রবিবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২০
Online Edition

এ বারের ফিতরা সর্বসম্মতিক্রমে ৭০ টাকা নির্ধারণ

চট্টগ্রাম ব্যুরো : গতকাল ২২মে  বুধবার দুপুর ২টায় চট্টগ্রাম আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদের খতিব আওলাদে রাসুল হযরতুল আল্লামা ছাইয়্যেদ আনোয়ার হোসাইন তাহের জাবেরী আল মাদানীর সভাপতিত্বে চট্টগ্রামের বিশিষ্ট আলেম ওলামা ও মুফতিয়ানে কেরামদের নিয়ে সাদকাতুল ফিতরা সংক্রান্ত এক   সভা খতিবের কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।
এতে প্রধান অতিথি হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ অভিমত ব্যক্ত করেন বায়তুশ শরফের পীর বাহরুল উলুম আল্লামা শাহ মোহাম্মদ কুতুব উদ্দিন (মা:জি:আ:)। এছাড়াও আলোচনায় অংশ নেন বায়তুশ শরফ কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মাওলানা সাইয়্যেদ আবু নোমান, চট্টগ্রাম দারুল উলুম কামিল মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওলানা মাহবুবুল আলম ছিদ্দিকী, বায়তুশ শরফ মজলিসুল ওলামা বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা মামুনুর রশীদ নুরী, আহলুস সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের সেক্রেটারী জেনারেল মুফতি হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক, চবি’র অধ্যাপক ড. মাওলানা নিজামুদ্দিন, পতেঙ্গা ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আবু ছালেহ মুহাম্মদ সলিমুল্লাহ, দারুল উলুম কামিল মাদরাসার প্রধান মুহাদ্দিস মুফতি আহমদুর রহমান নদভী, জাতীয় ইমাম সমিতির চট্টগ্রাম মহানগর সেক্রেটারী মুফতি মাওলানা ফারুক ছিদ্দিকী,জাতীয় ইমাম সমিতি চট্টগ্রাম নগরীর সহসভাপতি মাওলানা জালাল উদ্দিন আনোয়ারী, কাট্টলী জাকেরুল উলুম মাদরাসার মোহাদ্দিস ও জাতীয় মুফাস্সির পরিষদের নগর সভাপতি মুফতি মাওলানা আবু হানিফা নোমান, দারুল উলুম মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা আনোয়ার হোসাইন, জাতীয় ইমাম সমিতির চট্টগ্রাম জেলা সভাপতি মাওলানা কাজী জাফর, বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা জসিম উদ্দিন, টেরীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির উপদেষ্টা মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন, মাওলানা আখতার হোসাইন ও হাসান মুরাদ প্রমুখ।
সভায় বলা হয়, পাঁচটি পণ্য দিয়ে সাতাকাতুল ফিতরা আদায় করা ইসলামী শরীয়ত অনুযায়ী বৈধ। গম, যব, খেজুর, কিশমিশ ও পনির। গমের পরিমাণ হচ্ছে অর্ধ সা তথা ১কেজি ৬৫০গ্রাম। অন্য পন্য গুলো ৩কিজে ৩০০গ্রাম।                                                               
হযরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা:) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলে করীম (স:) বলেছেন, সাতাকাতুল ফিতর উম্মতের উপর ওয়াজিব করেছেন এ জন্য যে, যাতে এর মাধ্যমে রোযার ত্রুটি বিচ্যুতি গুলি থেকে পবিত্রতা লাভ করা যায় এবং অসহায়, গরীব মিসকীনদের খাবারের ব্যবস্থা হয়। (আবু দাউদ) হাদীসে বর্ণিত পাঁচটি পণ্যের যে কোন একটি পরিমাণ দিয়ে ফিতরা আদায় করা যায়।
সভায় বাজার দর যাছাই বাচাই করে এবং শরীয়াহর দৃষ্টিভঙ্গিকে পর্যালোচনা করে, গরীবদের প্রতি সহানুভুতির কথা বিবেচনায় রেখে এবারের ফিতরা ৭০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। সভায় দেশের সর্বস্তরের মুসলমানদেরকে ৭০টাকা হারে ফিতরা আদায় করার জন্য অনুরোধ জানান। ঈদুল ফিতর  নামাজের আগেই ফিতরা আদায় করা মুস্তাহাব।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ