সোমবার ২৯ নবেম্বর ২০২১
Online Edition

মুক্ত হবে ইরানী জাহাজ : সান পত্রিকা 

১৫ আগস্ট, দ্য সান, রয়টার্স : ভূমধ্যসাগরে ব্রিটিশ রয়েল মেরিনের সহায়তায় জব্দ করা একটি ইরানি তেল ট্যাংকার ছেড়ে দিতে যাচ্ছে যুক্তরাজ্য অধিকৃত জিব্রাল্টার কর্তৃপক্ষ। জিব্রাল্টারের মুখ্যমন্ত্রী ফাবিয়ান ফিকার্ডোর ঘনিষ্ঠ সূত্রের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ পত্রিকার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, জুলাইয়ে জব্দ করা ট্যাংকারটি গতকাল বৃহস্পতিবার ছেড়ে দেয়ার কথা। 

গত ৪ জুলাই যুক্তরাজ্য নিয়ন্ত্রিত জিব্রাল্টার প্রণালী থেকে ইরানি তেলবাহী সুপার ট্যাংকার গ্রেস-ওয়ান জব্দ করে ব্রিটিশ মেরিন সেনারা। ইতোমধ্যেই জাহাজের সব ক্রুকে মুক্তি দিয়েছে জিব্রাল্টার কর্তৃপক্ষ। জব্দ করার পর থেকে ইরান ও ব্রিটেনের মধ্যে কূটনৈতিক অচলাবস্থা দেখা দিয়েছে। ব্রিটেন দাবি করছে, অপরিশোধিত তেল নিয়ে সিরিয়ার উদ্দেশ্যে যাওয়ার সময় জাহাজটি জব্দ করা হয়। তবে ইরান বলছে জাহাজটি সিরিয়ায় যাচ্ছিল না এবং সিরিয়ার কোনও বন্দরেই এ ধরনের জাহাজ ভিড়তে পারে না।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন বলা হয়েছে, পিকার্ডো ইরানি তেলবাহী সুপার ট্যাংকার গ্রেস-ওয়ান জব্দ রাখার আদেশের জন্য নতুন কোন আবেদন করবেন না। তিনি এখন সন্তুষ্ট যে, তেলের ট্যাংকারটি আর সিরিয়ায় যাচ্ছে না।

পিকার্ডোর ঘনিষ্ঠ সূত্র উদ্ধৃত করে পত্রিকাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘সিরিয়া সরকারের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করছে গ্রেস-ওয়ান; এমনটা যদি আমরা আর বিশ্বাস না করি তাহলে তেল ট্যাংকারটি আর এক মুহূর্তও বেশি রাখার কারণ নেই।’

টর কয়েকটি রাজ্যের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে উঠেছে। সে সময় নর্থ রাইন ওয়েস্টফেলিয়া কর্তৃপক্ষের তৈরি করা একটি অ্যাপে দেখা গেছে, ওই রাজ্যে খাবার পানির যথেষ্ট মজুদ নেই। একই ঘটনা ঘটেছে লোয়ার স্যাক্সনিতেও। 

লোয়ার স্যাক্সনি রাজ্যের পরিবেশবাদী সংগঠন লুটস নয়েবাউয়ার বলছে, জার্মানির পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে প্রতিবছর পানির স্তর ১.৫ থেকে ২ সেন্টিমিটার করে নেমে যাচ্ছে। আর তাতেই ওই এলাকায় ধীরে ধীরে খাবার পানির সঙ্কট তৈরির আশঙ্কা জাগছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যথেষ্ট বৃষ্টি না হওয়ায় এ সঙ্কট আরো বাড়ছে। তীব্র গরমে পানির চাহিদা বেড়ে গেছে। মানুষের প্রয়োজনে ও গাছপালায় দিতে বেশি পানি লাগছে। গরমের কারণে নর্থ রাইন ওয়েস্টফেলিয়া রাজ্যে অনেকেই তাদের সুইমিং পুলের পানি বার বার পরিবর্তন করেছেন। 

সুইমিং পুলে বিশুদ্ধ পানি ব্যবহারের কারণে ওই রাজ্যে বেশ কয়েকজনকে জরিমানাও করেছে কর্তৃপক্ষ। 

বাড়ছে কৃষিকাজে পানির ব্যবহার

কয়েক বছর ধরে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কমে যাওয়া কৃষকেরাও তাদের জমিতে পাইপে সরবরাহ করা বিশুদ্ধ পানির ব্যবহার বাড়িয়ে দিয়েছে। 

জার্মানির পরিবেশ বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইউবিএ-এর বিশেষজ্ঞ ইয়র্গ রেচেনব্যার্গ বলেন, ‘‘পানির জন্য প্রতিযোগিতা তৈরি হয়েছে। আর তাই আমাদের ভাবতে হবে কীভাবে এ পানির সঙ্কটট মেটানো যায়। ''

গ্রীষ্মকালীন উষ্ণ তাপমাত্রা এবং কম বৃষ্টিপাতের কারণে কৃষকরা ভূগর্ভের পানি ব্যবহার বাড়িয়েছে। কৃষিকাজে পানির সঙ্কট বাড়ার উদাহরণ দিতে গিয়ে লুটস নয়েবাউয়ার নামের সংগঠনটি জানায়, সাম্প্রতিক সময়ে লোয়ার স্যাক্সনি রাজ্যের অনেক কৃষক কর্তৃপক্ষের কাছে ভূগর্ভের পানি ব্যবহারের অনুমতি চাইছে। 

বৃষ্টির পানি ব্যবহারের পরিকল্পনা

লোয়ার স্যাক্সনির লোহনে শহরের মেয়র টবিয়াস গের্ডেসমেয়ার বলেন, কৃষকরা ধীরে ধীরে ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহারের দিকে ঝুঁকছে। এমনকি খামারিরাও পানির সংকট মোকাবেলায় ভূগর্ভের পানি ব্যবহার করার কথা ভাবছে। 

এ সঙ্কট মোকাবেলায় নতুন কোনো পদ্ধতি খুঁজে বের করার ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, বৃষ্টির পানি জমিয়ে রাখার জন্য তারা বড় আকৃতির বেসিন তৈরির পরিকল্পনা করছেন। 

জার্মানির পশ্চিমাঞ্চলীয় এলাকাগুলোতে পানি সরবরাহের দায়িত্বে রয়েছে ওল্ডেনবুর্গ-ইস্ট ফ্রিসিয়ান ওয়াটার অ্যাসোশিয়েসন নামের একটি প্রতিষ্ঠান। লোয়ার স্যাক্সনি অঞ্চলে প্রতিষ্ঠানটির প্রায় দশ লাখ গ্রাহক রয়েছে যার অর্ধেকেরই বেশি হলো ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান। 

তারা বলছে, গত জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে জার্মানিতে গত ৭১ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি পানির ব্যবহার হয়েছে। 

পানি বিশেষজ্ঞ রেচেনব্যার্গ মনে করেন, পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছায়নি যে আতঙ্কিত হতে হবে। তবে সময়ের সাথে সাথে নতনু উদ্ভাবনী ব্যবস্থা নিতে হবে যাতে পানির সঙ্কট গভীর না হয়। 

কয়েক মাস আগে জার্মানির পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ‘পানির ভবিষ্যৎ’ শিরোনামে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার প্রতিনিধিরা তাতে অংশ নিয়ে সঙ্কট মোকাবেলায় দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা করার ওপর জোর দেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ