বুধবার ২৫ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

কর্তব্যরত অবস্থায় হতাহত পুলিশ সদস্যের পরিবারকে ডিএমপির আর্থিক অনুদান

স্টাফ রিপোর্টার: কর্তব্যরত অবস্থায় আহত এবং নিহত পুলিশ সদস্যের পরিবারকে আর্থিক অনুদান দিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম। গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপির সদরদফতরে এ অনুদান দেন তিনি।
জানা গেছে, সকাল ১০টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর অনুদান থেকে কর্তব্যরত অবস্থায় নিহত ও গুরুতর আহত ৮ পুলিশ সদস্যের পরিবারকে ২৪ লাখ টাকা এবং ডিএমপির কল্যাণ তহবিল থেকে আহত ১৩৫ পুলিশ সদস্যকে চিকিৎসা ব্যয় বহনের জন্য ৩৩ লাখ ২০ হাজার টাকা আর্থিক অনুদান দেন ডিএমপি কমিশনার।
অনুদানপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যের উদ্দেশে ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম বলেন, চিকিৎসা সহায়তা নিতে আসা পুলিশ সদস্যদের মধ্যে বেশির ভাগই সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে এখানে এসেছেন। আপনার সামান্য ভুলের কারণে পরিবার কোথায় যাবে এই কথাটি মাথায় রেখে একটু সতর্ক হয়ে চলতে হবে। নিজে সতর্ক হয়ে বুঝেশুনে রাস্তা পারাপার হলে দুর্ঘটনা অনেকাংশে কমে যাবে। ডিএমপির কল্যাণ তহবিল থেকে প্রতিবছর আমরা প্রায় দেড় কোটি টাকা অনুদান দিয়ে থাকি।
এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কল্যাণ তহবিল থেকে কর্তব্যরত অবস্থায় নিহত ও আহত পুলিশ সদস্যদের অনুদান দেয়া হয়। নিহত পুলিশ সদস্যদের পরিবারের উদ্দেশে ডিএমপি কমিশনার বলেন, আমরা আমাদের সদস্যদের প্রয়োজনে পাশে থাকার চেষ্টা করি। আপনার স্বামী বা সন্তান নিহত হয়েছে বলে মনে করবেন না আপনাদের পাশে কেউ নেই। আমরা আপনাদের যেকোনো প্রয়োজনে পাশে আছি। এ সময় ডিএমপির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
ডাকাত দলের চার সদস্য আটক: এদিকে রাজধানীর সবুজবাগ থানা এলাকা থেকে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের চার সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৩)। সোমবার মধ্যরাতে সবুজবাগের উত্তর বাসাবো নাভানা সিলভার ডেল গেটের সামনে থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। র‌্যাব-৩ এর স্টাফ অফিসার (অপারেশন) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ বি এম ফায়জুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
আটক ডাকাত দলের সদস্যরা হলো- শরীয়তপুরের মো. রুবেল সিকদার (২৫), নারায়ণগঞ্জের মো. অনিক (২৯), কামাল হোসেন (২০) ও কুমিল্লার মো. স্বপন (২৫)। এসময় তাদের কাছ থেকে দুটি চাপাতি, দুটি চাকু ও পাঁচটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ বি এম ফায়জুল জানান, রাস্তা চলাচলকারী জনসাধারণকে বিভিন্নভাবে অস্ত্রের ভয়ভীতি দেখিয়ে ও জখম করে টাকা-পয়সা, স্বর্ণালংকারসহ মূল্যবান জিনিসপত্র ডাকাতি করে আসছিল তারা। আটকরা ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় দীর্ঘদিন যাবৎ ডাকাতি কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
বাসের ধাক্কায় নারী নিহত: অন্যদিকে ঢাকারাজধানীর শনির আখড়ায় বাসের ধাক্কায় নূরজাহান বেগম (৬৫)নামের এক নারী নিহত হয়েছেন। সোমবার রাত সোয়া ৮টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে তিনি মারা যান। ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া জানান, লাশের ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে পাঠানো হয়েছে। স্থানীয়রা বাসটি আটক করেছে। নিহতের ছেলে মো. শহীদ জানান, তার বোন বেলা বেগম রায়েরবাগে থাকেন। তার মা সন্ধ্যায় স্বামীবাগের বাসা থেকে ওই বাসায় বেড়াতে যাচ্ছিলেন। পথে শনির আখড়ায় মোল্লা কলেজের সামনে বাসের ধাক্কায় গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা খবর দিলে সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নেওয়া হয়। পরে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নূরজাহান বেগম গেন্ডারিয়ার মৃত শামসুউদ্দিনের স্ত্রী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ