শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে মওদূদী দর্শনকে উৎসাহিত করা হয়েছে -আতাউল্লাহ হাফেজ্জী

প্রধানমন্ত্রীর সম্প্রতি দেয়া বক্তব্য "হাত মোজা, পা মোজা, নাক- চোখ ঢেকে, একেবারে, এটা কী? জীবন্ত ট্যান্ট (তাঁবু) হয়ে ঘুরে বেড়ানো; এর তো কোনো মানে হয় না।" এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের আমীরে শরীয়ত মাওলানা শাহ আতাউল্লাহ হাফেজ্জী। তিনি বলেছেন, হাত-পা মোজা ও নেকাব খাছ পর্দানশীন নারীদের পোশাক। পরহেযগার নারীরাই এই পোশাক পরিধান করে। জামায়াতে ইসলামীর প্রতিষ্ঠাতা আবুল আ’লা মওদুদীর দর্শন হলো- ‘নারীরা চেহারা ও হাত-পা খোলা রাখতে পারবে’। প্রধানমন্ত্রী কি মওদূদীর দর্শন পছন্দ করেন এবং এদেশে তা প্রতিষ্ঠা করতে চান?
তিনি আরো বলেন, পর্দানশীন নারীদেরকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য ও হেয় প্রতিপন্ন করে  প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য গণমানুষের হৃদয়কে ক্ষত-বিক্ষত করেছে। ইভটিজিং, ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বন্ধে শালীন পোশাকের  প্রতি উদ্বুদ্ধ না করে খাছ পর্দানশীন নারীদের মোজা ও নেকাব নিয়ে এই কটূক্তি দেশকে আরো অস্থিতিশীল পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দেবে। ইসলামের পক্ষে ইতিপূর্বে প্রদত্ত তার বক্তব্য ও কাজগুলো এমনকি পবিত্র রমজানে উমরাকালে তার বোরকা ও হিজাব পরিধান জাতির কাছে এখন প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে দাড়িয়েছে। পর্দানশীন নারীদেরকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য মূলক বক্তব্য প্রত্যাহার করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তিনি আহবান জানান।
গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১১টায় রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর জামিয়া নুরিয়া ইসলামিয়ায় নতুন শিক্ষাবর্ষের পরামর্শসভায় সভাপতির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় উপস্থিত ছিলেন, মাদরাসার শিক্ষাসচিব ও খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী, শায়খুল হাদিস সোলায়মান নোমানী, মাওলানা শেখ আজীমুদ্দীন, মুফতি মুজীবুর রহমান, মুফতি ইলিয়াছ মাদারীপুরী, মাওলানা আবরারুজ্জামান পাহাড়পুরী, মুফতি সুলতান মহিউদ্দিন, মুফতি আ ফ ম আকরাম হুসাইন, মাওলানা রহমাতুল্লাহ, মুফতি আবুল হাসান, মাওলানা মাসউদুর রহমান, হাফেজ আবুল কাসেম ও মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস প্রমুখ। সভায় আজ ৮ শাওয়াল, বুধবার হতে নতুন শিক্ষাবর্ষের ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানানো হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ