বুধবার ২৭ মে ২০২০
Online Edition

বিশ্ব গণমাধ্যমের শিরোনামে নুসরাত হত্যার রায়

স্টাফ রিপোর্টার: ফেনীর মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে (১৮) পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় ১৬ জনকে ফাঁসির রায় দিয়েছেন আদালত। মামলার রায়ের খবর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যমগুলো গুরুত্বসহকারে ছাপিয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি, দ্য গার্ডিয়ান, টেলিগ্রাফ, দ্য সান, ডেইলি মেইল, কাতারভিত্তিক আলজাজিরা, যুক্তরাষ্ট্রের সিএনএন, ফক্স নিউজ, আরব আমিরাতের দ্য গালফ, ভারতের এনডিটিভি, এছাড়া ফক্সনিউজ, চ্যানেল নিউজ এশিয়াসহ বিশ্বের আরও অনেক সংবাদমাধ্যম এই হত্যাকা-ের রায় গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করে।

দেশব্যাপী আলোচিত ওই ঘটনায় সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার তৎকালীন অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলাসহ ১৬ আসামির ফাঁসির আদেশ দেন আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জেলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদের আলোচিত এ মামলার রায় ঘোষণা করেন

বিবিসি শিরোনামে বলছে, নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে ১৬ হত্যাকারীকে ফাঁসি দেওয়া হয়েছে। সংবাদে আরও জানানো হয়, মাদরাসার অধ্যক্ষ ও নুসরাতের দুই নারী সহপাঠীও এই হত্যাকা-ে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের আদালতের দ্রুততম রায়গুলোর মধ্যে এটি একটি। আসামিরা উচ্চ আদালতে আপিলের কথা জানিয়েছেন।

আল-জাজিরার শিরোনামে জানানো হয়, নুসরাতকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় বাংলাদেশে ১৬ জনকে মৃত্যুদ- দেওয়া হয়েছে। শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করায় নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। নুসরাতের বাবা একেএম মুসা মানিক জানান, তিনি আশা করছিলেন সুবিচার পাবেন। তিনি বলেন, আমার মেয়েকে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে তা পুরো দেশ দেখেছে। তাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় তাকে এই পরিণতি ভোগ করতে হয়েছিল।

এনডিটিভির শিরোনামে বলা হয়, বাংলাদেশে ১৯ বছরের নারীকে জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় ১৬ আসামির ফাঁসি দেওয়া হয়েছে। নুসরাতকে হত্যা সারাদেশে প্রতিবাদের ঝড় তুলেছে বলে সংবাদে তথ্য দেওয়া হয়। মামলার কৌঁসুলি হাফিজ আহমেদ বলেন, এই রায় এটাই প্রমাণ করে বাংলাদেশে হত্যাকা- ঘটিয়ে কেউ নিষ্কৃতি পাবে না। বাংলাদেশে আইনের শাসন রয়েছে।

এদিকে রয়টার্স জানায়, ধর্মীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদ করায় কিশোরী নুসরাতকে হত্যা করা হয়। এই ঘটনায় অভিযুক্ত অধ্যক্ষসহ ১৬ জনকে ফাঁসি দেওয়া হয়েছে। ভুক্তভোগী পরিবারের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাক্ষাৎ ও দোষীদের বিচারের যে আশ্বাস দিয়েছিলেন তাও উঠে আসে রয়টার্সের সংবাদে।

যুক্তরাজ্যের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান শিরোনাম করে , ‘১৯ বছরের নারীকে পুড়িয়ে মারায় বাংলাদেশে ১৬ জনের দ-।’

গালফ নিউজ দ্বিতীয় লিডে শিরোনাম করে, ‘কিশোরীকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারায় ১৬ জনকে ফাঁসি।’ এই ঘটনা শুরু থেকেই বেশ গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করে আসছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো। ঘটনার ছয় মাসের মধ্যে এই হত্যাকা-ের বিচার সম্পন্ন হলো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ