সোমবার ০৩ আগস্ট ২০২০
Online Edition

প্রিম্যাচিওরিটি ডে উপলক্ষে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গোলটেবিল বৈঠক

রংপুর অফিস: ওয়ার্ল্ড প্রিম্যাচিওরিটি ডে উপলক্ষে গত সোমবার  রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মিলনায়তনে এক গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।  ইউনিসেফএর সহযোগিতায় এবং রমেক পরিচালক ডাক্তার মোহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে প্রধান অতিথি ছিলেন রংপুরের বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডাক্তার মোস্তোফা খালেদ আহমেদ, বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউনিসেফ রংপুরের ফিল্ড অফিসের প্রধান নাজিবুল্লাহ হামীম। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রংপুরের সিভিল সার্জন ডাক্তার হিরম্বর কুমার রায়, রংপুরের পরিবার পরিকল্পনা বিভাগীয় পরিচালক ডাক্তার দেলোয়ার হোসেন, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার কামরুজ্জামান ইবনে তাজ, রংপুর মেডিক্যাল কলেজের শিশু বিভাগীয় প্রধান ডাক্তার বিকাশ মজুমদার, প্রাইম মেডিক্যাল কলেজের শিশু বিভাগীয় প্রধান ডাক্তার চঞ্চল  মন্ডল প্রমূখ।

সভায় উল্লেখ করা হয়, প্রতিবছর প্রায় দেড় কোটি শিশু ৩৭ সপ্তাহের আগেই অপরিপক্ব অবস্থায় জন্ম নেয়। এর মধ্যে ১০ লক্ষ শিশু এ সংক্রান্ত জটিলতায় মারা যায়। বাংলাদেশে প্রতি বছর ৬ লাখের বেশি শিশু (মোট শিশু জন্মের ১৯ শতাংশ) ৩৭ সপ্তাহের আগেই অপরিপক ¡অবস্থায় জন্ম নেয়। এর মধ্যে ২৩ হাজারের বেশী শিশু  এ সংক্রান্ত জটিলতায় ৫ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই মারা যায়। নবজাতক শিশু মৃত্যুর ৩১ শতাংশ কেবলমাত্র নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্ম সংক্রান্ত জটিলতায় হয়ে থাকে। কম বয়সে গর্ভাবস্থা, ইনফেকশন, ডায়বেটিস এবং উচ্চ রক্তচাপকে  ৩৭ সপ্তাহের আগে অপরিপক্ব অবস্থায় জন্ম নেয়ার কারন হিসেবে সভায় উল্লেখ করা হয়। অনুষ্ঠানে উন্নত মানের প্রসব পূর্ববর্তী সেবা, পুষ্টি , গর্ভাবস্থায় ইনফেকশন শনাক্তকরণ ও চিকিৎসা নিশ্চিত করা, ডায়বেটিস এবং  উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন, পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি গ্রহণ এবং জন্ম পরবর্তী নবজাতক ও মাতৃসেবা নিশ্চিত করার মাধ্যমে অপরিপক্ব অবস্থায় শিশু জন্ম নেয়ার প্রতিকার ও চিকিৎসার ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়।  অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান কারীদের সক্ষমতা বাড়ানো, জনগণের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি, মাদার কেয়ার কর্মসূচী বিভাগীয় শহরের বাইরে ছড়িয়ে দেয়া এবং নবজাতকের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের সংখ্যা ও গুণগত মান নিশ্চিত করার ওপর  গুরুত্ব আরোপ করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ