মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

বগুড়ায় বলাৎকার করতে বাধা দেয়ায় ৮ বছরের শিশুকে হত্যা

বগুড়া অফিস : বগুড়ার শেরপুরে বলাৎকার করতে বাধা দেয়ায় জীবন গেল শিশু আসিফের। হত্যাকান্ডের শিকার আসিফ হাসান (৮) বলাৎকার করতে বাধা দিয়েছিল কিশোর সিয়াম (১৬) কে। একারণেই নির্মম হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছে আসিফ। পুলিশের হাতে গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এ কথা স্বীকার করেছে সিয়াম আহম্মেদ তুহিন। গত বুধবার শিশুর হত্যাকারী সিয়ামের বাড়ীর শোয়ার ঘরে খাটের নিচে থেকে বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় সিয়াম ও তার বাবা, মা ভাইকে পুলিশ আটক করেছে। আসিক হাসান (৮) শেরপুর উপজেলার কৃষ্ণপুর পূর্ব যমুনা পাড়া এলাকার মঞ্জুর হাসানের ছেলে। 

বগুড়ার শেরপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গাজিউর রহমান জানান, বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটে। খবর পেয়ে সন্ধা সাড়ে ৬টার দিকে শিশু আসিফের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৪ জনকে আটক করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃত সিয়াম বাবু তুহিন পুলিশের কাছে হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার সকালে শেরপুর থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। আটক সিয়ামের উদ্ধৃতি দিয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গাজিউর রহমান জানান, সিয়াম আহম্মেদ তুহিন একাধিকবার শিশু আসিফকে বলাৎকার করার প্রস্তাব দিয়েছিল। এতে বার বার আসিফ নিষেধ করে। বুধবার বিকেলেও আসিফকে একই প্রস্তাব দেয় সিয়াম। এতে সে রাজী না হলে কৌশলে সিয়াম তাদের ঘরের মধ্যে আসিফকে নিয়ে যায়। প্রথমে তার হাত পা বেধে আসিফকে বলাৎকারের চেষ্টা করে, তখন বাধা দিলে আসিফের গলা টিপে ধরে সিয়াম। আসিফকে হত্যার উদ্দেশ্যে কাটা বাঁশের অংশ দিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যার পর তার লাশ বস্তায় ভরে খাটের নিচে লুকিয়ে রাখে। হত্যাকান্ড ঘটিয়ে সিয়াম নিজেকে বাঁচানোর নাটক করে অজ্ঞান হওয়ার ভান করে। সকলকে জানায় তাদের ঘরে লাশ। সিয়ামের কথাবার্তায় পুলিশের সন্দেহ হলে তাকে সহ তার পিতা সুরুতজ্জামান, মাতা পারভীন ও ভাই সোহাগকে পুলিশ আটক করে। উল্লেখ্য, সিয়াম এর আগেও অণ্য শিশুকে বলাৎকার করেছে বলে স্বীকার করেছে পুলিশের কাছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হবে। সিয়ামকে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দির জন্য আদালতে নেয়া হবে বলে জানান শেরপুর থানার ওসি হুমায়ুন কবির।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ