিমাসে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। কিন্তু এ ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেন না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। ওই উপজেলা হাসপাতালে পাঁচজন মেডিকেল অফিসার রয়েছেন আরএমও, ইনডোর মেডিকেল অফিসার, ইমার্জেন্সী মেডিকেল অফিসার, প্যাথলজিষ্ট ও এনেসথেটিষ্ট পদের বিপরীতে।
ডুমুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে শিশু ছাড়া অন্য কোন বিভাগের কনসালটেন্ট পদে কোন ডাক্তার নেই। এ হাসপাতালে মোট ১২জন চিকিৎসকের পদ শূন্য রয়েছে বলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মরতা ডা. শেখ সফিয়ান রুস্তুম জানিয়েছেন।
উপজেলা হাসপাতালগুলোতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সঙ্কট প্রসঙ্গে খুলনার সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ বলেন, প্রতিটি হাসপাতালেই কনসালটেন্ট পদের বিপরীতে চিকিৎসক পদায়ন ছিল। কিন্তু পদোন্নতি পেয়ে তারা চলে গেছেন। এখন জুনিয়র চিকিৎসক থেকে পদোন্নতি না হওয়া পর্যন্ত এসব পদ পূরণ করা সম্ভব নয়।
এ ব্যাপারে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সভাপতি শেখ মোশাররফ হোসেন বলেন, জুনিয়র ডাক্তাররা আপাতত: স্ব স্ব এলাকায় থাকলেও পদোন্নতি পেয়েই যে আবার অন্যত্র চলে যাবেন না তার নিশ্চয়তা নেই। এজন্য পদোন্নতি পাওয়ার পরও যাতে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের বদলী না করা হয় সেটি নিশ্চিত করা জরুরি বলেও তিনি মনে করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ