বুধবার ১৫ জুলাই ২০২০
Online Edition

ফুটবল লড়াইয়ে মাঠে নামছে আজ বাংলাদেশ-আফগানিস্তান

স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের প্রথম রেটস্ট ঘিরে পাঁচদিন ক্রীড়ামোদীদের রেচাখ ছিল চট্টগ্রামে। আশা-আশঙ্কা আর বৃষ্টির মাখামাখির চট্টলা রেটস্ট রেশষ হয়েছে বাংলাদেশের লজ্জার পরাজয়ে। চট্টগ্রাম রেটস্ট রেশষ হওয়ার পরই রেদশের ক্রীড়ামোদীদের দৃষ্টি নিক্ষিপ্ত বন্দর নগরী রেথকে প্রায় ৩ হাজার কিলোমিটার দুরের শহর দুশানবেতে। তাজিকিস্তানের রাজধানীতে আরেকটি বাংলাদেশ-আফগানিস্তান লড়াই। ক্রিকেটে রেযখানে ধারে-ভারে অনেক এগিয়ে বাংলাদেশ, ফুটবলে তার উল্টো। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের রেচয়ে ৩৩ ধাপ এগিয়ে আফগানরা। আফগানিস্তান রেযখানে চট্টগ্রাম রেটস্ট শুরু করেছিল আন্ডারডগ হিসেবে রেসখানে তাজিকিস্তানে রেদশটির ফুটবল দল নামবে রেফবারিট হয়েই। কাতার-২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্বের লড়াই শুরু হয়েছে ৫ রেসপ্টেম্বর। ‘ই’ গ্রুপে বাংলাদেশ ছাড়া অন্য চার দল প্রথম ম্যাচ রেখলে রেফলেছে। আফগানিস্তান ৬-০ রেগালে রেহরেছে কাতারের কাছে, ভারতকে ২-১ রেগালে হারিয়েছে ওমান। বাংলাদেশের শুরুটা রেকমন হয় তা রেদখা যাবে দুশানবের রিপাবলিকান রেসন্ট্রাল রেস্টডিয়ামে ৯০ মিনিটের লড়াইয়ে।

দীর্ঘ সময় ফিফার নিষেধাজ্ঞায় থাকায় আন্তর্জাতিক ফুটবলের বাইরে ছিল আফগানিস্তান। রেয কারণে রেদশটির সঙ্গে রেবশি রেখলা হয়নি বাংলাদেশের। নিষেধাজ্ঞার আগে ১৯৭৯ সালে দুটি এবং নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে রেফরার পর চারটি- সর্বসাকুল্যে আফগানিস্তান ৬ বার মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশের। জয়-পরাজয়ের পাল্লাটা সমান। একটি করে ম্যাচ জিতেছে দুই দল, চারটি ড্র।

আজ মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় রাত ৮ টায় শুরু হওয়া রেখলাটি আফগানিস্তানের রেহাম ম্যাচ। রেদশটিতে নিরাপত্তা ঝুঁকির কারণে তারা রেহাম রেভন্যু হিসেবে রেবছে নিয়েছে তাজিকিস্তানের দুশানবের রিপাবলিকান রেসন্ট্রাল রেস্টডিয়ামকে। টার্ফের মাঠেই বাংলাদেশকে নামতে হচ্ছে প্রথম পরীক্ষায়।

কন্ডিশন এবং টার্ফের সঙ্গে কিছুটা সখ্যতা তৈরির উদ্দেশ্যেই বাংলাদেশ ফুটবল দলের ইংলিশ রেকাচ রেজমি রেড ১০ দিন আগে রেসখানে গিয়েছেন শিষ্যদের নিয়ে। অনুশীলনের পাশাপাশি স্থানীয় প্রিমিয়ার লিগের দুটি ক্লাবের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচ রেখলে প্রথমটি রেহরে দ্বিতীয়টি ড্র করেছে বাংলাদেশ। সব প্রস্তুতি রেসরে জামাল ভূঁইয়রা এখন তারা যুদ্ধের ময়দানে নামার অপেকক্ষায়।

রক্ষণভাগ: টুটুল রেহাসেন বাদশা, সুশান্ত ত্রিপুরা, রহমত মিয়া, মনজুর রহমান মানিক, ইয়াসিন খান, বিশ্বনাথ রেঘাষ, রিয়াদুল হাসান, নুরুল নাঈম ফয়সাল ও ইয়াসিন আরাফাত।

মধ্যমাঠ: মাসুক মিয়া জনি, জামাল ভূঁইয়া, মামুনুল ইসলাম, রেসাহেল রানা, রবিউল হাসান,বিপলু আহমেদ, আরিফুর রহমান ও রেমাহাম্মাদ ইব্রাহিম।

আক্রমণভাগ: রেনওয়াজ জীবন, মাহবুবুর রহমান সুফিল, মতিন মিয়া, সাদ উদ্দীন ও জুয়েল রানা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ