মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

প্রধান শিক্ষককে বরখাস্ত করায় শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

তাড়াশ সিরাজগঞ্জ থেকে শাহজাহান : সিরাজগঞ্জের তাড়াশে রানীহাট সিরাজগঞ্জ বাজার দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফরিদুল ইসলামকে বরখাস্তের প্রতিবাদে অনির্দিষ্ট কালের জন্য ক্লাস বর্জন শুরু করেছে ঐ বিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থী। বিগত এক বছরের বিদ্যালয়ের আয়-ব্যয়ের হিসাব না দেওয়ার অভিযোগে গত সোমবার ঐ প্রধান শিক্ষককে বরখাস্ত করে তার কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি। সেই থেকে পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে ক্লাস বর্জন করে বিদ্যালয়ের মাঠে হাতে হাত রেখে মানববন্ধন ও বিভিন্ন শ্লোগানে বিক্ষোভ সমাবেশ করে আসছেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, “প্রধান শিক্ষককে ফিরিয়ে আনুন, নয়তো ক্লাসে ফিরবোনা” ছাত্র-ছাত্রীদের এমন স্লোগানে তাদের অভিভাবকরাও হতাশ হয়ে পড়েছেন। দ্রুতই শিক্ষকের বরখাস্ত আদেশ প্রত্যাহার করে বিদ্যালয়ের সুষ্ঠ পরিবেশ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন তারাও। 

শিক্ষার্থী সানজানা খানম ইশা, আদরি, জান্নাতি, বেলী, লাকি, ইশিতা, সাদিয়া, নুরজাহান, আনিকা, রিফাত হোসেন, সৌরভ, শিফাত, ওয়াদুদ প্রমূখ বলেন, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি সম্পূর্ণ অনৈতিকভাবে প্রধান শিক্ষককে বরখাস্ত করে তার কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন। প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে যিনি বিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নের জন্য নিরলসভাবে চেষ্টা করে চলেছেন তাঁরই বিরুদ্ধে এমন মিথ্যে অভিযোগ আর অন্যায় তারা কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না। 

অভিভাবক সদস্য মিজানুর রহমান, তাজেল ইসলাম, আব্দুস সালাম, আব্দুর রাজ্জাক, আছাদুল ইসলাম, ছাইদুল ইসলাম, আব্দুল হালিম, আবু সাইদ প্রমূখ বলেন, পরিচালনা কমিটির এমন হটকারী সিদ্ধান্তে বিদ্যালয়ের পরিবেশ একদমই অশান্ত হয়ে উঠেছে। চারদিন যাবৎ তাদের সন্তানরা লাগাতার ক্লাস বর্জন করে রোদ-বৃষ্টির মধ্যে শ্রেণি কক্ষের বাইরে অবস্থান করছেন। এভাবে চলতে থাকলে পড়ালেখার অপুরণীয় ক্ষতি হয়ে যাবে।

রানীহাট সিরাজগঞ্জ বাজার দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফরিদুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বিদ্যালয় পরিচালনার বর্তমান কমিটির মেয়াদ রয়েছে মাত্র দের মাসের মতো। নিজেদের ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখতেই তাকে পরিকল্পিতভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। 

রানীহাট সিরাজগঞ্জ বাজার দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি বাবলু প্রামানিক জানান, বিগত এক বছরের বিদ্যালয়ের আয়-ব্যয়ের হিসাব না দেওয়ার কারণে প্রধান শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে ছাত্র-ছাত্রীদের স্বার্থে আগামী শনিবার শিক্ষক ও অভিভাবকদের সাথে বসে আলোচনার মাধ্যমে এসবের একটা সুষ্ঠ সমাধানের চেষ্টা করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ