সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

২ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা খেলাপি ঋণ

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের ১০ হাজার ৪৭৬ ঋণখেলাপির তালিকা হাইকোর্টে জমা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এসব অ্যাকাউন্টের বিপরীতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ২ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা। আর প্রতিটি অ্যাকাউন্টে খেলাপি ঋণের পরিমাণ কোটি টাকার ওপরে। বাংলাদেশ ব্যাংকে বর্তমানে খেলাপি ও অকার্যকর ঋণের মধ্যে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১ লাখ ১০ হাজার কোটি টাকা। বাকি ১ লাখ ১০ হাজার কোটি টাকার মধ্যে বিভিন্ন আদালতের আদেশে আটকে আছে ৮০ হাজার কোটি টাকা। আর অবলোপনকৃত ঋণের পরিমাণ ৩০ হাজার কোটি টাকা।
গতকাল সোমবার বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এমন তথ্য উপস্থাপন করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তিনি খেলাপি ঋণের তথ্য আদালতে সিলগালা অবস্থায় উপস্থাপন করেন। তবে কোন কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ঋণখেলাপি বা অর্থের পরিমাণ কত তা আদালতে প্রকাশ্যে জানানো হয়নি।
এদিকে মোট ঋণের দুই শতাংশ এককালীন জমা দিয়ে একজন ঋণখেলাপি ১০ বছরের জন্য ঋণ পুনঃতফসিলের সুযোগ পাবেন বাংলাদেশ ব্যাংকের এমন নীতিমালার কার্যক্রমের ওপর ইতিপূর্বে দেওয়া স্থিতাবস্থার মেয়াদ আরও দুই মাসের জন্য বাড়িয়েছেন আদালত। এর আগে ২১ মে হাইকোর্ট ঋণখেলাপিদের তথ্য সংক্রান্ত তথ্যাদি ২৪ জুন আদালতে দাখিল করতে নির্দেশ দেন। সেই সঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতিমালার ওপর স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে নির্দেশ দিয়েছিলেন এক মাসের জন্য। এর ধারাবাহিকতায় আজ ঋণখেলাপি সংক্রান্ত তথ্যাদি আদালতে দাখিল করা হয়।
আদালতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন, আইনজীবী মুনীরুজ্জামান। রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন, আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। এ সময় রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ বি এম আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য ২০০৯ সালের শুরুতে দেশের ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ ছিল ২২ হাজার ৪৮১ কোটি টাকা। ২০১৮ সাল শেষে খেলাপি ঋণ বেড়ে হয়েছে ৯৩ হাজার ৯১১ কোটি টাকা। এ ছাড়া অবলোপন ঋণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৩৭ হাজার ৮৬৬ কোটি টাকা। ফলে ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ ১ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকার বেশি।
জানা গেছে, দেশের ১০ হাজার ৪৭৬ ঋণখেলাপির তালিকা হাইকোর্টে জমা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এসব অ্যাকাউন্টের বিপরীতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ২ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা। আর প্রতিটি অ্যাকাউন্টে খেলাপি ঋণের পরিমাণ কোটি টাকার ওপরে।
শুনানি শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের আইনজীবী মো. মুনিরুজ্জামান বলেন, আগের আদেশ অনুসারে আজ ঋণখেলাপিদের তালিকা হাইকোর্টে দাখিল করা হয়েছে। আইন অনুযায়ী ওই তালিকা গোপনীয় হওয়ায় তা সিল করা প্যাকেটে আদালতে দাখিল করা হয়েছে। কারণ, আইন অনুযায়ী ওই তালিকা বাংলাদেশ ব্যাংক বা আমরা কেউই প্রকাশ করতে পারি না। ওই তালিকায় ১ কোটি টাকার ওপরে খেলাপি ঋণের ১০ হাজার ৪৭৬টি অ্যাকাউন্টের নাম দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে ১ হাজার ১০৬টি অ্যাকাউন্ট কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের এবং ৯ হাজার ৩৭০টি অ্যাকাউন্ট বিভিন্ন ব্যাংকের ঋণখেলাপি।
মো. মুনিরুজ্জামান বলেন, শুনানিতে অ্যাটর্নি জেনারেল মোট ১ লাখ ১০ হাজার কোটি টাকা ঋণখেলাপি আছে বলে তথ্য দিয়েছেন। এছাড়া ৮০ হাজার কোটি টাকা বিভিন্ন আদালতের আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে নন-পারফর্মিং লোন (এলপিএল) হিসেবে পড়ে আছে। পাশাপাশি আরও ৩০ হাজার কোটি টাকা রয়েছে, যেগুলো অবলোপিত। অর্থাৎ এই ৩০ হাজার কোটি টাকা পাওয়া যাবে না, আবার পাওয়া যেতেও পারে বলে ধরে নেওয়া হয়েছে। তাই সব মিলিয়ে আপাতত ২ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা এই তিনভাগে এলপিএল হিসেবে পড়ে আছে।
প্রসঙ্গত, গত ১৬ মে বাংলাদেশ ব্যাংক এক সার্কুলারের মাধ্যমে দেশের ঋণখেলাপিদের নিয়মিত হওয়ার সুযোগ করে দেয়। এর ফলে ঋণখেলাপিরা মাত্র দুই শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়েই ঋণ পুনঃতফসিল করতে পারবেন। পুনঃতফসিল হওয়া ঋণ পরিশোধে তারা সময় পাবেন টানা ১০ বছর। প্রথম এক বছর কোনো কিস্তি দিতে হবে না। ওই সার্কুলারের কারণে ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপিরাও এখন থেকে ঋণ পুনঃতফসিল করার সুযোগ পাবেন। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী, খেলাপিরা ব্যাংকের টাকা ফেরত দেয়া শুরু করলে নিয়মিত গ্রাহকদের চেয়েও খেলাপি গ্রাহকদের কম সুদ দিতে হবে। চিহ্নিত এ ঋণখেলাপিদের গুণতে হবে ৯ শতাংশেরও কম সুদ। ওই নীতিমালা অনুযায়ী খেলাপি ঋণের অনারোপিত সুদ মওকুফ সুবিধার পাশাপাশি খেলাপিদের বিরুদ্ধে ব্যাংকের দায়ের করা মামলাও স্থগিত রাখার কথা বলা হয়। এছাড়া আরেকটি সার্কুলারে যারা নিয়মিত ঋণ শোধ করেন, তাদের সুদে দশ শতাংশ রেয়াতি সুবিধা দেওয়ার কথা বলেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পরে কমিশন গঠন করে ওই সার্কুলার স্থগিত এবং ঋণখেলাপি ও অর্থপাচারকারীদের তালিকা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। সে রিটের শুনানি নিয়ে ১ কোটি টাকার ওপর ঋণখেলাপি ও অর্থপাচারকারীদের তালিকা দাখিলের নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।
এ ব্যাপারে আইনজীবী মনজিল মোরসেদ জানান, ঋণখেলাপিদের নতুন করে একটা সুযোগ দিয়ে ২ শতাংশ (ডাইন-পেমেন্ট) সুদ জমা দিয়ে ১০ বছরের জন্য ঋণ পুনঃতফসিলের সার্কুলার দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ সার্কুলারের বিষয় নিয়ে গত ১৬ মে আমরা আদালতকে অবহিত করি। কিন্তু কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আইনজীবী জানান, এ-সংক্রান্ত কোনো সার্কুলার তারা দেননি। পরে আদালত ঋণখেলাপিদের তালিকা দেয়ার নির্দেশ দেন। কিন্তু দেখা যায়, ১৬ মে বিকেলেই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওয়েব সাইটে সার্কুলার জারি করা হয়।
মনজিল মোরসেদ জানান, পরে আমরা ওই সার্কুলার চ্যালেঞ্জ করি। ২ শতাংশ ডাউন-পেমেন্ট দিয়ে ঋণখেলাপিরা খেলাপির হাত থেকে মুক্তি পাবে, এ কারণে সিআইবিতে তাদের নাম থাকবে না। তখন নতুন করে হাজার হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়ে যাবে। এতে ব্যাংকের মেরুদ- ভেঙে যাবে। এ কারণে আদালতের কাছে আবেদন জানিয়েছিলাম, মামলার শুনানি না হওয়া পর্যন্ত সার্কুলারের কার্যক্রম স্থিতিবস্থা রাখার জন্য। আদালত ২৪ জুন পর্যন্ত সার্কুলারের কার্যক্রমের ওপর স্থিতাবস্থা দিয়েছেন। ২০ বছর ধরে এক কোটি টাকার ওপরে ঋণখেলাপিদের তালিকা, ঋণের পরিমাণ এবং সুদ মওকুফের তালিকা চাইলেও বাংলাদেশ ব্যাংক সেটি না দেয়ায় গত ৩০ এপ্রিল ক্ষোভ প্রকাশ করেন আদালত।
এর আগে ১৩ ফেব্রুয়ারি এক আদেশে ঋণখেলাপিদের তালিকা দাখিলের নির্দেশ দেন আদালত। একই সঙ্গে রুলও জারি করেন। রুলে আর্থিক খাতে অনিয়ম, দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা বন্ধে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন, ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ, সিটি ব্যাংকের সাবেক সিইও মামুন রশিদ,বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন প্রতিনিধি ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের একজন প্রতিনিধির সমন্বয়ে কমিশন গঠনে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না এবং এ কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়। রুলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রী সচিবালয়ের সচিব, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের দুই সচিব, আইন সচিব, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের চার সপ্তাহের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ