শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১
Online Edition

এখনও অনেক গার্মেন্টসে বোনাস পায়নি শ্রমিকরা

স্টাফ রিপোর্টার : সরকার-মালিক শ্রমিক তিন পক্ষ মিলে ৩০ মের মধ্যে সব কারখানায় ঈদের বোনাস পরিশোধের সিদ্ধান্ত নেয়। যদিও দেশের প্রায় অর্ধেক পোশাক কারখানাই প্রতিশ্রুত সময়ে বোনাস পরিশোধ করেনি। শিল্প পুলিশের কাছে জমা পড়া তথ্য অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার রাত ৮টা পর্যন্ত ছয় শিল্প এলাকায় বোনাস পরিশোধ করেছে ১ হাজার ৯২৭টি কারখানা। এ হিসাবে ৫৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ পোশাক কারখানায় বোনাস পরিশোধ হয়েছে। বাকি ৪৫ দশমিক ৫১ শতাংশ কারখানায় প্রতিশ্রুত সময়ে বোনাস পরিশোধ হয়নি।
শিল্প পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, দেশের ছয় শিল্প এলাকা আশুলিয়া, গাজীপুর, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, ময়মনসিংহ ও খুলনায় পোশাক কারখানা রয়েছে ৩ হাজার ৫৩৬টি। শিল্প পুলিশ ১ বা আশুলিয়া অঞ্চলে কারখানার সংখ্যা ৭৯১। এর মধ্যে বোনাস পরিশোধ হয়েছে ৭৫০টি কারখানায়। এ হিসাবে এ অঞ্চলের ৯৫ শতাংশ কারখানায় বোনাস পরিশোধ হয়েছে। এ অঞ্চলে বোনাস পরিশোধ করা বিজিএমইএর সদস্য কারখানা রয়েছে ৩১০টি ও বিকেএমইএর সদস্য ৫৪টি। এছাড়া বোনাস পরিশোধ হওয়া বিটিএমএর সদস্য কারখানা রয়েছে ২১টি। বেপজার আওতায় থাকা ৮০টি পোশাক কারখানায়ও প্রতিশ্রুত সময়ে বোনাস পরিশোধ হয়েছে। কোনো সংগঠন বা কর্তৃপক্ষের আওতায় নেই এমন ২৮৫টি কারখানায় বোনাস পরিশোধ হয়েছে।
বোনাস পরিশোধে সবচেয়ে পিছিয়ে আছে গাজীপুর বা শিল্প পুলিশ ২-এর অধীন কারখানা। এ শিল্পাঞ্চলের ১ হাজার ৩৪৫টি পোশাক কারখানার মধ্যে গত বৃহস্পতিবার রাত ৮টা পর্যন্ত বোনাস পরিশোধ হয়েছে ৪০২টিতে। এ হিসাবে এ শিল্প এলাকার ২৯ দশমিক ৮৮ শতাংশ কারখানায় বোনাস পরিশোধ হয়েছে। এ অঞ্চলে বোনাস পরিশোধ হয়েছে বিজিএমইএর সদস্য কারখানা ৩১৬ ও বিকেএমইএর ৩০টিতে।
 শিল্প পুলিশ ৩ বা চট্টগ্রামে পোশাক কারখানা আছে ৬৯৭টি। এর মধ্যে বোনাস পরিশোধ হয়েছে ৩৩০টিতে। এ হিসাবে বোনাস পরিশোধ হয়েছে এমন কারখানা ৪৭ দশমিক ৩৪ শতাংশ। বাকি প্রায় ৫৩ শতাংশ কারখানায় প্রতিশ্রুত সময়ে বোনাস পরিশোধ হয়নি। এ অঞ্চলে বোনাস পরিশোধ হয়েছে বিজিএমইএর সদস্য কারখানা ১১১টিতে। বোনাস পরিশোধ হওয়া বিকেএমইএর সদস্য কারখানার সংখ্যা ৪৫ ও বেপজার ১৩০। নারায়ণগঞ্জ বা শিল্প পুলিশ ৪-এ মোট পোশাক কারখানার সংখ্যা ৬৪২। এর মধ্যে ৩৯৬টিতে গতকাল পর্যন্ত বোনাস পরিশোধ হয়েছে। অর্থাৎ প্রতিশ্রুত সময়ে বোনাস পরিশোধ হয়েছে এ শিল্প এলাকার ৬১ দশমিক ৬৯ শতাংশ পোশাক কারখানায়। এ অঞ্চলে বোনাস পরিশোধ হয়েছে বিজিএমইএর সদস্য কারখানা ৭৬টিতে। এছাড়া বিকেএমইএর সদস্য কারখানা রয়েছে ২৯৭ ও বেপজার সদস্য ২৩টি।
শিল্প পুলিশ ৫ বা ময়মনসিংহ অঞ্চলে পোশাক কারখানা রয়েছে মোট ৫৬টি। এর মধ্যে ৪৪টি বা ৭৮ শতাংশ কারখানায় গতকাল পর্যন্ত বোনাস পরিশোধ হয়েছে। বাকি প্রায় ৫৫ শতাংশ কারখানার শ্রমিকরা প্রতিশ্রুত সময়ে বোনাস পাননি। বোনাস পরিশোধ করা বিজিএমইএর সদস্য কারখানার সংখ্যা ৪৪। খুলনা বা শিল্প পুলিশ ৬-এ পাঁচটি পোশাক কারখানার সবগুলোতেই বোনাস পরিশোধ হয়েছে। জানতে চাইলে শিল্প পুলিশের মহাপরিচালক এডিশনাল আইজিপি আবদুস সালাম গণমাধ্যমকে বলেন, পোশাক খাত ও অন্যান্য শিল্প-কারখানার বেতন-বোনাস পরিশোধ পরিস্থিতি আমরা নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছি। ছোটখাটো সমস্যা সবসময়ই থাকে। সেগুলো সমাধান করা হচ্ছে। আশা করছি, বড় কোনো সমস্যা ছাড়াই ঈদ উদযাপন করতে পারবেন শ্রমিক ও মালিকপক্ষ।
এদিকে পোশাক খাতের শিল্প-কারখানা মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ পরিচালনা পর্ষদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, সঠিক পরিসংখ্যান না থাকলেও বলা যায় অধিকাংশ কারখানায় বোনাস পরিশোধ হয়েছে। নিজস্ব মনিটরিং কমিটির মাধ্যমে প্রায় ৮০০ কারখানা নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছে সংগঠনটি। চলতি মাসে সমস্যাপ্রবণ প্রায় ৬৫টি কারখানার সমস্যা মধ্যস্থতার মাধ্যমে সমাধান করা হয়েছে। এর মধ্যে ২২টি কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত কোনো কারখানায় বড় কোনো সমস্যা দেখা দেয়নি। বিজিএমইএর সূত্র বলছেন, সমস্যাপূর্ণ ১০-১২টি কারখানা আমরা কঠোর নজরদারির মধ্যে রেখেছি। এছাড়া আমাদের নজরদারিতে থাকা ৮০০টি কারখানাসহ কোনোটি থেকেই অভিযোগ পাইনি। অধিকাংশ কারখানায়ই বোনাস পরিশোধ হয়েছে। আশা করছি, কোনো সমস্যা ছাড়াই বাকি কারখানার বেতন-ভাতাও পরিশোধ হয়ে যাবে। রাজধানীর বাড্ডা এলাকার গোল্ডস্টার লিমিটেড নামে পোশাক কারখানায় কাজ করছে ৯০০-এর মতো শ্রমিক। বেতন বকেয়া থাকায় সম্প্রতি এ শ্রমিকরা কারখানার মালিককে আটকে রাখেন। পরে সংশ্লিষ্ট মালিক সংগঠন ও সরকারি সংস্থার মধ্যস্থতায় এর সমাধান হয়। ১২ হাজারের মতো শ্রমিক রয়েছে গাজীপুরের ইন্ট্রাম্যাক্স পোশাক কারখানায়। বেতন বকেয়া থাকায় অসন্তোষ ছিল কারখানাটিতে। শিল্প পুলিশ ও বিজিএমইএ গতকাল জানিয়েছে, কারখানাটির বকেয়া পরিশোধ করে সমস্যা সমাধান করা হয়েছে। শিল্প পুলিশের হিসাবে দেশের শিল্প অধ্যুষিত ছয়টি অঞ্চলে পোশাক ছাড়া অন্যান্য কারখানা আছে মোট ৩ হাজার ৯০৪টি। এর মধ্যে বোনাস পরিশোধ হয়েছে ২ হাজার ১১৩টিতে। এ হিসাবে ৫৪ দশমিক ১২ শতাংশ কারখানায় বোনাস পরিশোধ হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ