রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

বর্তমানে রাষ্ট্র জনগণকে নিয়ে প্রতারণা করছে -ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী

স্টাফ রিপোর্টার : গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, একটি কল্যাণ রাষ্ট্র গঠনের সততা, গণতন্ত্র, ধর্মীয় মূল্যবোধ জাতি গঠনের পূর্ব শর্ত। তিনি বলেন অতিশয় উক্তি না করা উচিত, দেশে বিচার বহির্ভূত হত্যাকা- মেনে নেয়া যায় না। বর্তমানে একমাত্র রাষ্ট্রের প্রতারণা হচ্ছে জনগণকে নিয়ে।
গতকাল শনিবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাব তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে জেনারেল ওসমানী জাতীয় পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত বিপর্যস্ত সমাজ বিনির্মাণে রাজনীতিকদের ভূমিকা শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এইসব কথা বলেন। সংগঠনের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন বেঙ্গলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বিএফইউজে’র সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, এম সানোয়ার হোসেন, শিক্ষক নেতা জাকির হোসেন, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক এ কে এম ওয়াজেদ আলী, মানবাধিকার কর্মী আব্দুল কাইয়ূম সিদ্দিকী, ডা. এম এ মামুন ভূইয়া, প্রকৌশলী কামাল হোসেন, এডভোকেট মুজাহিদ, শেখ মো. তাজুল ইসলাম, ফয়েজ উল্লাহ মানিক প্রমুখ।
ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের সঠিক সংখ্যা নেই। তবে ৫ হাজার মুক্তিযোদ্ধা আছে কোটিপতি, বাকি মুক্তিযোদ্ধারা ছিলেন কৃষক, ছাত্র, সাধারণ জনতা। ৫০ হাজারের মতো মুক্তিযোদ্ধা আছেন তারা প্রায় ভিক্ষুকদের মতো জীবন-যাপন করেন। আজকে মুক্তিযোদ্ধাদের বিক্রি করে দেশ চালানো হচ্ছে। তবে সরকারের এই নীতি পরিবর্তন করা দরকার। তিনি মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রীর উদ্দেশ্যে আরো বলেন জাতীয় সংসদ এলাকা থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা জেনারেল জিয়াউর রহমানের কবর যেন না সরানো হয়। তাহলে মৃত এবং জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের অপমান করা হবে।
বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন বিএফইউজে সভাপতি রুহুল আমিন গাজী বলেন, দেশে আজ খুন, গুম, ধর্ষণ, হত্যা, হামলা, মামলার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। এ জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানাই। কিন্তু জনগণকে যে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সরকার তথা রাজনীতিকদের কোনো ভূমিকা দেখছি না। তিনি আশাবাদী সুন্দর সমাজ বিনির্মাণে কেউ না কেউ ভবিষ্যতে দেশের হাল ধরবেন। তিনি আরও বলেন, বিনাবিচারে খালেদা জিয়াকে আটকে রাখা হয়েছে। এতেই প্রমাণিত হয় বিচার বিভাগ কতটা স্বাধীন। এ সরকারেরও পতন হবে। সেইসঙ্গে আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে গণতন্ত্রকে মুক্ত করবো ইনশাআল্লাহ।
সংগঠনের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল সভাপতি’র বক্তব্যে বলেন, স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৮ বছরেও কোনো সরকারের কাছ থেকে সুবিধা ভোগ করিনি। এই দেশ কারো বাপ দাদার সম্পদ নয়, জাতের নামে বজ্জাতি করা চলবে না। তাই নতুন সমাজ গঠনে সমাজের সকল স্তরের মানুষের দায়িত্ব নিতে হবে।
কবি আব্দুল হই শিকদার বলেন, বাংলাদেশের রাষ্ট্রযন্ত্রের উপর বদ জিনের আছড় পরেছে। এর থেকে পরিত্রাণের উপায় সর্বস্তরের জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ভূমিকা পালন করা। কাঙ্খিত সমাজ তাহলে বিনির্মিত হবে। সভায় বক্তারা বিপর্যস্ত সমাজ বিনির্মাণে রাজনীতিকদের সততা, গণতন্ত্র, ধর্মীয় মূল্যবোধ, জাতি গঠনের পূর্ব শর্ত হিসেবে উল্লেখ করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ