মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

সাংবাদিক এমএ আজিমের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহার করতে হবে

 

খুলনা অফিস : দৈনিক প্রবাহের রূপসা প্রতিনিধি সাংবাদিক এমএ আজিমের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক হত্যা মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে। অন্যথায় খুলনার সাংবাদিক সমাজ তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলবে। সাংবাদিক এমএ আজিমের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় নগরীর পিকসার প্যালেস মোড়ে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা এসব কথা বলেন। দৈনিক প্রবাহ পরিবারের পক্ষ থেকে এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। 

প্রবাহের সিনিয়র রিপোর্টার মুহাম্মদ নূরুজ্জামান মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন। বক্তৃতা করেন রূপসা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হাফেজ মাওলানা আব্দুল্লাহ যোবায়ের, রূপসা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা শেখ আলী আকবার, বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা খুলনার জেলা সমন্বয়কারী এডভোকেট মোমিনুল ইসলাম, নিরাপদ সড়ক চাই-নিসচা খুলনা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এস এম ইকবাল হোসেন বিপ্লব, রূপসা প্রেস ক্লাবের সভাপতি তরুন চক্রবর্তী বিষ্ণু, সাবেক সভাপতি রবিউল ইসলাম তোতা ও এস এম মাহবুবুর রহমান, সাংস্কৃতিক সংগঠক মুন্সি মোশতাক আহমেদ বাবু, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের (কেইউজে) প্রচার ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক নুর হাসান জনি, প্রবাহের সহকারী সম্পাদক মেহেদী মাসুদ খান, স্টাফ রিপোর্টার মো. শরিফুল ইসলাম বনি, প্রবাহের রূপসা প্রতিনিধি খান মিজানুর রহমান, তেরখাদা উপজেলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও প্রবাহের তেরখাদা প্রতিনিধি বাসিতুল হাবিব প্রিন্স, নৈহাটি ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাংবাদিক এমএ আজিমের শ্বশুর গোলাম কিবরিয়া প্রমুখ। 

সমাবেশে বক্তারা আরো বলেন, সাংবাদিক আজিম সৎ ও বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় বিশ্বাসী। সার্বক্ষনিক অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে তার কলম অবিচল থেকেছে। এমনকি তিনি হত্যাকান্ডের শিকার ইউপি চেয়ারম্যান আক্তারের অপকর্মের বিরুদ্ধেও কলম ধরেছিলেন। যে কারণে মাঝে-মধ্যেই তাকে প্রভাবশালী ও সন্ত্রাসীচক্রের রক্ত চক্ষুর মুখে পড়তে হয়েছে। তার কলমকে চিরতরে স্তব্দ করতেই তাকে হত্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে। 

বক্তারা বলেন, আক্তার হত্যা মামলার বাদি (নিহতের শ্বশুর) সাহেব আলী আকুঞ্জিকে কঠোরভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই হত্যার প্রকৃত রহস্য উদঘাটন হবে। কারণ সাংবাদিক আজিম ঘটনার সময় রূপসায় পেশাগত দায়িত্ব পালনরত অবস্থায়ও তাকে এজাহারভূক্ত আসামি করে তিনি প্রকৃত আসামিদের আড়াল করার চেষ্টা করেছেন মর্মে প্রতিয়মান হয়। 

উল্লেখ্য, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় রামপাল উপজেলার ভরসাপুর বাসস্ট্যান্ডে বোমা হামলায় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান খাজা মঈন উদ্দিন আক্তার নিহত হন। এ হত্যাকান্ডের ৫ দিন পরও তার শ্বশুর সাহেব আলী আকুঞ্জি বাদী হয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে রামপাল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। যে মামলায় পরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে সাংবাদিক এমএ আজিমকে আসামি করা হয়। মামলাটি বর্তমানে পিবিআই (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) তদন্ত করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ