মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

মুসলমানদের মধ্যে বিভাজনকে দুঃখজনক বললেন এরদোগান

২৯ নবেম্বর, বিবিসি, ডেইলি সাবাহ : মুসলিম বিশ্বে বিভিন্ন দল-উপদলের ওপর ভিত্তি করে বিভাজনকে দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেছেন তুর্কিশ প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগান।

দেশটির দ্য প্রেসিডেন্সি অব রিলিজিয়াস অ্যাফেয়ার্সের (ডিআইবি) সম্মেলনে তিনি মুসলমানদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

রাজধানী আংকারায় বৃহস্পতিবার এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে ডেইলি সাবাহর খবরে জানা গেছে। পশ্চিমাদের কাছে প্রশ্নের জবাব চাওয়ায় তিনি মুসলিম বিশ্বের সমালোচনাও করেছেন।

জাতিগত, ভাষা, সম্প্রদায় ও অস্থির পরিস্থিতির কারণে মুসলমানদের এই বিভাজন আরও ব্যাপক রূপ নিয়েছে বলে মন্তব্য করেন এরদোগান।

তিনি বলেন, খোলাফায়ে রাশেদার মধ্যে কোনো ফারাক দেখে না তুর্কি জাতি। কেউ কেউ শিয়া ও সুন্নিকে আলাদা ধর্ম হিসেবে বিবেচনা করছেন।

সাম্প্রদায়িক ও স্বার্থপর মনোভাবের কারণে মুসলমান বিশ্ব ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কোনো পথ খুঁজে পায় না জানিয়ে তিনি আরও বলেন, উম্মাহর স্বার্থ বাদ দিয়ে নিজের স্বার্থকে সবার আগে দেখলে মুসলমানদের কিছুই দেয়া সম্ভব হবে না।

তুরস্কের এই নেতা বলেন, দুর্ভাগ্য হলেও সত্য যে মুসলমানরা ঐক্যবদ্ধ হওয়ার স্বাভাবিক প্ল্যাটফর্ম হারিয়ে ফেলেছেন। তারা একসঙ্গে ব্যবসা কিংবা সমস্যার সমাধান করতে পারছেন না।

এছাড়া জেরুজালেম, ফিলিস্তিন, ইসলামবিদ্বেষ, সন্ত্রাসবাদবিরোধিতা, ন্যায়বিচার ও মানবাধিকারের ক্ষেত্রে তাদের ঐকমত্যের অভাব রয়েছে বলে জানান এরদোগান।

ম্যাক্রোঁর বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদে মদত দেওয়ার অভিযোগ তুরস্কের : ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর তীব্র সমালোচনা করে তাকে সন্ত্রাসবাদের পৃষ্ঠপোষক বলে আখ্যা দিয়েছেন তুর্কী পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুট ক্যাভুসোগলু। সিরিয়ায় তুর্কী অভিযানের সমালোচনা করায় ম্যাক্রোঁর বিষয়ে গত বৃহস্পতিবার এমন মন্তব্য করেন তিনি।

২০১৯ সালের ৯ অক্টোবর তুরস্কের সীমান্তবর্তী সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় এলাকা থেকে সিরিয়ার কুর্দি বিদ্রোহীদের উৎখাতে অভিযান শুরু করে তুরস্ক। কুর্দিস পিপলস প্রোটেকশন ইউনিটস (ওয়াইপিজি) ও ইসলামিক স্টেটকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে বিবেচনা করে তুরস্ক। এ কারণে তাদের বিরুদ্ধে অভিযান চালায় তারা। এ অভিযানের মাধ্যমে অঞ্চলটি থেকে আইএস জঙ্গি ও কুর্দি বিদ্রোহীদের বিতাড়িত করে সেখানে একটি সেফ জোন প্রতিষ্ঠা করতে আগ্রহী আঙ্কারা। এ সেফ জোনে দীর্ঘদিন ধরে তুরস্কে বসবাসরত সিরীয় শরণার্থীদের বসবাসের ব্যবস্থা করতে চায় আঙ্কারা। তবে কুর্দিরা আবার মধ্যপ্রাচ্যে আইএস বিরোধী অভিযানে যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগী হিসেবে কাজ করেছে। আইএস বিরোধী অভিযানে তাদেরকে মিত্র মনে করে ন্যাটো।

বৃহস্পতিবার ম্যাক্রোঁ সিরিয়ার ওই চলমান অভিযানের সমালোচনা করেছেন। তিনি বলেছেন, আইএস বিরোধী কার্যক্রমকে বিপন্ন করে এমন গোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করছে আঙ্কারা। ওয়াইপিজির বিরুদ্ধে অভিযানের মাধ্যমে মূলত আইএসবিরোধী যুদ্ধের মিত্রদের দুর্বল করা হচ্ছে।

এরপরই ম্যাক্রোঁর বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে তুরস্ক। মেভলুট অভিযোগ করেন, সিরিয়ায় কুর্দি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে চায় প্যারিস। তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে তিনি (ম্যাক্রোঁ)সন্ত্রাসী সংগঠনের পৃষ্ঠপোষক হয়েছেন। যদি তিনি বলেন, তার মিত্র সন্ত্রাসী সংগঠন, তাহলে আমাদের কিছুই বলার নেই।’ তিনি আরও বলেন, ‘এখন ইউরোপে একটি নেতৃত্বশূন্যতা তৈরি হয়েছে। তিনি এটার নেতা হতে চেষ্টা করছেন। তবে নেতৃত্ব স্বাভাবিক নিয়মেই আসে।’

১৯৮০ সাল থেকে তুরস্কের ভূখ-ে একটি স্বতন্ত্র রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার দাবিতে লড়াই চালিয়ে আসছে কুর্দিপন্থী বিদ্রোহীরা। যুক্তরাষ্ট্র-সমর্থিত এ কুর্দি বিদ্রোহীদের সন্ত্রাসী হিসেবে বিবেচনা করে আঙ্কারা। তাদেরকে তুরস্কের অখ-তার প্রতি হুমকি হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ