শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

গুদাম সঙ্কটের কারণে খুলনায় স্কুলের নতুন বই আগেভাগেই বিতরণ

খুলনা অফিস : আগামী শিক্ষাবর্ষ শুরুর দু’তিন মাস আগেই নতুন বই আসা শুরু করেছে খুলনায়। ধাপে ধাপে আসা বইগুলো পুরোপুরি আসছে না। গত বছরের পুরাতন বই গুদামে থাকা আর নতুন বই আসায় তৈরি হচ্ছে জায়গা সঙ্কট। যার কারণে আগেভাগেই খুলনার বিদ্যালয়গুলোতে বই বিতরণ করা শুরু করেছে শিক্ষা বিভাগ।
জানা গেছে, আগামী বর্ষ শুরুর এখনও দুই মাসের বেশি সময় বাকি রয়েছে। বর্তমানে বছরের প্রথম দিনই সকল শিক্ষার্থীর হাতে তুলে দেয়া হয় নতুন বই। তারই প্রস্তুতি হিসেবে বেশ আগে থেকেই খুলনায় আসা শুরু করেছে নতুন বই। খুলনা জেলার উপজেলাগুলোতে সরাসরি ঢাকা থেকে বই আসে। জেলাকে পোহাতে হয় না খুব বেশি ঝামেলা। বইগুলো রাখতে হয় শিক্ষা বিভাগের নিজস্ব তত্ত্বাবধানে। খুলনা সদর থানা শিক্ষা অফিসের আওতাধীন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদরাসাগুলোতে ২০২০ সালের বইয়ের চাহিদা ছিল ৬ লাখ ৭৬ হাজার ৬০০টি। এখন পর্যন্ত পাওয়া গেছে ৫ লাখ ৪৫ হাজার ৫৪০টি। বই আসতে বাকি রয়েছে ১ লাখ ৩১ হাজার ৬০টি। খুলনা সদর থানার বইগুলো রাখা হয় খুলনা জিলা স্কুলে। কিন্তু স্কুলটিতে বই রাখার কাজে ব্যবহৃত কক্ষটি গত বছরের পুরাতন বইয়ে পরিপূর্ণ। যার কারণে নতুন বই রাখার সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে নতুন বই রাখার জন্য জিলা স্কুলের আরেকটি কক্ষের পাশাপাশি বয়রা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষ বরাদ্দ করে রাখা হয়েছে। সকল বই শ্রেণি অনুযায়ী কিংবা বিষয়ভিত্তিতে আসছে। শ্রেণিভিত্তিক সম্পূর্ণ না আসায় বিষয়ভিত্তিক বই বিতরণ শুরু করেছে শিক্ষা বিভাগ। যে সকল বিষয়ের বই এখনও পুরোপুরি আসেনি সেগুলো দেওয়া হচ্ছে না।
সরেজমিন খুলনা জিলা স্কুলের কালেক্টরেট ভবনে শিক্ষা বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বই বিষয়ভিত্তিক এবং স্কুল অনুযায়ী বিতরণের জন্য ভাগ করা এবং প্রদান করতে দেখা যায়।
খুলনা কোতয়ালী থানা শিক্ষা অফিসার রুবাইনা ইয়াসমিন বলেন, গুদামে পুরাতন বই থাকায় নতুন বই রাখার জায়গা সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। যার কারণে ইতোমধ্যে মাদরাসার যে সকল বিষয়ের নতুন বই চাহিদা অনুযায়ী পুরোপুরি এসেছে সেগুলো মাদরাসাগুলোয় বিতরণ করা হচ্ছে। যাতে যে সকল বই আসতে বাকি রয়েছে সেগুলো রাখতে কোনো সঙ্কট সৃষ্টি না হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ