শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

ছড়া

খোকার প্রার্থনা

সায়ীদ আবুবকর

 

অনেক ভালো-

কেমন ভালো?

এমন ভালো, 

নেই যে ভালোর শেষ;

যাক না ভরে সেই ভালোতে 

আমাদের এই দেশ।

 

অনেক শান্তি-

কেমন শান্তি?

এমন শান্তি,

যে- শান্তিতে জুড়ায় দেহ-মন;

থাকে যেন সেই শান্তিতে

দেশের মানুষজন।

 

প্রাতে যেন সূর্য ওঠে,

রাতে ওঠে চাঁদ;

পেটে যদি অন্ন জোটে,

নেই আর কোনো সাধ।

 

অনেক আলোÑ

কেমন আলো?

এমন আলো,

যে-আলোতে আঁধার মুছে যায়,

মনের কোণে জমাটবাঁধা

দুঃখ ঘুঁচে যায়;

সেই আলোতে দাঁড়াক সবাই এসে,

স্বর্গ নেমে আসুক সারা দেশে।

 

মা

মাহফুজুর রহমান আখন্দ

 

এই দুনিয়ায় সবার মাঝে

আপন ভাবি কাকে?

মাকে।

 

শান্তি নদী যে ধারাতে বয়

যার পরশে পাহাড় সমান দুঃখ-ব্যথা

এক নিমিষেই ক্ষয়

ক'জন ছেলে চিনতে পারি তাকে?

মাকে!

 

মায়ের মুখে দু’আর কানন

বুকে আদর নদী

বইছে নিরবধি

পায়ের তলে স্বর্গ দোলে

আঁধার থেকে আলোয় তোলে

জীবন জুড়ে স্বার্থবিহীন দেখবো বলো কাকে?

মাকে।

 

মায়ের কোলে মাথা রেখে

আঁচল টেনে মুখটি ঢেকে

সুখ সাগরে কাটতে সাঁতার

ভাগ্য বলো কয়জনেরই হয়?

এমন মধুর সুখের পরশ

কয়টা বুকে সয়?

 

মাগো

তোমায় ছাড়া স্বপ্নগুলো

আলোই দ্যাখে না গো।

 

তোমার সঙ্গে আড়ি

হুমায়ুন আবিদ

   

মাগো তুমি কোথায় আছো

দাওনা কেনো সাড়া

একলা ঘরে ঘুম আসে না

তোমার পরশ ছাড়া।

 

দিদি বলছে তুমি নাকি

গেছো তারার দেশে

হাজার তারার মাঝে নাকি

আছো রাণীর বেশে।

 

কত করে বলি দিদি

আসবে মায়ে কবে

আমায় ছেড়ে তারার দেশে

আর কত দিন রবে।

 

কেউ বলে না কোনো কথা

থাকে চুপটি করে 

দিদি দেখি কাঁদে শুধু

একলা ফাঁকা ঘরে।

 

মাগো তোমায় বলছি শোনো

এসো তাড়াতাড়ি 

ঈদের আগে না আসিলে

তোমার সঙ্গে আড়ি।

 

নামাজ 

আমিন আল আসাদ

 

তোমার হুকুম করতে পালন জায়নামাজে দাঁড়ায়

ইচ্ছে জাগে তোমার দিকে হৃদয় আমার বাড়ায়

কিন্তু একাগ্র নয় চিত্ত

আমি নগণ্য এক ভৃত্য

চেষ্টা করি তোমার পথে পা-দুখানা বাড়ায়।

 

২.

তোমার পথে চলতে আমি চলতে আমি প্রভু

পিছপা হতে প্রত্যাশি নই কভু

অযাচিত দুর্বিপাকে 

মনটা এলোমেলো থাকে

সালাত কায়েম করতে ছুটি তবু।

 

 

বাঁকা চাঁদ 

আব্দুর রকিব  

 

বাঁকা চাঁদ হেসে হেসে বলে  ডেকে ডেকে

শুরু হলো রামাদান আজ রাত থেকে ।

চারদিকে জেগে উঠে খুশির সাড়া

নেমে আসে পৃথিবীতে শান্তির ধারা ।

নীড়ে বসে পাখিরা গেয়ে যায় গান

হাওয়ায় ভাসে যেনো কার আহবান ।

ধোকা দিয়ে পাপকাজে যে দিত ঠেলে 

সেই শয়তান বাঁধা আজ থেকে জেলে ।

জান্নাতের দ্বার ‘রব’ দিয়েছেন খোলে

দোজখের দ্বারে দ্বারে তালা শুধু ঝোলে ।

আল্লাহর পথে নাই কোনো ফাঁদ পাতা

ভালো কাজে নাই তাই আর কোনো বাঁধা ।

পানাহার ছেড়ে শুধু ভোর থেকে সাঁঝে

হবে কি রোজা যদি করো কাজ বাজে ?

চোখ মুখ বশে রেখে যদি রোজা রাখো

জান্নাতে যেতে হবে এই রোজা সাঁকো ।

 

 

গ্রীষ্মের গরমে

এস আই সানী

 

গ্রীষ্মের

দাবদাহে

জন-প্রাণ হাঁপিয়ে,

ঘাম ঝরে

দরদর

নাক মুখ ছাপিয়ে।

 

হাঁসফাঁস

করে জান

অবস্থা চরমে,

বেঁচে থাকা

যেন দায়

গ্রীষ্মের গরমে।

 

পাখালির

কলরব

থেমে গেছে হরষে,

কড়ারোদে

উড়ে উড়ে

ক্লান্ত বড় সে।

 

 

ইফতার 

আশরাফ আলী চারু 

 

ইফতার নিয়ে বসে আছে 

খায়না যে কেউ তবু ।

কেউনা বুঝুক মনের কথা 

বুঝেন সবি প্রভু।

 

বিশ্ব-মালিক বলেন ডেকে 

শুনো দিয়ে মন ।

বান্দারা কী আমায় দেখে 

ও ফেরেশতাগণ ?

 

না দেখেও যে বান্দারা সব 

করছে আমার ভয় ।

জেনে রেখো তারাই আমার 

মন করেছে জয় ।

 

 

রোজা

মোঃ আরিফ হোসেন

 

রোজার দিনে আহার থেকে

থাকবে সবাই দূরে,

আল্লাহ্পাকের কোরান-শরীফ

পড়বে সুরে সুরে। 

 

ভোর-নিশিতে নানান খাবার

ইচ্ছেমতো খাবে,

বিনিময়ে আমলনামায়

সওয়াব শুধু পাবে । 

 

ইফতারিটা করবে সবাই

সময় যখন হবে,

অতীতের সব গুনাহ্ প্রভু

মুছে দিবেন তবে । 

 

পাঁচ-ওয়াক্ত পড়বে নামাজ

করবে না তো কাজা,

নইলে সেদিন রোজ-হাশরে

পেতে হবে সাজা ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ