শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সোনারগাঁওয়ে প্রতিপক্ষের হামলা ৫ জন আহত ॥ বাড়িঘর ভাঙচুর

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে জমি সংক্রান্ত বিরোধে প্রতিপক্ষের হামলায় ৫ জন আহত হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় জামপুর ইউনিয়নের ব্রাহ্মনবাওগা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। হামলার সময় প্রতিপক্ষরা তাদের বাড়িঘর ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় মহসিন মিয়া বাদী হয়ে সোমবার রাতে সোনারগাঁও থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
সোনারগাঁও থানায় দায়ের করা মামলার এজহার থেকে জানা যায়, উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের ব্রাহ্মনবাওগা গ্রামের মৃত আব্দুস সালামের ছেলে মহসিন মিয়ার সাথে একই এলাকার আবু সিদ্দিকের ছেলে মনির হোসেনের সাথে ক্রয়কৃত জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। গত সোমবার ওই জমিতে মহসিন মিয়াসহ তার লোকজন ঘর নির্মাণ করতে যায়। ঘর নির্মাণ শেষে চলে আসার পর মনির হোসেনের নেতৃত্বে তার লোকজন নির্মাণকৃত ঘর ভাঙচুর করে। এ ঘটনার জের ধরে সোমবার সন্ধ্যায় তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে মনির হোসেনের নেতৃত্বে আবুল, কাশেম, মোবারক, জহিরুল হক, মোসলেমাসহ ১০-১৫ জনের একটি দল লাঠিসোটা, দা, হকিস্টিক, রামদা, লোহার রড নিয়ে মহসিনের বাড়িতে হামলা চালায়। হামলায় মহসিন, দৌলত মিয়া, আওলাদ, কামাল, আলী আকবর আহত হয়। আহতদের সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মহসিন মিয়া বাদী হয়ে সোনারগাঁও থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
আহত মহসিন মিয়া জানান, আমরা ক্রয় সূত্রে মালিক হয়ে ওই জমিতে ঘর নির্মাণ করেছি। মনির হোসেন  সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগের এক প্রভাবশালী নেতার ছত্রছায়ায় দলীয় প্রভাব খাটিয়ে আমাদের জমি থেকে ঘর ভাঙচুর করে। এছাড়াও আমাদের বসত বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে।
অভিযুক্ত মনির হোসেনে সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমাদের জমিতে তারা জোরপূর্বক ঘর নির্মাণ করায় তা ভেঙ্গে দেওয়ার সময় আমাদের মারধর করেছে। আমরাও হাসপাতালে ভর্তি রয়েছি।
সোনারগাঁও থানার ওসি মনিরুজ্জামান মনির জানান, হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় মামলা গ্রহন করা হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে। আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

চোরাই জ্বালানী তেলসহ গ্রেফতার ১
নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার লঞ্চঘাট সংলগ্ন বালুর ঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে তিন হাজার লিটার চোরাই জ্বালানী তেল (ডিজেল) উদ্ধার করেছে র‌্যাব-১১’র নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের সদস্যরা। যার আনুমানিক মূল্য ১ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। এ সময় তেল চোরাই চক্রের মূলহোতা মোঃ ইকবাল হোসেন চৌধুরী (৪০) কে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত ইকবাল হোসেন চৌধুরী ফতুল্লার চৌধুরীবাড়ির মৃত কুদরত উল্লাহ চৌধুরীর ছেলে। মঙ্গলবার বেলা পৌঁনে ৩টায় অভিযান চালিয়ে চোরাই জ্বালানী তেলসহ তাকে গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার বিকেলে র‌্যাব-১১’র নারায়ণগঞ্জের ক্যাম্পের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মোস্তাফিজুর রহমানের পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ওই কর্মকর্তা আরো জানান, অভিযান চলাকালে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে তেল চোরাই চক্রের আরেক মূলহোতা মোঃ জাকের হোসেন পাভেল ওরফে মির্জা পাভেল (৪০) ও অপর সহযোগী মোঃ কালাম (৪৩) কৌশলে পালিয়ে যায়। তারা দীর্ঘদিন ধরে ফতুল্লা মডেল থানার আশপাশ এলাকায় সুকৌশলে তেল চুরি করে চোরাই তেলের ব্যবসা করে আসছে। তাদের এ চোরাই তেল ঢাকা ও আশপাশের বিভিন্ন জেলায় তেল ব্যবসায়ীদের কাছে সরবরাহ করত। তিনি আরো জানান, ফতুল্লায় বেশ কয়েকটি চোরাই তেলের সিন্ডিকেট চক্র গড়ে উঠেছে। এ সিন্ডিকেট চক্রটি সুকৌশলে দীর্ঘদিন ধরে তেল চুরি আসছে। চোরাই চক্রটি এ তেলের সাথে ভেজাল তেল মিশিয়ে বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের কাছে এগুলো সরবরাহ করে থাকে। এ তেল ব্যবহার করে গাড়ীর ইঞ্জিন ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হচ্ছে। গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে ফতুল্লা থানায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে তিনি জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ