মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

একই দিনে কুয়েট ও এমআইএসটির ভর্তি পরীক্ষা ॥ বিপাকে শিক্ষার্থীরা

খুলনা অফিস : খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) এবং ঢাকার মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি (এমআইএসটি)। দু’টি বিশ্ববিদ্যালয়ই শিক্ষার্থীদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। অনেকে এ দু’টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন। কিন্তু দু’টি বিশ্ববিদ্যালয়েই একই দিনে অনুষ্ঠিত হবে ভর্তি পরীক্ষা। আগামী ১৮ অক্টোবর একই দিন অনুষ্ঠিত হবে এ পরীক্ষা। এজন্য এ দু’টি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষই গ্রহণ করেছেন নানা প্রস্তুতি। কিন্তু একই দিনে পরীক্ষা হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন অভিভাবক ও ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা। কেননা অনেকেই এ দু’টি বিশ্ববিদ্যালয়েই পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়েছেন।
বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী ও অভিভাবক জানান, ১৮ অক্টোবর এই দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। একই দিনে পরীক্ষা হওয়ায় শিক্ষার্থীরা এই দুই প্রতিষ্ঠানের শুধুমাত্র একটিতেই পরীক্ষা দিতে পারবেন। কেননা একটির পরীক্ষা খুলনায় অপরটির হবে ঢাকায়। একই দিনে দু’টি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি পরীক্ষা হওয়ায় শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি ক্ষোভ প্রকাশ করছেন অভিভাবকরাও।
এছাড়া একই দিনে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার ফলে শিক্ষার্থীরা ফরম নিয়েও পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে এমনটিও জানিয়েছেন কেউ কেউ। এতে একদিনে যেমন অর্থের অপচয় হবে অন্যদিকে মানসিকভাবে অস্বস্তিতে পড়বে শিক্ষার্থীরা।
শিক্ষার্থীরা বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যে প্রচলিত পদ্ধতিতে ভর্তি প্রক্রিয়া চালু আছে তাতে দেখা যায়, ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের ছুটতে হয় এক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে, এক জেলা থেকে আরেক জেলায়। ভর্তি পরীক্ষার তারিখ একই দিনে হলে অনেকেই দুই জায়গায় পরীক্ষা দিতে পারবে না। অনেক শিক্ষার্থী এই পরিস্থিতির শিকার হয়ে পছন্দের বিষয়টিতে ভর্তি হতে পারেন না। এমন বিষয়ে ভর্তি হতে বাধ্য হবেন, যা তিনি পড়তে চাননি। এর ফলে তিনি কাংখিত লক্ষ্যে পৌঁছতে পারেন না। তাই প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে তার যোগ্যতা অনুযায়ী সব ভর্তি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের সুযোগ দেয়া উচিত। যার জন্য ভর্তি পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে সমন্বয়ের প্রয়োজন বলেও অনেকে মনে করেন।
এ ব্যাপারে মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির (এমআইএসটি) ভর্তি পরীক্ষা কমিটির প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নজরুল ইসলাম বলেন, এখনও পর্যন্ত পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তনের কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে চেষ্টা চলছে। সমন্বয়ের মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পুন:নির্ধারণ করা যায় কি না তা নিয়েও চেষ্টা চলছে বলেও তিনি জানান।
খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট)-এর পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. তৈয়েবুর রহমান বলেন, একই দিনে যাতে পরীক্ষা না হয় সেজন্য কুয়েটের পক্ষ থেকে এমআইএসটিতে যোগাযোগ করা হয়েছিল। কুয়েট থেকে তারিখ নির্ধারণ করা হয় আগে। তাছাড়া এ তারিখ ঘোষণা করা হয় বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ থেকে। রুয়েটের কারণেও একবার তারিখ পরিবর্তন করা হয়। সুতরাং এখন আর কুয়েটের পরীক্ষা পেছানো বা আগানোর সুযোগ নেই।
উল্লেখ্য, আগামী ১৮ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য কুয়েটের এক হাজার ৬৫টি আসনের মধ্যে ১২ হাজার শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন। আবার ঢাকার এমআইএসটিতে ৫৭০টি আসনের বিপরীতে ১০ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের প্রস্তুতি নিয়েছেন। একই শিক্ষার্থী দু’টি বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দেয়ার জন্য ফরম পূরণ করলেও এখন একটির বাইরে পরীক্ষা দেয়াটা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
তবে, অপর একটি সূত্র বলছে, বিশবিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন(ইউজিসি) ইচ্ছা করলে এ ক্ষেত্রে সমন্বয়ের ভূমিকা পালন করতে পারে। আর সেটি করা হলে অন্তত: কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর কাংখিত বিষয়ে পড়ার নিশ্চয়তা হবে। অন্যথায় চাপিয়ে দেয়া বিষয় নিয়েই পড়তে হবে শিক্ষার্থীদের। যেটি তার উচ্চ শিক্ষা জীবনে একটি বড় ধাক্কা বলেও অনেকে মনে করছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ