রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১
Online Edition

ন্যূনতম মূলধন সংরক্ষণেও ব্যর্থ ব্যাংকগুলো

মুহাম্মাদ আখতারুজ্জামান : নানা অনিয়ম-দুর্নীতি আর অব্যবস্থাপনায় ঋণ দিচ্ছে ব্যাংকগুলো। যাচাই-বাছাই ছাড়াই দেয়া সে ঋণ সময় মতো আদায় হচ্ছে না। ফলে খেলাপিতে ডুবছে ব্যাংকগুলো। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিবিড় পর্যবেক্ষণের পরও ব্যাংকের আর্থিক অবস্থার খুব একটা উন্নতি নেই। প্রভিশন ও মূলধন ঘাটতিতে নাজুক অবস্থায় ব্যাংকগুলো। শীর্ষ খেলাপিদের কাছ থেকে ঋণ আদায় নিয়ে সন্তুষ্ট নয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। লাগামহীন খেলাপি ঋণের ঊর্ধ্বগতিতে সরাসরি প্রভাব পড়েছে সরকারি- বেসরকারি ১০টি ব্যাংকের মূলধনে। সরকারি ব্যাংকগুলোর মূলধন ঘাটতি তৈরি হলে বাজেট থেকে তার জোগান দিতে হয়। কিন্তু এ বছর বাজেটে ঘাটতি পূরণে কোনো বরাদ্দ রাখা হয়নি। জনগণের করের টাকায় বিভিন্ন সময় মূলধন ঘাটতিতে পড়া ব্যাংকগুলোতে অর্থ জোগান দেয় সরকার। তবে করের টাকায় মূলধন জোগানে বরাবরই বিরোধিতা করে আসছেন অর্থনীতিবিদরা।
অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল চলতি বছরের ১০ জানুয়ারি ঘোষণা দিয়ে বলেছিলেন, আজ থেকে আর এক টাকারও খেলাপি ঋণ বাড়বে না। তবে, এ ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের সব ধরনের সুযোগ-সুবিধাও বজায় থাকবে। এখন পর্যন্ত যে পরিমাণ খেলাপি ঋণ রয়েছে তাও ধীরে ধীরে কমিয়ে আনা হবে। তিনি বলেন, যারা ব্যবসা করেন বাংলাদেশে তারা সবাই প্রভাবশালী। পৃথিবীতে যারা ব্যবসা-বাণিজ্য করেন সবাই প্রভাবশালী। ব্যবসায়ীরা যদি প্রভাবশালী না হন, তাহলে বিনিয়োগ কীভাবে আসবে। প্রভাবশালী যারা ব্যবসা-বাণিজ্য করেন তারা অর্থনীতির ৮২ শতাংশ। তাদের বাদ দিয়ে ১৮ শতাংশ নিয়ে অর্থনীতি সাজানো সম্ভব নয়। এটা করতে চাওয়াটাও একটা অবাস্তব চিন্তা। তাদের ব্যবসা করতে সব সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা হবে, তবে ঋণখেলাপি না হয়ে।
কিন্তু অর্থমন্ত্রীর ঘোষণা শুধু ঘোষণায় রয়ে গেছে। কমেনি খেলাপি ঋণ বরং বেড়েছে। ঋণ অব্যবস্থাপনায় একদিকে যেমন বাড়ছে খেলাপী ঋণের পরিমাণ অন্যদিকে খেলাপী ঋণ আদায় করতে না পারায় প্রভিশন রাখতে গিয়ে মূলধন সংকটে পড়তে হচ্ছে ব্যাংকগুলোকে।
২০১৯ সালের মার্চ শেষে মূলধন সংকটে পড়েছে সরকারি-বেসরকারি ১০ ব্যাংক। এসব ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৭৮৮ কোটি টাকা। ঘাটতির তালিকায় নতুন করে যুক্ত হয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত একমাত্র সরকারি ব্যাংক রূপালী। অন্যদিকে দীর্ঘদিন পর তালিকা থেকে বেরিয়ে গেছে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংক। এছাড়া ঘাটতিতে থাকা অন্য ব্যাংকগুলোর মধ্যে রয়েছে- রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক, জনতা, অগ্রণী, বাংলাদেশ কৃষি, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন এবং বেসরকারি খাতের ব্যাংকগুলোর মধ্যে এবি, বাংলাদেশ কমার্স, আইসিবি ইসলামী ও ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।
গংশ্লিষ্টরা জানান, খেলাপি ঋণসহ নানা কারণে ব্যাংক খাত দুর্বল হয়ে পড়ছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা এটাকে নেতিবাচক হিসেবে দেখছেন। ফলে দেশি ও বৈদেশিক বিনিয়োগে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। তাই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উচিত যত দ্রুত সম্ভব এ সংকট উত্তরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা।
আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং রীতিনীতি অনুযায়ী, একটি ব্যাংকের মোট ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদের ১০ শতাংশ অথবা ৪০০ কোটি টাকা এর মধ্যে যেটি বেশি সেই পরিমাণ মূলধন রাখতে হয়। ঝুঁকি মোকাবিলায় আন্তর্জাতিক মানদ- ব্যাসেল-৩ নীতিমালা অনুযায়ী, ব্যাংকগুলোকে ১০ শতাংশ ন্যূনতম মূলধনের পাশাপাশি দশমিক ৬২ শতাংশ হারে অতিরিক্ত মূলধন সংরক্ষণ করতে হয়। এ হিসাবে চলতি বছরের মার্চ শেষে ন্যূনতম মূলধন সংরক্ষণ করতে ব্যর্থ হয়েছে ১০টি ব্যাংক।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য পর্যালোচনায় দেখা গেছে, মার্চ শেষে মূলধন ঘাটতি সবচেয়ে বেশি রয়েছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের। ব্যাংকটির মূলধন ঘাটতি আট হাজার ৮৮৪ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। মূলধন ঘাটতির দিক দিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে জনতা ব্যাংক। ব্যাংকটির মূলধন ঘাটতি চার হাজার ৮৮৮ কোটি আট লাখ টাকা। এছাড়া অগ্রণী ব্যাংকের এক হাজার ৫৪ কোটি ২৯ লাখ টাকা, বেসিক ব্যাংকের ২৩৬ কোটি ৬৪ লাখ টাকা, রূপালী ব্যাংকের ১৫৪ কোটি ৭৯ লাখ টাকা এবং রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের (রাকাব) ৭৩৪ কোটি ৯৭ লাখ টাকার মূলধন ঘাটতি রয়েছে।
বেসরকারি খাতের তিনটি ব্যাংকের মোট মূলধন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে দুই হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মূলধন ঘাটতি রয়েছে আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের। ব্যাংকটির মূলধন ঘাটতি এক হাজার ৫৬৯ কোটি নয় লাখ টাকা। ঘাটতিতে থাকা অন্য দুই ব্যাংকের মধ্যে এবি ব্যাংকের ৩৭৬ কোটি ৭৪ লাখ এবং বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের ৪৩৪ কোটি ৪৭ লাখ টাকা, এছাড়া বিদেশি ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তানের ৫৪ কোটি ৪০ লাখ টাকার মূলধন ঘাটতি পড়েছে।
জানা গেছে, সরকারি ব্যাংকগুলোর মূলধন ঘাটতি তৈরি হলে বাজেট থেকে তার জোগান দিতে হয়। জনগণের করের টাকায় বিভিন্ন সময় মূলধন ঘাটতিতে পড়া ব্যাংকগুলোতে অর্থ জোগান দেয় সরকার। তবে করের টাকায় মূলধন জোগানে বরাবরই বিরোধিতা করেন অর্থনীতিবিদরা।
অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন পর ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট থেকে কোনো অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয়নি মূলধন ঘাটতিতে থাকা রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলোকে। তবে ব্যবসা টিকিয়ে ভর্তুকি বাবদ দুটি ব্যাংকের জন্য মাত্র ১৫১ কোটি ১২ লাখ টাকা ছাড় করা হয়। যদিও সরকারি ব্যাংকগুলোর পক্ষ থেকে মূলধন ঘাটতি পূরণে প্রায় ১৯ হাজার কোটি টাকা চাওয়া হয়েছিল।
অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, প্রতি বছরই জনগণের করের টাকায় ব্যাংকগুলোকে মূলধন ঘাটতি মেটানোর অর্থ দেয় সরকার। কিন্তু অর্থ দেয়ার পরও ব্যাংকগুলোর আর্থিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে না। এ পরিস্থিতিতে ব্যাংকগুলোকে আদৌ অর্থ দেয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। এ কারণে তাদের কোনো অর্থ দেয়া হয়নি। নিয়ম অনুযায়ী, ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের জোগান দেয়া অর্থ ও মুনাফার একটি অংশ মূলধন হিসেবে সংরক্ষণ করা হয়। কোনো ব্যাংক মূলধনে ঘাটতি রেখে তার শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ দিতে পারে না।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, খেলাপি ঋণ বাড়ছে। ফলে নিরাপত্তা সঞ্চিতি বেশি রাখতে হচ্ছে। বর্তমানে আমানত প্রবৃদ্ধি কম। ব্যাংকগুলোতে তারল্য সংকট রয়েছে। ফলে বাড়তি সঞ্চিতি রাখতে গিয়ে মূলধনে হাত দিতে হচ্ছে। সরকারি ব্যাংকগুলোর এ হার বেশি।
তিনি বলেন, প্রতি বছরই বাজেট থেকে এ মূলধন জোগান দেয়া হয়। এবার এ খাতে অর্থ বরাদ্দ দেয়নি সরকার। এটা ভালো সিদ্ধান্ত। এখন ব্যাংকগুলোর উচিত খেলাপি আদায়ে জোর দেয়া। কারণ খেলাপি আদায় হলে মূলধনের ওপর চাপ কমে যাবে। একই সঙ্গে খেলাপি ঋণ যারা কমাতে ব্যর্থ হবে তাদের কার্যক্রম সংকুচিত করে রাষ্ট্রের অর্থ অপচয় রোধ করা প্রয়োজন বলে মনে করেন সাবেক এ গভর্নর।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালের মার্চ শেষে ব্যাংক খাতে ঋণ বিতরণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে নয় লাখ ৩৩ হাজার ৭২৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক লাখ ১০ হাজার ৮৭৩ কোটি টাকা, যা ২০১৮ এর ডিসেম্বর শেষে ছিল ৯৩ হাজার ৯৯১ কোটি টাকা। অর্থাৎ তিন মাসের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১৬ হাজার ৮৮২ কোটি টাকা।
ব্যাংকগুলো ২০১৮ সালের প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী গেল বছর সরকারি ব্যাংকগুলোর ব্যবসা পরিচালনার বিভিন্ন সূচকে রয়েছে মিশ্র প্রবণতা। লোকসানি শাখা কমলেও বিপুল অঙ্কের খেলাপিঋণ রয়েছে ব্যাংকগুলোতে। প্রভিশনের সঙ্গে মূলধন ঘাটতিতে পড়েছে ব্যাংকগুলো। এছাড়া শীর্ষ-২০ খেলাপিদের থেকে নগদ আদায় সন্তোষজনক নয়। ফলে বৈঠকে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের খেলাপিঋণ ও শীর্ষ খেলাপিদের থেকে আদায় পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। ২০১৮ সালে রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ১৭ হাজার ২২৫ কোটি টাকা খেলাপিঋণ জনতা ব্যাংকের, যা ব্যাংকটির মোট বিতরণ করা ঋণের প্রায় ৩৬ শতাংশ। ২০১৭ সালে ব্যাংকটির খেলাপিঋণ ছিল ৭ হাজার ৫৯৯ কোটি টাকা। এ সময়ে অগ্রণী ব্যাংকের খেলাপিঋণ বেড়ে হয়েছে ৫ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা। ২০১৭ সালে যা ছিল ৫ হাজার ৫৬৯ কোটি টাকা। সোনালী ব্যাংকের খেলাপিঋণ কিছুটা কমে হয়েছে ১২ হাজার ৬১ কোটি টাকা। ২০১৭ সালে যা ছিল ১৪ হাজার ৯৩০ কোটি টাকা। এছাড়া রূপালী ব্যাংকেরও খেলাপিঋণ কিছুটা কমে হয়েছে ৪ হাজার ১১০ কোটি টাকা, যা ২০১৭ সালে ছিল ৪ হাজার ৫৮২ কোটি টাকা।
২০১৮ সালে রাষ্ট্রায়ত্ত এই চার ব্যাংকের ৩টিই প্রভিশন ঘাটতিতে রয়েছে। এর মধ্যে সোনালী ব্যাংকের ৩ হাজার ৮৮ কোটি, অগ্রণী ব্যাংকের ৫৯৩ কোটি ও রূপালী ব্যাংকের ৮৩৪ কোটি টাকা প্রভিশন ঘাটতি ছিল। এ সময়ে জনতা ও অগ্রণী ব্যাংক মূলধন ঘাটতিতে ছিল। এর মধ্যে জনতা ব্যাংকের ৫ হাজার ৮৫৩ কোটি ও অগ্রণী ব্যাংকের ৮৮৩ কোটি টাকা মূলধন ঘাটতি রয়েছে।
জানা গেছে, ২০১৮ সালে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর শীর্ষ-২০ খেলাপিদের কাছ থেকে নগদ আদায় নিয়ে সন্তুষ্ট হতে পরেনি কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আলোচিত সময়ে শীর্ষ-২০ খেলাপিদের কাছ থেকে আদায় করেছে সোনালী ১১৯ কোটি, জনতা ৯৯ কোটি, অগ্রণী ১ কোটি ৭৪ লাখ ও রূপালী ৫ কোটি টাকা নগদ আদায় করেছে। অন্যদিকে, অন্যান্য খেলাপিদের থেকে আদায় করেছে সোনালী ৮৮৮ কোটি, জনতা ৩৮৪ কোটি, অগ্রণী ৩১৭ কোটি ও রূপালী ১৮০ কোটি টাকা আদায় করে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ