বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর ২০২১
Online Edition

বাড়তি ভাড়ায় ঢাকায় ফিরলো মানুষ ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয়ে বিক্ষুব্ধ যাত্রীরা

স্টাফ রিপোর্টার : ঈদের ছুটি শেষে বাড়তি ভাড়ায় রাজধানীতে ফিরলো মানুষ। সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল ও কমলাপুর ট্রেন স্টেশনে ঢাকা ফেরত মানুষের ভিড় ছিল গতকাল ভোর থেকেই। ভোর রাত থেকে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে একে একে ভিড়তে থাকে বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা, বরগুনাসহ দক্ষিণাঞ্চল থেকে ছেড়ে আসা লঞ্চগুলো। কালোবাজারির মাধ্যমে লঞ্চের কেবিনের মূল্য বেশি রাখার অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা।
এদিকে, ঈদের আগে, ঢাকা ছাড়ার মতো রাজধানীতে ফিরতেও ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়ের ক্ষুব্ধ যাত্রীরা। খুলনা, রাজশাহী, রংপুর, দিনাজপুর, নীলফামারী ও লালমনিরহাটসহ উত্তর পশ্চিমাঞ্চলের কোন ট্রেন আসেনি সময় মেনে। তিন থেকে ১০ ঘন্টা দেরিতে পৌঁছা ট্রেনগুলোতে ঢাকায় ফেরা মানুষকে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে।
এদিকে জীবন জীবিকার জন্য মানুষ ফিরতে শুরু করায় চিরচেনা রূপে ফিরতে শুরু করেছে রাজধানী ঢাকা। ঈদুল আজহার ছুটি শেষে রাজধানীতে ফিরছেন কর্মজীবী মানুষেরা। গত কয়েক দিনের তুলনায় শনিবার ঢাকার সড়কের চেহারা ছিল অনেকটাই আলাদা। সকাল থেকেই গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে যানবাহনের ছোট ছোট জটলা দেখা গেছে।
ঈদে যারা ঢাকায় ছিলেন, গত কয়েকটা দিন ঘোরাফেরা করেছেন স্বাচ্ছন্দ্যে। ফাঁকা রাস্তায় ছিল না নিত্য যানজটের দুর্ভোগ। তবে, ধীরে ধীরে সে রূপে ফিরতে শুরু করেছে ঢাকা। দেশের নানা প্রান্ত থেকে ঈদ শেষে রাজধানীতে ছুটে আসছেন কর্মজীবী মানুষজন।
অনেকেই বলছেন, শনিবার থেকে বেসরকারি অফিস শুরু হলেও, মূলত আজ রোববার থেকেই পুরোদমে কর্মব্যস্ত হয়ে পড়বে ঢাকা। এদিন, ছুটি শেষে যেসব অফিসে কার্যক্রম শুরু হয়েছে, সেখানেও ছিল ঈদের আমেজ। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত জাহাঙ্গীর আলম বলেন, শনিবার থেকেই আমরা অফিসে কাজ শুরু করেছি। মোটামুটি সবাই কর্মস্থলে এসেছেন। তবে, অফিসে আজও ঈদের আমেজ বিরাজ করছে।
এদিকে, গত কয়েকদিনের চেয়ে ঢাকার প্রধান সড়কে যানবাহন ও মানুষের ভিড় অনেক বেড়েছে। এছাড়া রেল, বাস ও লঞ্চ টার্মিনালগুলোতেও রাজধানীমুখী মানুষের সংখ্যা অন্য দিনের তুলনায় চোখে পড়ার মতো।
গতকাল সকালে কমলাপুর রেলস্টেশনে দেখা যায়, ঈদের ছুটি কাটিয়ে ফিরছেন অসংখ্য মানুষ। তবে, ঈদের আগে যেমন ঢাকা ছাড়ার তাড়া থাকে, এর বিপরীতে অনেকটা ধীরেসুস্থেই ফিরতে দেখা গেছে সবাইকে। আবার যারা ঈদে ঢাকাতেই ছিলেন, তাদের অনেকেই ঈদ-পরবর্তী ছুটি কাটাতে শহরের বাইরে যাচ্ছেন। বাস টার্মিনালগুলোতে ছিল একই চিত্র। পরিবার-পরিজন নিয়ে ঈদের ছুটি কাটিয়ে আবার ঢাকায় ফিরছেন নগরবাসী।
বাড়তি ভাড়া নেয়ার অভিযোগ : ঈদ শেষে ঢাকামুখী মানুষের উপচেপড়া ভিড়ের দেশের বিভিন্নস্থানে বেশি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ফেরি ও লঞ্চ ঘাটে বাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করছেন যাত্রীরা। ঢাকাগামী যাত্রী সৌমিত্র ঘোষ বলেন, “প্রজাপতি পরিবহনের একটি বাসের স্টাফ তার কাছে পাটুরিয়া ঘাট থেকে গাবতলী যেতে ১২০ টাকার পরিবর্তে চান ৩০০ টাকা। তিনি অতিরিক্ত ভাড়া দিতে না চাইলে বাসের স্টাফ তাকে ঘার ধাক্কা দিয়ে বাস থেকে নামিয়ে দেন।”
রাজবাড়ী জেলার শারমীন আক্তার বলেন, “তার কাছ থেকে নবীনগর যেতে ২০০ টাকা ভাড়া চেয়েছেন আশুলিয়া গ্যালাক্সি পরিবহনের একটি বাসের স্টাফ।” সাভারগামী যাত্রী আখতার হোসেন বলেন, “বিআরটিসি বাসের স্টাফ তার কাছে ভাড়া চেয়েছেন ২০০ টাকা। পাটুরিয়া থেকে সাভারের প্রকৃত ভাড়া ৮০ টাকা।”
জেলা প্রশাসক এস এম ফেরদৌস বলেন, “অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন পরিবহনের বাসকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের কারণে আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকায় একজন বাস চালককে সাত দিনের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ