সোমবার ২৫ মে ২০২০
Online Edition

রাজশাহীতে দুই বাসের চিপায় ছাত্রের ডান হাত বিচ্ছিন্ন

রাজশাহী অফিস : রাজশাহীতে দুই বাসের চিপায় এক ছাত্রের ডান হাত বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর তার আপাতত জীবনাশঙ্কা কেটে গেছে। তবে এখন তার মাস্টার্স পরীক্ষা দেয়া হচ্ছে না বলে জানা গেছে। হাত হারানো ফিরোজ সরকার ঐতিহ্যবাহী রাজশাহী কলেজের সমাজকর্ম বিভাগের মাস্টার্স শ্রেণির ফাইনাল পরীক্ষার্থী।
রাজশাহী নগরীর উপকণ্ঠে কাটাখালীতে শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে দুই বাস পাশাপাশি অতিক্রম করার সময় বাসের চাপায় বাসযাত্রী ফিরোজ সরকারের এক হাত কনুই থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এসময় ডান বাহুর নিচ থেকে হাত কেটে পড়ে থাকে রাস্তায়। ফিরোজকে নিয়ে বাস চলে যায় রাজশাহী বাস টার্মিনালে। রাস্তায় হাত পড়ে থাকতে দেখে গ্রামের লোকজন কাঁটাখালী থানার পুলিশকে খবর দেয়। তাড়াতাড়ি নিয়ে যেতে পারলে হাত জোড়া লাগানো যেতে পারে এই আশায় কাটাখালী থানার পুলিশ হাত উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। ততক্ষণে বাস থেকে নামিয়ে ফিরোজকেও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাত পৌঁছানোর পর চিকিৎসক জানান, এ হাত আর জোড়া দেয়া সম্ভব নয়। ফিরোজ বগুড়ার নন্দিগ্রাম উপজেলার মাহফুজার রহমানের পুত্র। রাজশাহী কলেজে তার মাস্টার্স পরীক্ষা চলছে। পরীক্ষার ছুটিতে তিনি প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা দেয়ার জন্য বাড়িতে গিয়েছিলেন। শুক্রবার পরীক্ষা দিয়েই তিনি রাজশাহীর উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন। আজ রোববার তার কলেজের পরীক্ষা রয়েছে। কিন্তু কলেজ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, পরীক্ষা দেয়ার জন্য কলেজে উপস্থিতি অপরিহার্য। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার ফলে তার আর পরীক্ষা দেয়া হচ্ছে না। এদিকে রাজশাহী কলেজ শিক্ষার্থী ফিরোজ সরকারের হাত বিচ্ছিন্নের ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবিতে গতকাল শনিবার  দুপুরে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। রাজশাহী কলেজের প্রশাসনিক ভবনের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ মুহা. হবিবুর রহমান। দুর্ঘটনার বিষয়ে কাটাখালী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি ইস্যু করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ