মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২
Online Edition

সোনারগাঁয়ে বিয়ের প্রলোভনে নারী জামদানি কারিগরকে ধর্ষণ ॥ গ্রেফতার ১

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা: নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক নারী জামদানী কারীগরকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় নারী কারীগরের বাবা বাদি হয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকালে সোনারগাঁ থানায় একটা মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ মামলার প্রধান আসামী ইউসুফ আলীকে গ্রেফতার করেছে।
সোনারগাঁ থানায় দায়ের করা মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, উপজেলা কাঁচপুর ইউনিয়নের পূর্ব বেহাকৈর এলাকায় আঃ রহমানের বাড়ির ভাড়াটিয়া জসিম উদ্দিন তার পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছে। তার মেয়ে পার্শ্ববর্তী ইউসুফ আলী ও নুরুল ইসলামের বাড়িতে জামদানি বুননের কাজ করতো। কাজ করার সুবাদে ইউসুফ আলী বিভিন্ন কথা বলে ফুসলিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে নুরুল ইসলামের সহায়তায় গত এক বৎসর যাবত বিভিন্ন সময় ও তারিখে ধর্ষণ করে আসছে। ধর্ষণের ফলে মেয়েটি তিন মাসের অন্তঃস্বত্বা হয়ে পড়লে সে তার পরিবারকে জানায়। ধর্ষিতার পরিবার আসামী ইউসুফকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে সে বিভিন্ন টালবাহানা শুরু করে। ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে বিবাদী নুরুল ইসলাম ও ইউসুফকে বাঁচাতে এলাকার কতিপয় প্রভাবশালীরা ধর্ষিতার পরিবারকে মামলা না করার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। একপর্যায়ে বিচার শালিশের মাধ্যমে মিমাংসা করার আশ্বাস দিয়ে ধর্ষিতাকে বিবাদী নুরুল ইসলামের বাড়িতে আটকে রেখে পেটের বাচ্চা নষ্ট করে ফেলে। খবর পেয়ে ধর্ষিতার বাবা জসিম উদ্দিন আহত অবস্থায় তার মেয়েকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে গতকাল মঙ্গলবার সকালে সোনারগাঁ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশ ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামী ইউসুফ আলীকে গ্রেফতার করে। সোনারগাঁ থানার পরিদর্শক তদন্ত হেলাল উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ধর্ষণের ঘটনায় থানায় একটি মামলা নেওয়া হয়েছে। আসামী ইউসুফ আলীকে গ্রেফতার করা হয়। অপর আসামীকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ