শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

ট্রেন দুর্ঘটনা রোধে করণীয়

আমাদের দেশের সাধারণ মানুষের কাছে ট্রেনযাত্রা খুবই শান্তিপূর্ণ ও আরামদায়ক মাধ্যম হিসেবে পরিচিত। সড়কপথে যেখানে বাসে করে বিভিন্ন স্থানে যাত্রা করতে যেখানে ঝুঁকির মোকাবেলা করতে হয় আবার কখনো সড়কপথে বিভিন্ন দূর্ঘটনায় শত শত মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে । সেখানে রেলপথে যাত্রাকে আরামদায়ক মনে করাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু দু:খজনক হলেও সত্য যে সড়ক পথে বাস দূর্ঘটনার সাথেও অতীতে অনেকবার ট্রেন দূর্ঘটনার মত ঘটনা এদেশে কয়েকবার সংঘটিত হয়েছে। এদেশে ট্রেন দূর্ঘটনা তুলনামূলকভাবে কমই হয়েছে।
সম্প্রতি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রেন দূর্ঘটনায় ৫৬ জন মানুষের প্রাণহানি এবং তার রেশ কাটতে না কাটতেই সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ট্রেনের তেলের ট্যাঙ্কে বিষ্ফোরণে কয়েকশত মানুষের আহত হওয়ার ঘটনা নতুন কিছু নয়। যেই ট্রেনযাত্রাকে মানুষ আরামদায়ক আর শান্তিপূর্ণ মনে করতো যেই ট্রেনে শত শত মানুষ যাওয়া আসা করে সেই ট্রেনযাত্রা যে ঝুঁকি আর বিপদজনক হয়ে উঠেছে তা কী বলার কোনো অপেক্ষা রাখে? রাখে না। আমাদের দেশে প্রতিনিয়ত সড়ক পথে, নৌপথে, রেল পথে আর বিমান যাত্রায় দূর্ঘটনা ঘটে থাকে। এসব দূর্ঘটনার জন্য অনেকেই সরকারকে দোষারোপ করে থাকে। কিন্তু এসব দূর্ঘটনা রোধে কেউ স্থায়ী সমাধান করতে পারছে না। সত্য হচ্ছে চালকদের অদক্ষতা আর প্রশিক্ষণের অভাবের কারণেই বারবার ট্রেন,বাস ও নৌপথে দূর্ঘটনা সংঘটিত হয়ে থাকে। তাই চালকরা যাতে প্রশিক্ষিত ও দক্ষ হয় তার ব্যবস্থা সরকারকেই করতে হবে। সরকার যদি নিজ উদ্যোগে চালকদের সুশৃঙ্খলভাবে সুশিক্ষিত, দক্ষ আর প্রশিক্ষিত করে তুলতে পারে তাহলে শুধু ট্রেন দূর্ঘটনাই নয় যেকোনো দূর্ঘটনা রোধ করা সহজ হবে। আর দূর্ঘটনা বন্ধ করতে পারলে কোটি কোটি মানুষের জীবনও রক্ষা পাবে।
-মোহাম্মদ ইয়ামিন খান

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ