সোমবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

চলনবিলের দেশসেরা কুরবানির গরু ৪২ মণ ওজনের টাইগার

শাহজাহান (তাড়াশ) সিরাজগঞ্জ থেকে : কুরবানির জন্য খামারীরা গরু মোটাতাজা করণে ব্যস্ত সময় পার করছেন। কে কত বড় মোটাতাজা করতে পারে এই নিয়ে খামারীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা চলছে। সিরাজগঞ্জ, নাটোর, পাবনা জেলার বৃহত্তর চলনবিলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হিসাবে হাজার হাজার গরুর খামার তৈরি করে বেকার যুবকরা স্বাবলম্বী হচ্ছেন। তাদের অভিযোগ ভারত থেকে অবৈধভাবে কুরবানির এই সিজনে অসংখ্য গরু আসছে। সিমান্ত দিয়ে চোরাই পথে এভাবে গরু আসলে বাজার এবারও মন্দা যাবে। তখন সারা বছরের কষ্টের শ্রম বিফলে গেলে হাজার হাজার খামারী ও বেকার যুবকেরা পথে বসে যাবে। তাড়াশ, রায়গঞ্জ, সলঙ্গা, চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, উল্লাপাড়া, সিংড়া ও গুরুদাসপুরসহ বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শনে খামারীদের গরু মোটাতাজা করতে দেখা যায়।
পাবনায় সবার দৃষ্টি কেড়েছে ৪২ মণ ওজনের ‘টাইগার’। এবারের কুরবানির পশুরহাটের প্রধান আকর্ষণ হবে টাইগার নামের এ বিশাল বপুর ষাঁড়টি। চাটমোহর উপজেলার ছোট গুয়াখড়া গ্রামের খামারী মিনারুল ইসলাম প্রামাণিক সন্তানের মতো লালনপালন করেছেন এ ষাঁড়টি। শখের বশেই গরুটির নাম দিয়েছেন ‘টাইগার’। ষাঁড়টিকে দেখতে প্রতিদিন মিনারুলের বাড়িতে ভিড় করছেন লোকজন।
মিনারুল জানান, বছর খানেক আগে প্রতিবেশী এক বন্ধুর কাছ থেকে ফিজিয়ান জাতের এ গরুটি কিনে আনেন তিনি। ১ লাখ ৪২ হাজার টাকায় কিনে আনা গরুটির তখন ওজন ছিল ১৫ থেকে ১৬ মণ। দেশি খাবার খাইয়ে স্থানীয় পদ্ধতিতে গরুটি মোটাতাজা করা হয়েছে। এখন গরুটি দৈর্ঘ্যে ৯ ফুট আর উচ্চতায় সাড়ে ৫ ফুট। গরুটির ওজন ৪২ মণেরও বেশি।
কালো ও সাদা রঙ মিশ্রিত সুঠাম দেহের অধিকারী গরুটি এখন কৃষক মনিরুলের আশা-ভরসার প্রতীক। ‘টাইগার’কে ৩০ লাখ টাকায় বিক্রি করতে ইচ্ছুক তিনি।
মিনারুলের স্ত্রী জাকিয়া সুলতানা জানান, স্বামীর সঙ্গে তিনিও গরুটির দেখাশোনা করেন। এ কাজে সহায়তা করেন চারজন রাখাল। গরুটির দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা বারেক মোল্লা বলেন, আমি এত বড় গরু আর কোনো দিন লালনপালন করিনি। গরুটির স্বভাব খুবই ভালো। তবে বেশি লোকের ভিড় দেখলে খেপে যায়।
গরুটি দেখতে আসা স্থানীয় মাতুব্বর গাজিউর রহমান ও প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক আলতাফ হোসেন জানান, টাইগার আমাদের গ্রামের গর্ব। এত বড় গরু আমরা আগে জেলার মধ্যে দেখিনি। গরুটির ন্যায্য দাম মিললে আগামীতেও অনেক খামারী দেশি পদ্ধতিতে গরু মোটাতাজাকরণে উৎসাহিত হবেন।
পাবনা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. আল মামুন হোসেন জানান, সাড়ে ৪২ মণ ওজনের ‘টাইগার’ নামের গরুটি এবারের কুরবানির পশুরহাটের অন্যতম আকর্ষণ। তিনি জানান, এবারের কুরবানির জন্য পাবনা জেলার ৯টি উপজেলায় ২০ হাজারেরও অধিক খামারে গরু, ছাগল, ভেড়া, মহিষ মিলিয়ে ২ লাখ ১৮ হাজার পশু প্রস্তুত করা হয়েছে। ফলে জেলার চাহিদা মিটিয়ে দেশের অন্যত্র সরবরাহ করা সম্ভব। এ পশুগুলো খামারিরা সম্পূর্ণ দেশি পদ্ধতিতে মোটাতাজা করেছেন। এ পদ্ধতিতে কোনো ক্ষতিকারক রাসায়নিক বা ওষুধ প্রয়োগ করা হয়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ