বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ী

তাড়াশ : গ্রাম বাংলার পুরাতন ঐতিহ্য গরুর গাড়ী আর তেমন দেখা যায় না। ওকি গাড়ীয়াল ভাই কত রইব আমি পন্থের দিকে চাইয়ারে ”-জনপ্রিয় এই গান টি এখন ও শোনা গেলে ও চলনবিলে আর তেমন গরুর গাড়ী চোখে পড়ে না। গাড়ীতে বউ সাজিয়ে নিয়ে যাওয়া তেমন দেখা যায় না। ১৮ থেকে ২০ বছর আগেও গরুর গাড়ী ছাড়া বিয়ে হত না, গাড়ীতে বর, কনে সাজিয়ে যখন রাস্তার মধ্যে রওয়ানা হত তখন নতুন বউকে এক নজর দেখার জন্য ভিড় পড়ে য়েত। সে সব বর, কনে, ও বরযাত্রীদের যাতায়াত কল্পনাই করা যায় না। তাড়াশ উপজেলার হামকুড়িয়া গ্রামে আলহাজ খোদা বক্স সরকারের গাড়ী ছিল বর,কনে বিয়ের গাড়ী সবার জন্য উন্মুক্ত। এক এলাকা থেকে অন্য এলাকা যাতায়াত, হাট বাজারে পন্য বহন গরুর গাড়ী ছিল এক মাত্র বাহন। ফসল ঘরেতোলা বা বাজার জাত করা জমির ধান কাটার পর সেই ধান আনা সব কাজেই গাড়ী বাবহার করা হত। গ্রাম বাংলার কৃষকের ঘরে ঘরে শোভা পেতো নানা ডিজাইনের গরুর গাড়ী। এসব গরুর গাড়ী অন্যদের মালামাল পরিবহনের জন্য ভাড়া ও দিত। যুগের পরিবর্তনে মানুষ গরুর গাড়ীর ব্যবহার বাদ দিয়ে এখন রিক্সা, ভ্যান, অটোরিক্সা, ভটভটি, লছিমন, করিমন, মাইকোবাস, কার ও বাস ট্রাকসহ ইঞ্জ্লি চালিত নানা বাহন ব্যবহার করছে। অতীত সময়ে গ্রাম বাংলার মানুষের কাছে নতুন ধান কাটার নবান্নের উৎসবের সময় গরুর গাড়ীর প্রতিযোগিতার মানে নির্মল আনন্দের উপকরণ। কার গাড়ী আগে যাবে এই প্রতিযোগিতা হত খোলা মাঠে। এই খেলাটিও হারিয়ে গেছে কালের আবর্তে। আমার ছোট বেলায় মামা, চাচা, ফুফুদের বিয়ের সময় দেখেছি বড়, কনে উভয় পক্ষই গরুর গলায় ঘন্টা লাগিয়ে টোপর উঠিয়ে নানা রংয়ের গরু ও গাড়ী সাজিয়ে গরুর গলায় ঘুগরা ও ফুলের মালা পরিয়ে বর কনে আনা নেওয়া করত। তখন বাংলা নববর্ষ বরণ শোভা যাত্রায় গরুর গাড়ী দেখা যেত। কালের আবর্তে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ী চলনবিল থেকে হারিয়ে যাচেছ। এখন আমাদের প্রবীণদের কাছে এসব শুধুই স্মৃতি। দ্রুত বয়ে চলা সময়ের সাথে ঘুগরার বাজনা আর সারি বদ্ধ গরুর গাড়ী সে এক অপরুপ শোভা। তা দেখতে গ্রামের নারী পুরুষরা বাড়ী থেকে বেড়িয়ে আসত রাস্তার ধারে। এমন দৃশ্যের কথা এখন ভাবাই যায় না। বাংলা নববর্ষ এলেই এদেশের মানুষ নিজেদের বাঙ্গালী প্রমান করার জন্য গ্রামিন জীবনের তাল মিলাতে গিয়ে গ্রামীন ইতিহ্য ভুলে এখন গ্রাম্য মানুষজন ও হয়ে যাচ্ছেন যান্ত্রিক। এ কারণে শহরের ছেলে মেয়েরা দূরের কথা বর্তমানে গ্রামের অনেক ছেলে মেয়েরাও গরুর গাড়ী শব্দটির সাথে পরিচিত নয়।
ভবিষ্যত প্রজন্মকে গরুর গাড়ী যাদু ঘরে গিয়ে দেখতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ