শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

তাড়াশকে দারিদ্র্য ও মাদক মুক্ত এলাকা হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি -প্রফেসর ডা: আ: আজিজ এমপি

তাড়াশ : সম্প্রতি তাড়াশ রায়গঞ্জ সলঙ্গা আসনের সংসদ সদস্য ডা: আ: আজিজ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর এলাকার সর্বস্তরের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সভা সমাবেশ মিটিং যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন এ ব্যাপারে দৈনিক সংগ্রামের সাথে এক বিশেষ সাক্ষাতকারে তাড়াশ রায়গঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন সমস্যা উন্নয়ন ও সম্ভাবনা সর্ম্পকে কথা বলেন।
উপজেলার সমস্যা উন্নয়ন ও সম্ভাবনা সর্ম্পকে কিছু বলুন?   
এমপি : চলনবিল অধ্যুষিত তাড়াশ উপজেলা নিচু এলাকা,ফলে এই এলাকার কিছু কিছু গ্রামের রাস্তা, ঘাটের যোগাযোগ ব্যবস্থা খারাপ। আমার নির্বাচনী এলাকা তাড়াশ, রায়গঞ্জ, সলঙ্গা মোট ১৭টি ইউনিয়ন রয়েছে। এদের মধ্যে ৩৪ হাজার হতদরিদ্র মানুষ অতি কষ্টে দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাস করে। এই ৩৪ হাজার পরিবারের জন্য একটি করে নিরাপদ বাড়ী, ও একটি করে গাভী পালনের জন্য ব্যবস্থা করা হবে। যাতে করে ঐ সকল পরিবার সবলম্বী হতে পারে। অর্থনৈতিক উন্নয়ন, সামাজিক উন্নয়ন, শিক্ষাও সাংস্কৃতি উন্নয়ন গড়ে তুলবো। নদ নদী খাল খনন কর্মসূচির মাধ্যমে কৃষকদের মুক্তি এই চলনবিলের উন্নয়ন তরান্বিত করব। তিনি বলেন অবহেলিত তাড়াশকে পৌরসভায় রূপান্তরিত করেছি এখন সর্বশ্রেণীর মানুষের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করব। চলনবিলে একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার চেষ্টা চলছে। একটি শিশু হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করা হবে। উপজেলার শিক্ষার মান ভাল নয় এবং ভাল মানের স্কুল কলেজ নেই। জনসংখ্যা বৃদ্ধি বেশী । উপজেলা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক গুলো মেরামত ও পাকাকরন করা হবে। তরুণ সমাজ কে বিপথগামী থেকে রক্ষা করার জন্য দুইটি খেলার মাঠ চালু করা হবে। যাতে যুব সমাজ মদ গাঁজা, বেহায়াপনা ও সন্ত্রাস থেকে দূরে থাকতে পারে। সে জন্য ভলিবল, ফুটবল, ক্রিকেট টুর্নামেন্টর আয়োজন করে বিপথগামী ছেলে মেয়েদের বিনোদনের ব্যবস্থা করা হবে। তাড়াশ হাসপাতাল কে ৫০ শয্যা উন্নতি করেছি আধুনিক ও মডেল হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করছি। সলঙ্গায় একটি ইসলামী ব্যাংক স্থাপন করা হয়েছে। এলাকায় বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হবে। আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থার জন্য এই এলাকার মানুষের উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করব। চলনবিলে বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র গড়ে তুলব। সবার জন্য উন্মুক্ত মুক্ত মঞ্চ তৈরি করে জবাবদিহিতার জন্য সর্বদা প্রস্তুত থাকবো। এলাকার হাট বাজারগুলোর উন্নয়ন করা হবে। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করা, বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুষম বন্টন নিশ্চিত করা, বন্যা পূর্নবাসন কাজ করা। অফিস সমূহে কাজের গতি বৃদ্ধি করা। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, ও বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উন্নয়নমূলক কাজ করা হবে। চলনবিলের প্রাণকেন্দ্র এই উপজেলার হামকুড়িয়া চৌরাস্তা বাজার ও মহিষলুটি মৎস্য শিল্প এবং হিমাগার স্থাপন করে মৎস্য সম্পদ ও কৃষি সম্পদ সংরক্ষণের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। হাটিকুমরুল বনপাড়া মহাসড়কের হামকুড়িয়ার ৮ এবং ৯ নং ব্রীজের মাঝে পর্যটন শিল্প’ও বিনোদনমূলক পার্ক গড়ে তুলব।
সাংবাদিক : সার আপনি অবহেলিত এই জনপদের মানুষের উন্নয়ন এবং কিভাবে জনগণের পাশে থাকবেন?
এমপি : আমি আমার এলাকার সর্বস্তরের জনগণের সাথে পরামর্শ করে এমনকি আমার জীবন দিয়ে হলেও সকলের উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাব। আল্লাহ যেন আমাকে এ সকল কাজ করার তৌফিক এনায়েত করেন। আমিন।
সাংবাদিক : সার আপনাকে ধন্যবাদ
এমপি : আপনাকেও ধন্যবাদ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ