বৃহস্পতিবার ০১ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

রাবি ছাত্রকে ছাত্রলীগের মারপিট ॥ প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ

রাবি রিপোর্টার : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক শিক্ষার্থীকে বেধড়ক পেটানোর অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের দুই কর্মীর বিরুদ্ধে। এর প্রতিবাদে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থীরা।
আহত সোহরাব হোসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও শামসুজ্জোহা হলের আবাসিক ছাত্র। সোহরাবের মাথা ও হাতে গুরুতর জখম হয়েছে। বর্তমানে তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের আট নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত দুই ছাত্রলীগ কর্মী হলো- ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী আসিফ লাক ও বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী হুমায়ুন কবির নাহিদ। তারা দুজনই বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী এবং শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার অনুসারী। হল ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে আসিফ লাকের নেতৃত্বে কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী সোহরাবকে ল্যাপটপ চুরির অভিযোগে হলের তৃতীয় ব্লকের ২৫৪ নম্বর কক্ষে নিয়ে যায়। সেখানে তার পরিচয়পত্র দেখতে চাওয়া হয় এবং একই সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন আসিফ লাক ও হুমায়ুন কবির নাহিদ। ভুক্তভোগী সোহরাব জানান, তারা তাকে ডেকে নিয়ে রুম বন্ধ করে দেয় এবং প্রথমেই ‘তোর কি সমস্যা’ বলে রড দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করা শুরু করে নাহিদ। একই সঙ্গে কাঠ দিয়ে তার মাথায় উপর্যুপরি আঘাত করতে থাকে আসিফ লাক। এতে তার মাথা ফেটে রক্ত ঝরতে শুরু করলে তিনি চিৎকার করে কাঁদতে থাকেন এবং তাকে না মারার জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু তারা বলে- চিৎকার করলে তাকে মেরে ফেলা হবে। ঘটনার পরে সোহরাবের বন্ধুরা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে ও পরে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করেন।
এই ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল শনিবার বেলা ১১টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে তিন দফা দাবি জানান শিক্ষার্থীরা। তাদের দাবিগুলো হলো- অনতিবিলম্বে হামলাকারী ছাত্রলীগ কর্মীদের গ্রেফতার ও স্থায়ীভাবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার, নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থ হওয়ায় হল প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগ, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে গুরুতর আহত শিক্ষার্থীর চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন। পরে ফিনান্স বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক আবু সাদেক মো. কামরুজ্জামানের আশ্বাসে সাময়িকভাবে আন্দোলন প্রত্যাহার করে নেন শিক্ষার্থীরা। আজ রোববার সকাল ১০টার মধ্যে তাদের দাবীগুলো না মানলে শিক্ষার্থীরা আবার আন্দোলনে নামবেন বলে জানা যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা জানান, শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো পর্যালোচনা করা হচ্ছে। অভিযুক্তদের বিষয়ে আলোচনা করে দ্রুতই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ