বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

বাগমারায় গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

বাগমারা (রাজশাহী) সংবাদদাতা: রাজশাহীর বাগমারা শিমু আকতার (২৬) নামে এক গৃহবধূ বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেছে। তবে ওই গৃহবধূর ছোট ভাই বোনকে নির্যাতন করে মেরে ফেলা হয়েছে বলে দাবি করেছেন। নিহত ওই গৃহবধূ উপজেলার বড়বিহানালী ইউনিয়নের কুলিবাড়ি গ্রামের রহিদুল ইসলামের (৩৬) স্ত্রী। এ ব্যাপারে গতকাল শুক্রবার বাগমারা থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, রহিদুল ইসলামের সাথে কাঁঠালবাড়ীর শিমু আকতারের ১০/১২ বছর আগে বিয়ে হয়। তাদের দু’টি সন্তানও রয়েছে। বিয়ের পর থেকে অভাবের তাড়নায় স্বামী স্ত্রীর মধ্যে মাঝে মাঝেই বিরোধের সৃষ্ঠি হতো। গত বৃহস্পতিবার রাতে স্বামীর উপর অভিমান করে গৃহবধূ বাড়িতেই শয়ন কক্ষে বিষপান করে। পরে স্বামী তার বাড়ির সবাইকে ডাকা ডাকি করে রোগীকে বাগমারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়। সেখানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে চম্পট দেয়। চিকিৎসাধীন আবস্থায় গৃহবধূ শিমুর মৃত্যু হয়। এদিকে শিমুর বাবার বাড়ির লোকজন এসে শিমুর মৃত্যু অবস্থায় দেখে থানায় খবর দেয়। নিহতের ছোট ভাই রেজাউল করিম অভিযোগ করে বলেন, তার বোনকে ভগ্নিপতি রহিদুল নির্যাতন করে মেরে ফেলেছে। ইতি পুর্বে তার বোনের পরকিয়া আছে এমনটি বলে তাকে নির্যাতন করা হতো। গত দুই দিন ধরেও তার বোনকে মেরে অসুস্থ করে ছিল তার দুলাভাই।
এ বিষয়ে বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আতাউর রহমান বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুর কথা জানতে চাইলে ওসি বলেন, লাশ ময়না তদন্তে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পেলে বিষয়টি উদঘাটন হবে বলে তিনি সাংবাদকদের জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ