শনিবার ০৮ আগস্ট ২০২০
Online Edition

চট্টগ্রামে পৃথক দুর্ঘটনায় ৪ জনের মৃত্যু

চট্টগ্রাম ব্যুরো : চট্টগ্রামে পৃথক বিভিন্ন দুর্ঘটনায় ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।
বাশঁখালী সংবাদদাতা জানান,গতকাল সোমবার সকালে চট্টগ্রামের বাঁশখালী  সড়কে কালীপুর ইউনিয়নের পালগ্রামে বাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংর্ঘষে দুজনের মৃত্যু হয়। মৃতরা হলেন- জিয়াউল হক (৪৫) ও টমাস মন্ডল (৪২)। বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম বলেন, ভোর সাড়ে ৬টার দিকে চট্টগ্রাম শহর থেকে বাঁশখালীমুখী বাসের সঙ্গে অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে একজন এবং হাসপাতালে নেওয়ার পর আরেকজনের মৃত্যু হয়েছে। দুজনই অটোরিকশায় ছিলেন। গুরুতর আহত অবস্থায় জিয়াউল হক নামে একজনকে হাসপাতালে আনার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেছেন। জিয়াউল বাঁশখালী উপজেলার পুঁইছড়ি ইউনিয়নের আব্দুর রশিদের ছেলে।
এদিকে রাউজান পৌরসভার সুলতানপুর জানালীহাট এলাকায় সোমবার সকাল ৭টার দিকে আরেকটি দুর্ঘটনায় এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। মৃত জয়ব্রত ধর (২৫) পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের লক্ষ্মীব্রত ধরের ছেলে। চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার জানান, জয়ব্রত নিজেই মোটর সাইকেল চালাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটর সাইকেল উল্টে গিয়ে তিনি গুরুতর আহত হন। হাসপাতালে আনার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেছেন।
এদিকে সীতাকুণ্ড সংবাদদাতা জানান, সীতাকুণ্ডে একটি শিপব্রেকিং ইয়ার্ডে কাজ করার সময় বড় লোহা মাথায় পড়লে  এক শ্রমিক মারা যায়। সীতাকুণ্ডে ভাটিয়ারির এইচএম শিপব্রেকিং ইয়ার্ডে রোববার মধ্যরাতে এ দুর্ঘটনা ঘটে।নিহত ওই শ্রমিকের নাম রবিউল ইসলাম(২২)।তার বাড়ি জামালপুর জেলার ইসলামপুর গ্রামে। তারা বাবার নাম হায়াত ফকির।জানা গেছে, রোববার মধ্যরাতে এইচএম শিপব্রেকিং ইয়ার্ডে শ্রমিকরা জাহাজ কাটার কাজ করছিল। ওই সময় রবিউলের মাথায় হঠাৎ লোহার একটি ভারী পাত পড়লে তিনি গুরুতর আহত হন। পরে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সোমবার ভোর সাড়ে ছয়টার দিকে তার মৃত্যু ঘটে। এ বিষয়ে মডেল থানার ওসি তদন্তÍ শামীম শেখ বলেন,‘ ইয়ার্ডে কাজ করতে গিয়ে মাথায় রডের আঘাতে আহত শ্রমিকের মৃত্যু হয় হাসপাতালে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে লাশ পরিবারের তুলে দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।
৩ মানবপাচারকারী গ্রেফতার
চট্টগ্রামে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৩ মানবপাচারকারীকে গ্রেফতার করেছে।
পুলিশবলছে,মানবপাচারকারীরা  দেশের বিভিন্ন প্রান্তে হত দরিদ্র, বিভিন্ন পেশার মানুষদেরকে বিদেশে অধিক আয়ের প্রলোভন দেখায়। দরিদ্র লোকজন তাদের কথার বিশ্বাস করে প্রতারনার ফাদে পা দেয়। লোকজনদেরকে অল্প টাকায় যুদ্ধবিধস্থ লিবিয়ায় নিয়ে গিয়ে অধিক আয়ের লোভ দেখায়। যুদ্ধবিধস্ত দেশ লিবিয়ায় গিয়ে অনেকেই অর্থ উপার্জন করতে না পেরে মৃত্যুর মুখে পতিত হয়। বাংলাদেশ থেকে লিবিয়া যাওয়ার বৈধ কোন পন্থা না থাকায় আসামীরা লোকদেরকে বিভিন্নভাবে অবৈধ পন্থায় লিবিয়ায় নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করে। পুলিশ জানায় কোতওয়ালী থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিওিতে গতকাল সোমবার সকাল ১০টার পর কোতোয়ালী থানাধীন স্টেশন রোড এর     হোটেল মিট টাউন (আবাসিক) এর ৪র্থ তলার রুম নং-৪৮৫ এ অভিযান চালায়। এসময়  মানবপাচারকারী দলের সদস্য ০১) আতাউর রহমান(৩৮), পিতা- আব্দুল হাই,মাতা- নীলা মতি বেগম,সাং/ আটগর নগর- আব্দল হাইয়ের নতুন বাড়ী, থানা- জগনাৎপুর, জেলা- সুনামঞ্জ, বর্তমানে- সস্তা পোল শিপু মার্কেট ৩য় তলা ৩২ নং রুম, থানা- ফতুল্লা,জেলা- নারায়নগঞ্জ, ২) মোঃ জাহাঙ্গীর আলম(২৬), পিতা- আলমগীর মিয়া, মাতা- আকলিমা বেগম, সাং- মধ্যম কাইচাইল, আব্দুর রাজ্জাক এর বাড়ী থানা- নগরকান্দা, জেলা- ফরিদপুর, বর্তমানে- নারায়নগঞ্জ বেসিক মনির মিয়ার বাড়ী থানা- ফতুল্লা, জেলা- নারায়নগঞ্জ। ৩) মোঃ জাহাঙ্গীর(৩৪), পিতা- মোঃ সাফাজ উদ্দিন মৃধা, মাতা- জাহানারা বেগম, সাং- সরমাবল জাহাঙ্গীরের বাড়ী, থানা- টঙ্গীবাড়ী, জেলা- মুন্সিগঞ্জ দেরকে গ্রেফতার করে।। তাদের নিকট হতে ১৫টি পাসপোর্টসহ ৫ (পাঁচ) জন ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়। ভিকটিমদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় য়ে, তাদেরকে লিবিয়া নেওয়ার জন্য বিভিন্ন জায়গা হইতে চট্টগ্রামে নিয়ে এসেছে। চট্টগ্রাম আন্তজার্তিক বিমান বন্দর দিয়ে প্রথমে দুবাই, সেখান থেকে মিশর, তারপর সড়ক পথে লিবিয়ায় নিয়ে যাবে। লিবিয়ায় যাওয়ার পর তাদেরকে ভাল কাজ পাইয়ে দিবে। উদ্ধারকৃত ভিকটিমদেরকে আরো জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানান যে, ধৃত আসামীরা তাহাদেরকে বিভিন্ন কৌশলে মিথ্যা প্রলোভন দিয়া তাহাদের অসহায়ত্বকে কাজে লাগাইয়া স্বল্প খরচে অবৈধভাবে লিবিয়া নেওয়ার কথা বলিয়া বিভিন্ন জনের কাছ থেকে বিভিন্ন অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এবং লিবিয়া গিয়া ভিকটিমদের মাধ্যমে বিভিন্ন কাজ করিয়ে অর্জিত অর্থ থেকে আসামীদের আরও অর্থ পরিশোধ করতে হবে বলে জানায়। ধৃত আসামীরা আরো জানায় যে, তারা পলাতক আসামী মোশারফ, পিতা-অজ্ঞাত, মাতা-অজ্ঞাত, সাং-অজ্ঞাত, থানা-অজ্ঞাত, জেলা-ফরিদপুর, বর্তমানে-পল্টন সিটি হাট মার্কেট, থানা-মতিঝিল, জেলা-ঢাকা, মোবাঃ-০১৮১৭-৫০৫৮৭৮, ০১৭৪৩-৮৮৩৮৪০ সহ সংঘবদ্ধভাবে রাতারাতি অধিক মুনাফা অর্জনের নিমিত্তে বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশ হতে অবৈধভাবে মানব পাচার করিয়া আছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ