মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

৫ কোটি টাকা ব্যয়ে জলবায়ু সহিষ্ণু গৃহ নির্মাণ প্রকল্পের উদ্যোগ খুলনা জেলা পরিষদের

 

খুলনা অফিস : হতদরিদ্র গৃহহীন মানুষের জন্য ‘জলবায়ু সহিষ্ণু গৃহ নির্মাণ’-এর প্রকল্প নিচ্ছে খুলনা জেলা পরিষদ। যার প্রাথমিক ব্যয় নির্ধারণ হয়েছে ৫ কোটি টাকা। চলতি বছরের ১০ নবেম্বর ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবল’-এর কারণে উপকূলবর্তী এলাকাসহ সুন্দরবন সংলগ্ন কয়রা, পাইকগাছা, দাকোপ, বটিয়াঘাটা, ও রূপসা উপজেলায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এসব এলাকার নিম্ন আয়ের অনেক মানুষ অদ্যাবধি গৃহ নির্মাণ করতে পারেনি। এ কারণেই প্রকল্পটি গ্রহণ করেছে জেলা পরিষদ।

খুলনা জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসনের তথ্যমতে, বুলবুলের কারণে খুলনা জেলার ৫টি উপজেলা থেকে প্রায় ২ লাখ ৯৭ হাজার ৫শ’ পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এছাড়া ৩৭ হাজার ৮২০টি ঘরবাড়ি আংশিক এবং ৯ হাজার ৪৫৫টি সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের সূত্র মতে, ২৫ হেক্টর জমির আমন ফসল পানির নিচে ছিল। এছাড়া সাড়ে ৮শ’ হেক্টর জমির সবজি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বুলবুলের পরপরই ত্রাণ পুনর্বাসন থেকে সহযোগিতাও করা হয়েছিল।  সম্প্রতি খুলনা জেলা পরিষদের সভায় জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ফান্ডের অর্থায়নে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে খুলনা জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত হতদরিদ্র গৃহহীনদের পুনর্বাসনে আশ্রয়স্থল হিসেবে গৃহ নির্মাণ ও সুপেয় পানি সংরক্ষণ প্রকল্প গ্রহণ সংক্রান্ত আলোচনা হয়েছে। খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদের সভাপতিত্বে এবং করেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আছাদুজ্জামানের সঞ্চালনায় পরিষদের একাধিক সদস্য উপস্থিত ছিলেন। সভায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে জেলার উপকূলীয় অঞ্চলের হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীকে জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে অভিযোজিত করাসহ সেটা মোকাবেলা করার সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা যুগোপযোগী বলে একমত পোষণ করা হয়। যার ফলশ্রুতিতে চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সহায়তায় ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’-এর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত জেলার হতদরিদ্র গৃহহীনদের তালিকা প্রস্তুত পূর্বক প্রাথমিকভাবে ৫ কোটি টাকার প্রকল্পটি সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদিত হয়। 

খুলনা জেলা পরিষদ সূত্র জানায়, বুলবুল ঘূর্ণিঝড়ের কারণে উপকূলবর্তী এলাকার ক্ষতিগ্রস্তদের একটি তালিকা করা হবে পরিষদের পক্ষ থেকে। পরিষদ সদস্যরা এই তালিকা প্রস্তুতে সহযোগিতা করবেন। প্রায় ৫ কোটি টাকার ‘জলবায়ু সহিষ্ণু গৃহ নির্মাণ’ উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় করা হবে। প্রাথমিকভাবে পরিকল্পনা রয়েছে, যাদের জমি আছে কিন্তু ঘর নেই তাদেরকেই পরিষদের পক্ষ থেকে জলবায়ু সহিষ্ণু গৃহ নির্মাণ করে দেওয়া হবে। প্রত্যেক ঘরের ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। ঘরটি নির্মাণ হবে ২২৪ স্কয়ার ফুট। সাথে থাকবে ৫ ফুটের বারান্দা। দু’তলা ফাউন্ডেশনের ঘরটিতে ঢালাইয়ের ছাদ হবে। যার ফলে পরবর্তীতে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় এটি মিনি সাইক্লোন শেল্টার হিসেবে ব্যবহার করা যায়। 

খুলনা জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আছাদুজ্জামান বলেন, উপকূল এলাকার জন্য এমন প্রকল্প খুবই দরকার। সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ যদি এই প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন ও অর্থ বরাদ্দ করে তবে জেলা পরিষদের উদ্যোগে সেটা বাস্তবায়ন করবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ