শনিবার ১০ এপ্রিল ২০২১
Online Edition

খুলনা আধুনিক রেল স্টেশনে নেই পর্যাপ্ত যাত্রী সেবা

খুলনা অফিস : খুলনা আধুনিক রেল স্টেশনে নেই পর্যাপ্ত যাত্রী সেবা। আছে নানা অসঙ্গতি। নেই পার্সেল ও গুডস গোডাউন এবং অফিস। অনুসন্ধান রুম নেই। আর টিকিট কাউন্টারের সামনে নেই ফ্যানের ব্যবস্থা। স্টেশনের ৬টি টিকিট কাউন্টারের মধ্যে তিনটি কাউন্টারই বন্ধ। যাত্রীদের চাহিদা অনুযায়ী রয়েছে বগিও সংকট। এমনই অভিযোগ রেলের যাত্রী ও খুলনার নাগরিক নেতাদের।
রেল স্টেশন সূত্রে জানা যায়, খুলনা রেল স্টেশনে প্রতিদিন ১০টি ট্রেন চলাচল করে। এর মধ্যে আন্তঃনগর চিত্রা ও সুন্দরবন এক্সপ্রেস ঢাকা, সাগরদাড়ি ও কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস রাজশাহী, রূপসা ও সীমান্ত এক্সপ্রেস  সৈয়দপুর, রকেট ট্রেন পার্বতীপুর, নকশীকাঁথা ট্রেন গোয়ালন্দ ও কমিউটার ট্রেন বেনাপোলের উদ্দেশ্যে খুলনা থেকে ছেড়ে যায়। একইভাবে বিভিন্ন স্টেশন থেকে এসব ট্রেন খুলনা স্টেশনে প্রবেশ করে। এসব ট্রেনে যাত্রীর পাশাপাশি মালামাল আনা-নেয়া করা হয়। এসব মালামাল রাখার জন্য পুরাতন রেল স্টেশনে গোডাউন থাকলেও নতুন আধুনিক এই রেল স্টেশনে সেই ব্যবস্থা নেই। অথচ ট্রেনে মালামাল পরিবহন করে রাজস্ব আয় হচ্ছে। শুধু তাই নয়, স্টেশনে রয়েছে নানা সমস্যা।
সংশ্লিষ্টরা জানায়, ঢাকা-খুলনা রুটে চিত্রা ও সুন্দরবন এক্সপ্রেসের যাত্রীদের চাহিদা অনেক। তবে পর্যাপ্ত বগি না থাকায় যাত্রীদের টিকিট দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। এ দু’টি ট্রেনে শোভন চেয়ার ও এসি চেয়ারের বগি বাড়ানো প্রয়োজন। এছাড়া রূপসা ও সীমান্ত এক্সপ্রেসে প্রতিদিনই সিডিউল বিপর্যয় হচ্ছে। ফলে রাত ৯টা ১৫ মিনিটের ট্রেন ছাড়ার সময় থাকলেও ছাড়তে হচ্ছে রাত ১১টা থেকে ১২টার দিকে। যাত্রীদের বসে থাকতে হচ্ছে। এই দু’টি ট্রেনেও বগি প্রয়োজন।    
একাধিক যাত্রী বলেন, খুলনা রেল স্টেশন দৃষ্টিনন্দন হয়েছে। তবে আধুনিক হলেও পরিপূর্ণ সেবা দেয়া হচ্ছে না। ৬টি টিকিট কাউন্টারের মধ্যে যাত্রীদের টিকিট নিতে হয় মাত্র দু’টি কাউন্টার থেকে। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে ওই দু’টি কাউন্টার থেকে টিকিট নিতে হচ্ছে যাত্রীদের। এছাড়া দীর্ঘ সময় যাত্রীদের কাউন্টারে থাকলেও কাউন্টারের সামনে ফ্যান না থাকায় পড়তে হয় সীমাহীন দুর্ভোগে। যাত্রীরা আরও অভিযোগ করে বলেন, আধুনিক রেলস্টেশন হলেও ট্রেনের চেয়ে প্লাটফর্ম নিচু হওয়ায় উঠা-নামায় দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। বিশেষ করে বৃদ্ধ ও শিশুদের বেলায় এ সমস্যার অন্ত নেই। বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির মহাসচিব মো. আশরাফ উজ জামান বলেন, খুলনা আধুনিক রেল স্টেশনে নেই কাক্সিক্ষত সুযোগ-সুবিধা। আধুনিক রেল স্টেশন হলেও সেবার মানে ঘাটতি রয়েছে। কাউন্টার আছে, জনবল নেই। জনবল স্বল্পতার কারণে টিকিট কাউন্টার থাকছে বন্ধ। ফ্যানবিহীন গরমে যাত্রীদের দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট নিচ্ছে। পড়তে হচ্ছে দুর্ভোগে। বসার জন্য সু-ব্যবস্থা নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ