সোমবার ৩০ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

কপিলমুনিতে বোর্ডে-বোর্ডে জুয়ার আসর ॥ দেখার কেউ নেই

খুলনা অফিস : খুলনার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনিতে প্রায় প্রতিটি চায়ের দোকানে বোর্ডে-বোর্ডে জুয়ার আসর চলছে তো চলছেই। স্থানীয় প্রশাসন তৎপর না থাকায় দিন দিন কেরাম বোর্ডের জুয়ার আসর পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত এসব জুয়ার আসরে স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীসহ যুবকরা শরীক হচ্ছে। আবার কেরাম খেলার নেশায় দূর-দূরান্ত থেকে জুয়াড়ীরা এসে অংশগ্রহণ করতে দেখা যাচ্ছে। যার ফলে কপিলমুনি বাজারসহ আশপাশ এলাকায় চুরির প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এব্যাপারে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকসহ এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
কপিলমুনি বাজার ঘুরে দেখা যায়, অত্র বাজারের উত্তর প্রান্তে অবস্থিত নগরশ্রীরামপুর মোড় থেকে কাশিমনগর বাজার পর্যন্ত প্রায় শতেক খানেক প্রতিটি চায়ের দোকানে কেরাম বোর্ড রয়েছে। অনেক দোকানদার বেশি লাভের আশায় ৪ থেকে ৫টি কেরাম বোর্ড বসিয়ে নির্দিধায় কেরাম বোর্ডের জুয়া চালিয়ে যাচ্ছে। আর প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত স্কুল কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি কিশোর থেকে থেকে শুরু করে অর্ধ বয়সের যুবকরা নিয়মিত এসব জুয়া আসরে শরিক হয়ে থাকে। ফলে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছে।
এদিকে চৌরাঙ্গ-অঙ্গ বিশিষ্ট প্রতিটি হাতে গেমপ্রতি ৫০/১০০ টাকার বিভিন্ন রকম পণ্যের মাধ্যমে ভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে কেরাম বোর্ডের জুয়া চালিয়ে যাচ্ছে দোকানীরা। আবার গোপনে নগদ অর্থে শত-শত টাকা বাজী রেখে তা খুইয়ে খালি হাতে বাড়ী ফিরছে অনেকে। আর তারা নিয়মিত এসব জুয়ার আসরে শরীক হওয়ার অর্থ জোগাড় করতে গিয়ে জড়িয়ে পড়ছে নানান আপরাধমূলক কর্মকান্ডে। অবস্থাদৃষ্টে কেরাম বোর্ডের জুয়া যেন পুরো কপিলমুনি বাজারকে গ্রাস করে ফেলেছে।
এব্যাপারে নাম প্রকাশ না করার স্বার্থে শিক্ষার্থীদের এক অভিভাবক বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ প্রকাশ্যে কপিলমুনির প্রায় প্রতিটি চায়ের দোকানে কেরাম বোর্ডের জুয়া চললেও স্থানীয় প্রশাসন কেন কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনা তা আমার বোধগম্য নয়। তবে এই মুহূর্তে এসব জুয়ার আসর প্রতিহত করা না গেলে এলাকায় চুরি-ডাকাতি ছিনতাইয়ের মত অপরাধ প্রবণতা দিন দিন বৃদ্ধি পেতে পারে। পাশাপাশি যুব সমাজের অদূর ভবিষ্যতে অনিশ্চিত। সর্বশেষ এলাকাবাসী ও সচেতন মহল কপিলমুনিসহ আশপাশ এলাকা থেকে কেরাম বোর্ডের জুয়ার আসর বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট পুলিশ প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ