বুধবার ৩০ নবেম্বর ২০২২
Online Edition

ঊর্ধ্বমুখী বাজারেও ৪০০ কোটি টাকা মূলধন হারাল ডিএসই

স্টাফ রিপোর্টার: পতনের ধারা কাটিয়ে গত সপ্তাহে কিছুটা হলেও ঊর্ধ্বমুখী ছিল শেয়ারবাজার। সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে চার কার্যদিবসেই বেড়েছে মূল্যসূচক। এরপরও সপ্তাহজুড়ে প্রায় ৪০০ কোটি টাকা বাজার মূলধন হারিয়েছে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)।
বাজার মূলধন হারালেও সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশি সংখ্যক কোম্পানির শেয়ারের দাম বেড়েছে। তবে বড় মূলধনের কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে। যে কারণে কমছে বাজার মূলধন। অবশ্য সপ্তাহজুড়ে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। এতে ডিএসইর গড় লেনদেনের পরিমাণ ৩০০ কোটি টাকার ঘর ছাড়িয়ে প্রায় ৫০০ কোটিতে পৌঁছেছে।
গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ১৮০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৫৬টির। আর ১৯টির দাম অপরিবর্তিত। বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার পরও সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৭০৩ কোটি টাকা। যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৮১ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে ৩৭৮ কোটি টাকা।
এদিকে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ২৪ দশমিক ৭৭ পয়েন্ট বা দশমিক ৫৩ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি কমে ৩ দশমিক ৭০ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ।
প্রধান মূল্যসূচকের পাশাপাশি বেড়েছে ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক। এ সূচকটি বেড়েছে দশমিক ৩৯ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে দশমিক ৮৫ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। আর ডিএসই-৩০ আগের সপ্তাহের তুলনায় কমেছে ২ দশমিক ৯২ পয়েন্ট বা দশমিক ১৮ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ১২ দশমিক ৩৯ পয়েন্ট বা দশমিক ৭৬ শতাংশ।
এদিকে ডিএসইতে লেনদেনের গতি বেড়েছে। দৈনিক গড় লেনদেনের পরিমাণ ৩০০ কোটি টাকার ঘর অতিক্রম করে সাড়ে ৪০০ ছাড়িয়েছে। গত সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৪৭৫ কোটি ২১ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ৩৯৬ কোটি ২৯ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন বেড়েছে ৭৮ কোটি ৯২ লাখ টাকা বা ১৯ দশমিক ৯১ শতাংশ। আর গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২ হাজার ৩৭৬ কোটি ৬ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় ১ হাজার ৯৮১ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। সে হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৩৯৪ কোটি ৫৭ লাখ টাকা বা ১৯ দশমিক ৯১ শতাংশ।
গত সপ্তাহের মোট লেনদেনের মধ্যে ‘এ’ গ্রুপের প্রতিষ্ঠানের অবদান দাঁড়িয়েছে ৮০ দশমিক ৮৪ শতাংশ। এছাড়া ডিএসইর মোট লেনদেনে ‘বি’ গ্রুপের অবদান ১১ দশমিক ৩৩ শতাংশ। ‘জেড’ গ্রুপের প্রতিষ্ঠানের অবদান ১ দশমিক ৭০ শতাংশ এবং ‘এন’ গ্রুপের অবদান ৬ দশমিক ১৪ শতাংশ।
গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশর শেয়ার। কোম্পানিটির ৫৫ কোটি ৭৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা সপ্তাহজুড়ে হওয়া মোট লেনদেনের ২ দশমিক ৩৫ শতাংশ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৫৩ কোটি টাকার, যা সপ্তাহের মোট লেনদেনের ২ দশমিক ২৩ শতাংশ। ৪৮ কোটি ৫১ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল। লেনদেনে এরপর রয়েছে- ফরচুন সুজ, ন্যাশনাল টিউবস, বিকন ফার্মাসিউটিক্যাল, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, কাট্টালী টেক্সটাইল, বিবিএস কেবলস এবং গ্রামীণফোন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ