মঙ্গলবার ০২ জুন ২০২০
Online Edition

খুলনা সড়ক ও জনপথ বিভাগে ঘাট ইজারা টেন্ডার সমঝোতা!

খুলনা অফিস : খুলনার দিঘলিয়ার আড়ুয়া-গাজীরহাট-তেরখাদা সড়কের ১ম কিলোমিটারে অবস্থিত নগরঘাটা ফেরীঘাট এবং আড়ুয়া-গাজীরহাট-তেরখাদা সড়কের ১২ কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থিত আড়ুয়া ফেরীঘাটের ইজারা টেন্ডার সমঝোতা হয়েছে। সোমবার নগরীর জেলখানা ঘাটে অবস্থিত সড়ক ও জনপথ বিভাগে এ সমঝোতা হয়। ফলে ওই সিন্ডিকেটের ভয়ে সাধারণ ইজারাদারা দরপত্র জমা প্রদানে ব্যর্থ হয়।
জানা গেছে, দিঘলিয়ার আড়ুয়া-গাজীরহাট-তেরখাদা সড়কের ১ম কিলোমিটারে অবস্থিত নগরঘাটা ফেরীঘাট এবং আড়ুয়া-গাজীরহাট-তেরখাদা সড়কের ১২ কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থিত আড়ুয়া ফেরীঘাটের ২০১৯-২০ ও ২০-২১ এবং ২১-২২ অর্থ বছর অর্থাৎ ৩ বছরের জন্য টোল আদায়ের নিমিত্তে নিয়োগ প্রদানে ইজারার আহ্বান করে সড়জ ও জনপথ বিভাগ। বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সড়ক বিভাগের দপ্তরে দরপত্রের আহবান করা হয়। ২৬ মে ছিল দরপত্র বিক্রির শেষ দিন। সোমবার বেলা ১২টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত ওই দরপত্র জমার শেষ সময় ধার্য করা হয়। দরপত্র উন্মুক্ত করার সময় ছিল বেলা ১টা ৩০মিনিট। তবে শেষ সময় পর্যন্ত টেন্ডার বাক্স খোলা হয়নি।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক ইজারাদার অভিযোগ করেন, প্রভাবশালী ইজারাদার ওই টেন্ডার কাজের সমঝোতার চেষ্টা করেন। ফলে তারা দরপত্র জমা দিতে বাধা দিলে সাধারণ ঠিকাদাররা পিছু হটেন। ফলে ওই সিন্ডিকেটের ভয়ে সাধারণ ইজারাদারা দরপত্র জমা প্রদানে ব্যর্থ হয়। সড়ক বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী মুকুল জ্যোতি বসু বলেন, যা কিছু হয়েছে অফিসের বাইরে। অফিসের ভিতরে কোন ঘটনা ঘটেনি। তবে নির্বাহী প্রকৌশলী তাপসী দাশ বলেন, তিনি অফিসে ছিলেন না। তাই বিষয়টি তিনি অবগত নন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ