বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০
Online Edition

চলনবিলে গরু চুরি বৃদ্ধি রাত জেগে পাহারা

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা: সিরাজগঞ্জ নাটোর,পাবনার  মধ্যবর্তী তাড়াশ, রায়গঞ্জ, সলঙ্গা, চাটমোহর, ফরিদপুর, ভাঙ্গুড়া, গুরুদাসপুর, সিংড়াসহ গরু চুরির হিড়িক পড়েছে। কৃষকরা রাত  জেগে পাহারা দিয়েও গরু চুরি রোধ করতে পারছেনা। ঈদুল আযহা কে সামনে রেখে গ্রামগুলোতে গরু মোটাতাজা করণে ব্যস্ত খামারিরা সেইসাথে বেড়েছে গরু চুরির উৎতাপ। চলতি মাসে উল্লাপাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গরু চুরির ঘটনা ঘটেছে। খামারিরা আসন্ন কোরবানি ঈদ কে সামনে রেখে গরু বেশি টাকা বিক্রি দিনরাত পরিশ্রম করছে। খামারিদের সম্বল গরু কে চোরের হাত থেকে বাঁচাতে উল্লাপাড়ার বিভিন্ন এলাকার লোকজন লাঠিসোঁটা নিয়ে  দলবেঁধে পাহারা দিচ্ছে। প্রত্যেক পাড়ায় পাড়ায় লোকজন ভাগ করে পাহারা দিচ্ছে চোরের হাত থেকে গরু কে বাঁচাতে। এলাকাবাসীর এমন উদ্যোগে রাত ১০ টার পর রাস্তায় অপরিচিত কাউকে  ঘোরাফেরা করতে দেখা গেলে  জবাবদিহিতা করতে হচ্ছে। চুরি, ছিনতাই ও ছোটখাটো অপরাধের  হাত থেকে বাঁচতে প্রত্যেক এলাকায় এমন গণ সচেতনতা গণসচেতনতা দরকার বলে মনে করে বিশিষ্টজনেরা। পূর্বদেলুয়া গ্রামে দেখা মেলে এমন চিত্র। প্রায় সাত হাজার জনবসতি এই গ্রামের লোকজন গরু চুরি ও ডাকাতির হাত থেকে রক্ষা পেতে এমন উদ্যোগ নিয়েছে এলাকাবাসী । এই গ্রামের ১০ টি মহল্লায় পালাক্রমে প্রতিদিন একেকটি মহল্লায় ৭ জন করে লোকজন পাহারা দিয়ে থাকে। এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবলু কুমার রায় জানান এলাকায় চোরের উৎতাপে আমরা সকলে মিলে এমন উদ্যোগ নিয়েছে। সারাবছর পালাক্রমে এমন পাহারার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।  বড়হর ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল হাসান নান্নু জানান পূর্বদেলুয়া গ্রামসহ বিভিন্ন গ্রামের জনসাধারণ নিজেরাই উদ্যোগী হয়ে গ্রাম পাহারা দিচ্ছে। এলাকাবাসীর এমন উদ্যোগ চুরি, ছিনতাই ও ডাকাতির হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। এতে আমাদের সমাজে অপরাধ কমে যাবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ