শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

রাজশাহীতে টিসিবির পেঁয়াজ কিনতে অভিনব কাণ্ড ক্রেতাদের

রাজশাহী : টিসিবি’র পেঁয়াজ কিনতে লাইন দেয়া মানুষের জায়গা দখলের চিহ্ন। গতকাল শনিবার রাজশাহীর দৃশ্য -সংগ্রাম

রাজশাহী অফিস: সারা দেশের ন্যায় রাজশাহীতেও খোলা বাজারে ন্যায্য মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি হয় গত রোববার থেকে। একজন কেজি প্রতি ৪৫ টাকা দরে পেঁয়াজ সংগ্রহ করছিলেন নগরবাসী। প্রায় প্রতিদিনই পেঁয়াজ সংগ্রহ করতে অসংখ্য মানুষের ঢল নামে। আর অপেক্ষায় থাকতে হয় সাধারণ মানুষদের। আজ দীর্ঘদিনের অপেক্ষার শুরুটাই যেন পণ্ড হয়ে গেছে।
রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের রাজশাহীতে আগমন উপলক্ষে টিসিবি কর্তৃক পেঁয়াজ বিক্রি সাময়িক স্থগিত করা হয়। বিষয়টি জানতেন না ক্রেতারা। যার কারণে শনিবার থেকেই পেঁয়াজের জন্য লম্বা লাইন দেখা যায়। তবে সেখানে ছিল না ক্রেতা। ছিল ক্রেতাদের ব্যবহার্য পানির বোতল, বাজারের বস্তা, ইট, মিষ্টির প্যাকেটসহ আরোও কিছু। যে যেভাবে পারে নিজেদের অবস্থানের চিহ্ন দিয়ে রাখে। ঠিক যেন ছোটবেলার স্কুলের বেঞ্চের জায়গা দখলের মতো। আগে আসলে আগে পাবেন এমন সূত্র হয়তো টিসিবি দেয়নি। তবে এই দৃশ্য দেখে পেঁয়াজের জন্য সাধারণ মানুষের যে ভোগান্তি তা ভালভাবেই উপলব্ধি করা যায়। রাজশাহীর বিভিন্ন বাজার পরিদর্শন করে দেখা যায়, বাজারে বর্তমানে প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২১০ থেকে ২৫০ টাকায়। পেঁয়াজের বাজারের এমন অবস্থা দেখে হিমশিম খেতে হচ্ছে সাধারণ মানুষদের। কখনও বাজার মনিটরিংয়ের জন্য ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হলে তা সোজা নেমে আসে ১৮০ টাকায়। কিন্তু তাও ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যায় নিম্ন আয়ের মানুষদের জন্য। বাধ্য হয়ে খোলা বাজারে বিদেশী পেঁয়াজ সংগ্রহ করতে ছুটে আসেন তারা। শনিবার সকালে নগরীর সাহেববাজার জিরো পয়েন্ট এলাকায় পেঁয়াজ কিনতে লাইনে নিজের বস্তাটি রাখেন আলী আমিন। ফুদকি পাড়া এলাকা থেকে পেঁয়াজ কিনতে আসেন তিনি। তবে টিসিবি’র ট্রাক আসেনি বলে লাইনে বস্তা রেখে পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন তিনি। তিনি বলেন, পেঁয়াজের দাম কমানোর মানুষগুলো তাদের প্রতিশ্রুতিতেই সীমাবদ্ধ থাকেন। ভোগান্তি হয় সাধারণ জনগণের। তারা জনগণের কষ্ট বুঝতে পারলে এতোদিন হতাশায় আমাদের রাখতে পারতো না। ক্ষোভ জানান লাইনে দাঁড়ানো অনেকেই। কেউ এই লাইনের ছবি আবার মুঠোফোনে ধারণ করে সামাজিক মাধ্যমগুলোতেও ছড়িয়ে দিচ্ছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ