বুধবার ৩০ নবেম্বর ২০২২
Online Edition

গুইমারায় সড়ক উন্নয়নে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

গুইমারা সংবাদদাতা : গুইমারা উপজেলায় সড়ক উন্নয়ন কাজে অনিয়মের চিত্র ধরা পড়ে। গুইমারার-মুসলিমপাড়া হয়ে মনিপাড়া সড়কের ইট সলিং ও ড্রেনের কাজে এ অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠে। প্রায় অর্ধ কোটি টাকারও অধিক টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন এ সড়কটির কাজে অনিয়মের বিষয়ে সরেজমিন তদন্ত করলেই বেরিয়ে আসবে আসল চিত্র। এলাকাবাসী অভিযোগ, ব্যাপক অনিয়মের মাধ্যমে মুসলিমপাড়া হয়ে মনিপাড়া থেকে পরশুরামঘাট যাওয়ার রাস্তাটি ইট সলিং ও ড্রেন নির্মাণ কাজ চলছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নামে মাত্র কাজ করে সড়ক উন্নয়নে নয়-ছয় করে ব্যবহার অনুপযোগী ইট ও কাঁদাযুক্ত বালু দিয়ে কাজ করায় এ সড়ক সাধারণ মানুষের কোন উপকারেই আসবেনা। বরং পানিতে যাবে সরকারের এ মোটা অঙ্কের অর্থ বরাদ্দ।
জানা যায়, পাবর্ত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড অর্থায়নের এই সড়ক নির্মাণ কাজের জায়গায় রাস্তার দুই পাশে ইটের সলিং করতে প্রায় অর্ধ কোটি টাকা অধিক ব্যয়ে দরপত্র আহবান করা হয়। এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, ইটভাটা থেকে নিম্নমানের ইট ব্যবহার করা হচ্ছে সড়ক উন্নয়নের কাজে।
পাকা সড়কের দুই পাশে ১ নাম্বার ইট বিছানোর কথা থাকলেও নি¤œমানের  ইট বসানো হচ্ছে। দুই স্তরের ইট বসানোর পরে সেখানে খাটি বালু দেয়ার নিয়ম থাকলেও ব্যবহার করা হচ্ছে ধুলা মিশ্রিত ভীট বালু। এতে প্রতিটি ইটের মাঝে অন্তত ২ ইঞ্চি ফাঁকা রেখে তা সাথে সাথে মাটি দিয়ে ঢেকে ফেলা হচ্ছে। এমনিভাবে নানা অনিয়মের মধ্য দিয়ে দ্রুত শেষ করা হচ্ছে এই সড়ক উন্নয়নের কাজ।
এ প্রতিনিধি ঠিকাদার মো: সেলিম এর সাথে মুঠোফোনে কাজের অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নি¤œমানের ইটগুলো সরিয়ে নেওয়া হবে। সে সাথে কাজে নির্মাণের ব্যবহৃত ইটগুলো কি করবেন সে বিষয়ে জানতে চাইলে তার কোন সৎ উত্তর না দিয়ে  মুঠোফোন রেখে দেন তিনি। সড়ক উন্নয়নে কাজের বিষয়ে গুইমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) তুষার আহমদ’কে জানান তিনি  ঘটনাস্থালে পরিদর্শ করেছেন। উক্ত এলাকার পাহাড়ি বাঙ্গালি সকল সম্প্রদায়ের যোগাযোগের সুবিধার্থে উন্নয়নের কাজে প্রকল্প দিলেও কাজটি সম্পূর্ণ হওয়ার আগে সলিং এর কাজে ইটগুলো নিচে দেবে ও ভেঙে যাচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ