মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১
Online Edition

থালা-বাসন মাজার কাজটা দারুণ

সিএনবিসি ডটকম একটি চমৎকার তথ্য উপহার দিয়েছে আমাদের। তথ্যটি হলো, বিলগেটস ও জেফ বেজোস রাতে থালা-বাসন ধুয়ে রাখেন নিজ হাতেই। কেবল নিজের প্লেট বা গ্লাসই নয়, পরিবারের বাকিদের এঁটো ঘটিবাটিও সাফ করেন যত্ন নিয়ে। আর এই কাজটি কোনো বিশেষ দিনে নয়, রোজ রাতেই করে থাকেন তারা। আমরা জানি, দুনিয়ার শীর্ষ ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে প্রধান তারা। তুড়ি বাজিয়েই যে কোনো কাজ করিয়ে নিতে পারেন তাঁরা। অথচ গৃহে থালাবাসন মাজার কাজটা প্রতিরাতেই নিজেরা করছেন তাঁরা। রহস্যটা আসলে কী?
বিজনেস ইনসাইডারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আমাজন ডটকমের প্রধান জেফ বেজোস বলেন, ‘আমি রোজ থালাবাসন মাজি। আমি বিশ্বাস করি, আমার করা কাজগুলোর মধ্যে এটিই সবচেয়ে দারুণ।’ আর মাইক্রোসফটের সহপ্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস ‘রেডিট আস্ক মি অ্যানিথিং’ নামের এক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠানে বলেছেন, ‘আমি রোজ রাতে থালাবাসন মাজি। অনেকেই অন্যদের সাহায্য নেয় কিন্তু আমি নিজেই করতে ভালোবাসি।’ দুই ধনকুবের যে কারণেই থালা-বাসন মাজুন না কেন, বিজ্ঞান বলে, এতে করে সৃজনশীলতার বিকাশ হয়। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটির একটি গবেষণায় দেখা গেছে, শিক্ষার্থীরা থালা-বাসন মাজার পর নিজেদের ফুরফুরে মেজাজে আবিষ্কার করে। এ ধরনের কাজের সময় শিক্ষার্থীরা শ্বাস-প্রশ্বাস, স্পর্শ, ঘ্রাণে মনোযোগ দেয় বেশি। এর ফলেই মানসিক চাপ যায় কমে। নতুন কোনো কাজের অনুপ্রেরণাও খুঁজে পায়। আর হালকা গরম পানি স্পর্শ করার অনুভূতি অথবা সাবানের ঘ্রাণ মস্তিষ্ককে উদ্দীপিত করে।
থালা-বাসন মাজার কাজটিকে আমরা তেমন ভালো চোখে দেখি না। এই কাজটিকে আমরা চাকর-বাকর কিংবা গৃহিণীদের জন্য নির্দিষ্ট করে রেখেছি। কিন্তু এক্ষেত্রে বিশ্বের শীর্ষ দুই ধনী বিল গেটস ও জেফ বেজোস ব্যতিক্রম। তাঁরা থালা-বাসন মাজার কাজটিকে ভালোবাসেন এবং বেশ গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। আর বিজ্ঞান তো থালা-বাসন মাজার নানা উপকারিতা উল্লেখ করেছে। জানি না, এরপরও আমাদের দৃষ্টিভঙ্গিতে কোনো পরিবর্তন আসবে কিনা। আমরা যে যত বিখ্যাত ব্যক্তিই হই না কেন, গৃহে তো আমাদের ফিরে আসতে হয়। মজার ব্যাপার হলো, বাইরে আমরা অনেক কাজ করলেও গৃহে কিন্তু কোনো কাজ করতে চাই না। অথচ আমাদের প্রিয় নবী ও বিশ্বের শ্রেষ্ঠ মানুষ হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা (সা.) এর উদাহরণ অন্য রকম। তিনি গৃহে আসলে ঘরের কাজে ব্যস্ত থাকতেন এবং নামাজের সময় হলে মসজিদে চলে যেতেন। পরিবারের লোকদের প্রতি তিনি ছিলেন খুবই সহানুভূতিশীল। এসব উদাহরণ থেকে আমরা শিক্ষা নেবো কী?

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ