মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

অভিবাসী ঠেকাতে মেক্সিকোর উপর ট্রাম্পের শুল্কের খাঁড়া

৩১ মে ওয়েবসাইট : অবৈধ অভিবাসীদের প্রবেশ আটকাতে বাধ্য করতে এবার মেক্সিকো সরকারের উপর চাপ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প মেক্সিকো থেকে সব ধরনের পণ্য প্রবেশের উপর ৫ শতাংশ শুল্কারোপের ঘোষণা দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার এক টুইটে ট্রাম্প বলেন, আগামী ১০ জুন থেকে ৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হবে এবং অবৈধ অভিবাসী প্রবেশ সমস্যা সামাধান না হওয়া পর্যন্ত তা ধীরে ধীরে বাড়বে। সমস্যার সমাধান হলে শুল্ক তুলে নেওয়া হবে।”

একই দিন হোয়াইট হাউজ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেন, “ওই শুল্ক প্রতি মাসে ৫ শতাংশ করে বাড়বে। অর্থাৎ ১ জুলাই সেটা ১০ শতাংশ, ১ অগাস্টে ১৫ শতাংশ, ১ সেপ্টেম্বর ২০ শতাংশ এবং ১ অক্টোবর ২৫ শতাংশ শুল্কারোপ হবে।”

মেক্সিকোর প্রচ্ছন্ন মদদে গণহারে অবৈধ অভিবাসী সীমান্তে জড় হয়ে জরুরি অবস্থার সৃষ্টি করেছে বলে মনে করেন ট্রাম্প। বলেন, “তারা জাতীয় নিরাপত্তা এবং যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির জন্য ভয়াবহ হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

 “মেক্সিকোর অভিবাসন আইন অত্যন্ত কঠোর এবং সরকার চাইলে সহজেই অবৈধ অভিবাসীদের এই ঢল আটকাতে পারত। এমনকি তাদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোও যেত।”

যুক্তরাষ্ট্রের এই শুল্কারোপ ‘সর্বনাশা’ হবে বলে সতর্ক করেছেন নর্থ আমেরিকায় মেক্সিকোর শীর্ষ কূটনীতিক জেসাস সিয়াদে। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “যদি এই শুল্ক আরোপ করা হয় তবে আমরা অবশ্যই তার ভয়ঙ্কর জবাব দেব।”

দারিদ্র এবং যুদ্ধ থেকে প্রাণ বাঁচিয়ে উন্নত জীবনের আশায় মধ্য আমেরিকার দেশ গুয়াতেমালা, হন্ডুরাস ও এল সালভাদর থেকে হাজার হাজার মানুষ মেক্সিকো হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের চেষ্টা করছে। দক্ষিণ সীমান্তে জড় হওয়া ওই শরণার্থীদের ‘সংকট’ বলে বর্ণনা করে ট্রাম্প দেশ জুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করেছেন।

শরণার্থীর ঢল আটকাতে ট্রাম্প মধ্য আমেরিকার ওই তিন দেশের জন্য বরাদ্দ মার্কিন সাহায্য বন্ধের হুমকিও দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার হিসাবমতে, গত বছর গুয়াতেমালা ২৪ কোটি ৮০ লাখের বেশি ডলার মার্কিন সাহায্য পেয়েছে। একই বছরে হন্ডুরাস পেয়েছে ১৭ কোটি ৫০ লাখ মার্কিন ডলার এবং এল সালভাদর ১১ কোটি ৫০ লাখ ডলার সাহায্য পেয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ