শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

গুলীতে আহত কাশ্মীরী যুবকের মৃত্যু ॥ শ্রীনগরে ফের কারফিউ

সংগ্রাম ডেস্ক : পাক অধিকৃত কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখার কাছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী এক ব্রিগেড সৈন্য মোতায়েন করায় দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। ওদিকে ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগরে পুলিশের ছররা গুলীতে এক কাশ্মীরী যুবকের মৃত্যু হওয়ায় সেখানে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে এবং সে কারণে শ্রীনগরে পুনরায় কারফিউ জারি করা হয়েছে। অপরদিকে মেহবুবা মুফতির কন্যা সানা ইলতিজা জাভেদ তার মায়ের সাথে দেখা করার অনুমতি পেয়েছেন। এছাড়া চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ওয়াং ই তার পূর্ব নির্ধারিত ভারত সফর বাতিল করে পাকিস্তান সফর করবেন বলে খবর পাওয়া গেছে। এএনআই, পার্সটুডে, এক্সপ্রেস ট্রিবিউন।

সীমান্তে ২ হাজার সেনা জড়ো করেছে পাকিস্তান তীব্র উত্তেজনা

সংগ্রাম ডেস্ক : জম্মু-কাশ্মীর সঙ্কট ঘিরে প্রতিবেশি ভারতের সঙ্গে তীব্র উত্তেজনার মাঝে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখার একেবারে কাছে অন্তত এক ব্রিগেড সেনা সদস্য জমায়েত করেছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। পাক অধিকৃত কাশ্মীর সীমান্তের বাঘ এবং কোটলি সেক্টর ঘেঁষে প্রায় ২ হাজার পাক সেনাসদস্যের উপস্থিতিকে গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। শীর্ষনিউজ।

ভারতীয় সেনাবাহিনী বলছে, একটি শান্তিপূর্ণ অবস্থান থেকে ওই সেনাদের সীমান্তে নিয়ে এসেছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। এই মুহূর্তে তারা নিয়ন্ত্রণ রেখার ৩০ কিলোমিটার এলাকায় অবস্থান করছে।

দেশটির বার্তাসংস্থা এএনআইকে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সূত্রগুলো বলছে, বর্তমানে এই সেনাদের আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে মোতায়েন করেনি পাক সেনাবাহিনী। তবে ভারতীয় সেনাবাহিনী পাক সেনাদের গতিবিধি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।

ভারতীয় সেনাবাহিনীর ওই সূত্র বলছে, সীমান্তের পাকিস্তান সেনাবাহিনী সেনাসদস্যদের এমন এক সময় জড়া করেছে; যখন পাকিস্তানে লস্কর-ই-তৈয়বা এবং জয়েশ-ই-মোহাম্মদের মতো জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোতে স্থানীয় এবং আফগান তরুণদের দলে টানার কাজ চলছে।

সীমান্তে পাকিস্তান সেনাবাহিনী যে সেনাসদস্যদের নিয়ে এসেছে তাদের পরিমাণ প্রায় এক ব্রিগেডের মতো। এই সদস্যদের সংখ্যা ২ হাজারের বেশি হতে পারে।

ভারতের প্রভাবশালী দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, গত ৫ আগস্ট ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল হয়ে যাওয়ার পর কাশ্মীর সীমান্তে শতাধিক এসএসজি কমান্ডো মোতায়েন করেছে। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর গোলা বর্ষণে অন্তত ১০ পাকিস্তানি এসএসজি কমান্ডো নিহত হয়েছেন। ভারতীয় সেনাবাহিনীরও বেশ কয়েকজন সদস্য পাকিস্তানের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন।

 

কাশ্মীরী যুবকের মৃত্যুতে শ্রীনগরে ফের কারফিউ  

পুলিশের ছররা গুলীতে আহত এক ছাত্রের মৃত্যুর ঘটনায় কাশ্মীরের শ্রীনগরে ফের কারফিউ জারি করা হয়েছে। বুধবার আসরার আহমেদ খান নামে ওই ছাত্র মৃত্যুবরণ করে। গত মাসে এক বিক্ষোভে পুলিশের ছোড়া ছররা গুলীতে সে আহত হয়েছিল।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, একাদশ শ্রেণির ওই ছাত্রের মৃত্যুর ঘটনায় শ্রীনগরে নতুন করে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তা। গোয়েন্দাদের আশঙ্কা, এ খবর ছড়িয়ে পড়লে নতুন করে উত্তেজনা তৈরি হতে পারে। তবে গুলিতে কাশ্মীরী যুবকের মৃত্যুর বিষয়টি অস্বীকার করেছে পুলিশ।

৫ আগস্ট কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা সংক্রান্ত সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের পর থেকেই উত্তপ্ত উপত্যকা। মোবাইল নেটওয়ার্ক, ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করা হয়। প্রায় দুই সপ্তাহ বন্ধ ছিল স্কুল, কলেজ, সরকারি দফতর। কেন্দ্রের তরফে বলা হয়েছিল, আস্তে আস্তে স্বাভাবিক হবে পরিস্থিতি।

বেশকিছু জায়গায় ইন্টারনেট পরিষেবা, ল্যান্ড লাইন ফোন চালু হচ্ছিল। কিন্তু ওই ছাত্রের মৃত্যুর পর পুরনো শ্রীনগরে আবারও বিধিনিষেধ আরোপ করেছে প্রশাসন।

৬ আগস্ট সৌরা এলাকায় নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে আসরার আহত হন। শহরের শের-ই-কাশ্মীর ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। প্রায় এক মাস অসুস্থ থাকার পর বুধবার তিনি মারা যান।

কী কারণে তার মৃত্যু হয়েছে, তা এখনও জানে না পুলিশ এবং তারা বুলেটের আঘাতে মৃত্যুর সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছে।

এক জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ছররা গুলিতে আহত হওয়ার কোনো চিহ্ন নেই। সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, পাথরের আঘাতে তিনি আহত হন। সেদিন ভিড়ের মধ্য থেকে ব্যাপক ইট-পাথর ছোড়ার ঘটনা ঘটেছিল।

মায়ের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি পেলেন মেহবুবা মুফতির মেয়ে

মায়ের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি পেলেন কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির মেয়ে সানা ইলতিজা জাভেদ।

গত বৃহস্পতিবার আদালতে এক পিটিশনের জবাবে সুপ্রিম কোর্ট তাকে তার মায়ের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দেন।

ওই পিটিশনে সানা ইলতিজা জানান, মা মেহবুবা মুফতির স্বাস্থ্য নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন তিনি। দীর্ঘ এক মাস মায়ের সঙ্গে দেখা করতে পারছেন না। মেহবুবা মুফতি কেমন আছেন, কিভাবে নিজের স্বাস্থ্যের যতœ নিচ্ছেন তার কিছুই জানতে পারছেন না তিনি। এজন্য উৎকণ্ঠায় দিন কাটছে তার।

আদালতে কাছে মেহবুবা মুফতির মেয়ে বলেন, আমি শ্রীনগরে যেতে চাই এবং মায়ের সঙ্গে আলাদাভাবে দেখা করতে চাই।

প্রশাসন থেকে সেই অনুমতিও পেয়েছেন বলে জানান তিনি। এরপরেই আদালত তাকে তার মায়ের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দিয়েছে।

উল্লেখ্য গত ৫ আগস্ট ভারত সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপের পর উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরজুড়ে। বিক্ষোভে ফেটে পড়ে গোটা জুম্মু-কাশ্মীর।

বিশেষ মর্যাদা তুলে নেয়ার প্রতিবাদে হয় রাস্তায় নেমে আসে লাখো কাশ্মীরি। বিক্ষোভ বানচাল করতে অতিরিক্ত সেনা মোতয়েনসহ ১৪৪ ধারা জারি ভারত সরকার। এরইমধ্যে সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতিসহ অনেক রাজনৈতিক নেতাকে গ্রেফতার করা হয়।

তারপর থেকেই মায়ের সঙ্গে দেখা করতে পারছেন না সানা ইলতিজা।

এর আগে গত মাসের শুরুর দিকে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে চিঠি লিখে কাশ্মীরে নাগরিকদের পরিস্থিতির কথা জানিয়েছিলেন সানা ইলতিজা।

সে চিঠিতে কাশ্মীরকে পশুর খাঁচার মতো বানিয়ে সেখানকার মানুষদের মৌলিক মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছিলেন তিনি।

কাশ্মীর ইস্যুতে কথা বললে তাকে ‘ভয়াবহ পরিণতি’র হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছিলেন সানা।

তিনি অমিত শাহকে আরও জানিয়েছিলেন, তাদের কোনো স্বাধীনতা দেয়া হচ্ছে না। এমনকি তারা স্বাভাবিকভাবে চলাফেরারও অনুমতি পাচ্ছেন না।

কাশ্মীরে মানবাধিকার বিপন্ন- ব্রিটেন

কাশ্মীর প্রসঙ্গে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব বলেছেন, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত মানবাধিকার বলতে যা বোঝায়, কাশ্মীরে তা এখন বিপন্ন। ব্রিটিশ পার্লামেন্টে তিনি ওই মন্তব্য করেছেন।

ডমিনিক রাব বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সমাজের একটা সার্বিক দায়িত্ব আছে। আমরা অবশ্যই পরিস্থিতি খতিয়ে দেখব এবং অধিকারগুলো রক্ষিত হচ্ছে কি না, সেদিকে নজর রাখব।’

তার মতে, কাশ্মীর সমস্যা ভারত-পাকিস্তানের দ্বিপক্ষীয় বিষয়। জাতিসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব ও শিমলা চুক্তি মেনে সেই সমস্যা তাদেরই মেটাতে হবে। কিন্তু কাশ্মীরের মানবাধিকারের বিষয়টি আন্তর্জাতিক।

পার্লামেন্টে লেবার, কনজারভেটিভ, এসএনপি এমপি’রা কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপের পরে উপত্যকার পরিস্থিতি নিয়ে সোচ্চার হন। লেবার এমপি হিউ গ্যাফনি বলেন, কাশ্মীরে ওষুধের সঞ্চয় কমছে। হাসপাতালে চিকিৎসা হচ্ছে না। উপত্যকায় ৯০ শতাংশের বেশি ওষুধপত্র আসে ভারতের মূল ভূখ- থেকে।

আরেক লেবার এমপি পল ব্লমফিল্ড জানতে চান, কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ফিরিয়ে দিতে জাতিসঙ্ঘ ও কমনওয়েলথের মাধ্যমে ভারতের উপরে চাপ বাড়ানো হবে কি না।

কনজারভেটিভ এমপি শেরিল গিলান বলেন, তাঁর নির্বাচনী কেন্দ্রের অনেকেই কাশ্মীরের জনবিন্যাস পাল্টে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন।

গ্লাসগোর এমপি অ্যালিসন থিউলিস স্কটল্যান্ডের কাশ্মীরীদের উদ্বেগের কথা জানান।

৩৭০ ধারা বিলোপ প্রসঙ্গে কনজারভেটিভ এমপি বব ব্ল্যাকম্যানের এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব বলেন, ‘লোকজনকে আটক, নির্যাতন ও যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন করা নিয়ে প্রচুর খবর ঘুরছে। ভারতের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতাকে মান্যতা দিয়েও ‘মানবাধিকার রক্ষা’র বিষয়টিতে জোর দেয়া হচ্ছে।’

চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফর বাতিল, যাচ্ছেন পাকিস্তানে

কাশ্মীরে ভারত সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের কারণে দেশটিতে পূর্বনির্ধারিত সফর বাতিল করেছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও স্টেট কাউন্সিলর ওয়াং ই। তবে ভারত সফর বাতিল করলেও চলতি সপ্তাহেই তিনি পাকিস্তান সফর করবেন। 

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানায়, ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের সঙ্গে সীমান্ত বিষয়ে আলোচনার জন্য ৯-১০ সেপ্টেম্বর চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নয়াদিল্লি সফরের কথা ছিল। তবে কাশ্মীরের উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে প্রতিবাদ হিসেবে তিনি এ সফর বাতিল করেছেন।

ভারতের সঙ্গে সীমান্ত নিয়ে দীর্ঘদিনের বিরোধ চীনের। চীনের সঙ্গে সীমান্তবিরোধ নিষ্পত্তির বিষয়ে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের সঙ্গে বিশেষ বৈঠকের কথা ছিল চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর।

এদিকে ভারত সফর বাতিল করলেও চলতি সপ্তাহেই পাকিস্তান আসছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও স্টেট কাউন্সিলর ওয়াং ই। ইসলামাবাদে চীন,আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের মধ্যে যৌথ বৈঠকে অংশ নেবেন তিনি।

গত ৫ আগস্ট ভারত কর্তৃক জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা (স্বায়ত্বশাসন) বাতিল নিয়ে পাকিস্তানের পাশাপাশি চীনের সঙ্গেও সীমানা বিতর্কে জড়িয়েছে ভারত সরকার।

ওই ঘটনার পর চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মুখপাত্র হুয়া চুনইয়াং এক বিবৃতিতে বলেছিলেন, চীন-ভারত সীমান্তের পশ্চিম অংশে ভারতের প্রশাসনিক এখতিয়ারের মধ্যে চীনা এলাকার অন্তর্ভুক্তি নিয়ে বরাবরই বিরোধিতা করে আসছে বেইজিং। ভারত অভ্যন্তরীণ আইন একতরফা সংশোধন করায় চীনের আঞ্চলিক সার্বভৌমত্ব ক্ষুণ্ণ হচ্ছে, যা গ্রহণযোগ্য নয়।

সম্প্রতি দেশের অভ্যন্তরীণ আইন সংশোধনের মধ্য দিয়ে ভারতীয় পক্ষ একতরফা চীনের আঞ্চলিক সার্বভৌমত্ব ক্ষুণ্ণ করে যাচ্ছে।

হুয়া বলেন, কাশ্মীরের বর্তমান অবস্থা নিয়ে চীন গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। তিনি বলেন, আমরা পাকিস্তান ও ভারতকে বিরোধীয় অঞ্চল নিয়ে শান্তিপূর্ণ সমাধানের আহ্বান জানাচ্ছি। চীন ভারতকে সীমান্তের সমস্যাটিকে আরও জটিল করে তোলে এমন কোনো পদক্ষেপ এড়ানোর জন্য অনুরোধ করেছিল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ