শনিবার ২৩ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

ধর্ষণ থামছে না: ধর্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

* প্রতিবন্ধী শিশুকে বলাৎকার
* সালিশে রফাদফা করার চেষ্টা
* ১১ সংগঠনের প্রতিবাদ
ফরিদপুর সংবাদদাতা: ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় ৫ম শ্রেণির এক স্কুলশিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দিবাগত রাতে রাতে বহুলুল বিশ্বাস (২৮) নামের ওই যুবককে সোনাপুর ইউনিয়নের বাংরাইল গ্রামের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। বহুলুল ওই গ্রামের আফছার বিশ্বাসের ছেলে। সে বিবাহিত এবং দু’টি সন্তান রয়েছে তার। পুলিশ জানায়, স্থানীয় একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে শুক্রবার বিকেলে ধর্ষণ করে বহুলুল। মেয়েটি তার বাড়ির গোসলখানায় গেলে গলায় কাঁচি ঠেকিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে সে। এ ঘটনায় ওই শিশুটির মা বাদি হয়ে সালথা থানায় একটি মামলা দায়ের করার পর বহুলুলকে আটক করা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার ঐ স্কুল ছাত্রীর বাবা বলেন, মেয়েটির চিৎকার শুনে ওর মা ছুটে এলে তাঁকে আটকাতে যায়। এসময় সে আমার স্ত্রীকে লাথি মেরে ফেলে দিয়ে পাট ক্ষেতের ভিতর দিয়ে পালিয়ে যায়। আমার ছোট বাচ্চাটির সাথে যে অমানুষিক নির্যাতন করা হয়েছে আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দেলোয়ার হোসেন খান বলেন, ধর্ষণের শিকার শিশুকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আর অভিযুক্ত বহুলুল বিশ্বাসকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর): দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে ধর্ষণের চেষ্টা মামলায় অভিযুক্তকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।  উপজেলার ২নং বিনোদ নগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ মনোয়ার হোসেন জানান শুক্রবার সকালে নন্দনপুর গ্রামে ১৪বছরের এক মেয়ের সাথে একই গ্রামের আমিরুল ইসলামের পুত্র সাকিবুল ইসলাম শুভ(১৯) কৌশলে ওই মেয়েকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে এক পর্যায়ে মেয়েটির আত্মচিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে অভিযুক্ত শুভকে হাতে নাতে আটক করে থানা পুলিশের হাতে দেয়।পরে মেয়ের নানী আলেয়া বেগম বাদী হয়ে সাকিবুল ইসলাম শুভকে অভিযুক্ত করে নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণের অপরাধে নবাবগঞ্জ থানায় ১৯ শে জুলাই মামলা দায়ের করেন ওই মামলায় অভিযুক্তকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে উপ-পরিদর্শক এস আই শাহিনুর ইসলাম জানান। থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত ) মোঃ শামসুল আলম জানান সঠিক ও নিরপেক্ষ তদন্ত শেষে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।
ফুলবাড়ী (দিনাজপুর): দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে গত শনিবার প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষণ ও সালিশের নামে ঘটনা ধামাচাপা প্রদানকারিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং ধর্ষকের মৃত্যুর দাবিতে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। উপজেলা শাখা সচেতন নাগরিক সমাজের (সনাস) উদ্যোগে স্থানীয় নিমতলামোড়স্থে সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী মানবন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। সচেতন নাগরিক সমাজের (সনাস) চেয়ারম্যান আরিফ খান জয়ের সভাপতিত্বে ও ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক আল আমিনের সঞ্চালনায় আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্টা সিনিয়র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জাকির হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান ইমাম রেজা আদর, মহাসচিব হামিদুল ইসলাম, ডেনিয়াল হাফিজ, সোহেল খান, ফুলবাড়ী থানা প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. আফজাল হোসেন, ফুলবাড়ী প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক প্লাবন শুভ, সাংবাদিক রজব আলী, মেহেদী হাসান উজ্জ্বল প্রমুখ। বক্তারা বলেন, চতুর্থ শ্রেণির বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণ ও সালিশের নামে ধামাচাপা দেওয়া ও সালিশে ধর্ষিতার পিতাকে দেওয়ার নামে অর্ধেক টাকা ভাগবাটোয়ারার  ঘটনার সাথে জড়িত কথিত দুই সাংবাদিকসহ সালিশকারিদের দ্রুত আইনের আওতায় আনাসহ ধর্ষকের মৃত্যুদ-ের দাবি জানান। তারা আরো বলেন, কথিত দুই সাংবাদিক এখন পর্যন্ত ধরা ছোঁয়ার বাহিরেই রয়েছে। তাদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় এনে সাংবাদিকতার নামে অপসাংবাদিকতা দুরকরণের দাবি জানান। উল্লেখ্য, গত ৩ জুলাই উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের রামভদ্রপুর আবাসনের বাসিন্দার চতুর্থ শ্রেণির বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী শিশুকন্যাকে একই আবাসনের বাসিন্দা মেহেদুল মন্ডল (৪৭) ধর্ষণ করে। পরে ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম বাবলু, গ্রাম পুলিশ আব্বাস আলী, আবাসনের বাসিন্দা সুজন মোল্লাসহ কয়েক ব্যক্তি সালিশের নামে ঘটনাটি ধামাপাচা দিতে ১৪ হাজার টাকায় আপোষরফা করে ধর্ষিতা শিশুর পিতা ৯ হাজার টাকা এবং বাকী টাকা সালিশকারিরা ভাগবাটোয়ারা করে নেন। গত বুধবার (১০ জুলাই) দৈনিক ইত্তেফাক ও গত বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) দৈনিক সংবাদ পত্রিকায় এ সংক্রান্ত পৃথক দুইটি সংবাদ প্রকাশ হলে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন নড়েচড়ে বসে এবং ওইদিনই ধর্ষক মেহেদুল মন্ডলসহ সালিশকারিদের অন্যতম সুজন মোল্লাকে আটক করে। একইদিন ধর্ষিতা শিশুর মা বাদী হয়ে ৭জনকে আসামী করে থানায় একটি দায়ের করেছেন। প্রশাসন কি ব্যবস্থা নিয়েছেন হাইকোর্ট তা জানতে চেয়েছেন।
নারায়ণগঞ্জ: নারী ও শিশুদের উপর যৌন নির্যাতন, হত্যা , গুম বন্ধ ও ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে খেলাঘর আসর ও নারায়ণগঞ্জ গার্লস প্রায়োরিটি সহ এগারোটি সংগঠন একযোগে মানবন্ধন করেছে। শনিবার সকাল দশটা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবসহ আশপাশের এলাকায় এসব মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করা হয়। ধর্ষণ প্রতিরোধ ও ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে নারায়ণগঞ্জ গার্লস্ প্রায়োরিটি সংগঠনের কর্মীরা। এসময় তারা বলেন, পত্রিকার পাতা খুললেই দেখি দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছোট ছোট শিশু থেকে শুরু করে নারীরা ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। বাস, ট্রেন, হাসপাতাল, স্কুল কলেজ, মাদ্রাসায়ও শিশুরা নিরাপদ নয়। কিন্তু ধর্ষকদের সেভাবে শাস্তি হচ্ছেনা। তারা  ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদন্ড দাবি করে বলেন, আইনের মাধ্যমে ধর্ষকের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি নিশ্চিত করা গেলেই ধর্ষণ সমাজে কমে আসবে।  তারা একই সাথে স্কুল কলেজ, মাদ্রাসায় যাতে শিশুরা নিরাপত্তায় থাকে তার ব্যবস্থা করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান। এদিকে একই সময়ে আনন্দময় শৈশব এবং সুখি সুন্দর বাংলাদেশে ক্রমবর্ধমান নারী ও শিশু  নির্যাতন  হত্যা, গুম বন্ধের দাবিতে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের বিপরীত পাশে মানববন্ধনের আয়োজন করে খেলাঘর আসরের নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা। এসময় বক্তব্য রাখেন জেলা খেলাঘর আসরের সভাপতি রথিন চক্রবর্তী, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহাববুর রহমান মাসুম, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রফিউর রাব্বি, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি ভবানী শংকর রায়, সাধারণ সম্পাদক ধীমান সাহা জুয়েলসহ সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ। মানবন্ধনে ধর্ষণের বিচার দ্রুত সম্পন্ন করে করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানানো হয়।
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে এক মানুষিক প্রতিবন্ধি শিশু (৯) কে টাকার প্রলোভন দেখাইয়া পায়ুপথে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশ আকাশ(১৬) কে গ্রেফতার করেছে। ঘটনাটি ১৯ জুলাই শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলার আড়াইহাজার কৃষ্ণপুরা আলিয়া মাদ্রাসার টয়লেটের সাথে ফাঁকাস্থনে ঘটেছে। গ্রেফতারকৃত আকাশ আড়াইহাজার পৌরসভাধিন মুকুন্দী এলাকার নবী হোসেনের ছেলে। পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, মুকুন্দী এলাকার রিক্সা চালকের মানুষিক প্রতিবন্ধি শিশু কন্যাটি আলিয়া মাদ্রাসার পাশে খেলা করার সময়ে একই এলাকার নবী হোসেনের ছেলে আকাশ প্রতিবন্ধি শিশুটিকে টাকা দেওয়ার লোভ দেখাইয়া আলিয়া মাদ্রাসার টয়লেটের পাশে খালি জায়গায় নিয়ে তাকে পায়ুপথে ধর্ষণ করে। পরে শিশুটি তার বাড়িতে এসে ঘটনাটি তার পিতা-মাতার নিকট জানায়। এ নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে দিনব্যাপী আপোষ মীমাংসার দীর্ঘ নাটকীয়তার পর অবশেষে পুলিশের হস্তক্ষেপে শুক্রবার রাতে শিশুটির মা বাদী হয়ে আড়াইহাজার থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ অভিযুক্ত আকাশকে গ্রেফতার করে। আড়াইহাজার থানার ওসি নজরুল ইসলাম জানান, শিশুটিকে প্রাথমিক ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে এবং পরবর্তী আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ